রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:৫১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
লাখাইয়ে পারিবারিক বিষয় নিয়ে বাকবিতন্ডা ॥ পুত্রের হাতে পিতা খুন হবিগঞ্জে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম ॥ রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে প্রত্যাবর্তনই উত্তম পন্থা শহরের বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের সামন থেকে ১২ রোমিও আটক পরিবারের মুছলেখায় মুক্তি ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে চুনারুঘাটের ১ জনের মৃত্যু নবীগঞ্জে বউ-শাশুড়ীর ঝগড়া প্রাণ গেল সবুর হোসেনের বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশকে পিছিয়ে দিয়েছিল-এমপি মিলাদ গাজী বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলা গড়াই হোক জাতীয় শোক দিবসের অঙ্গীকার-এমপি মজিদ খান পইলে শহীদ এনাম স্মৃতি সংঘের ৭ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত তিতখাই-চান্দপুর সড়কটি সংস্কার কাজ বন্ধ ॥ জনদুর্ভোগ চরমে বানিয়াচঙ্গে চেক ডিজঅনার মামলার সাজা প্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেপ্তার
শহরতলীর নারায়নপুরে মহিলার লাশ উদ্ধার ॥ স্বামীই তাকে হত্যা করেছে বলে ডলির পিতা দাবী করছেন

শহরতলীর নারায়নপুরে মহিলার লাশ উদ্ধার ॥ স্বামীই তাকে হত্যা করেছে বলে ডলির পিতা দাবী করছেন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার নারায়নপুর গ্রামের বন্দেরবাড়ি এলাকার একটি পুকুর থেকে ডলি বেগম (২০) নামে এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। ডলি বেগম আজমিরীগঞ্জ উপজেলার বিরাট গ্রামের লাল মিয়ার স্ত্রী এবং একই উপজেলার শিবপাশা দগগাবাড়ির সোহেল মিয়ার মেয়ে। স্বামী সন্তানসহ নিহত ডলি বেগম বন্দেরবাড়ি এলাকার অ্যাডভোকেট আশিকুর রহমানের বাড়ির ভাড়াটিয়া হিসাবে বসবাস করছিলেন। স্বামীই তাকে হত্যা করেছে বলে ডলির পিতা দাবী করছেন।
স্থানীয়রা জানায়, দুই বছর আগে লাল মিয়ার সঙ্গে ডলির বিয়ে হয়। প্রায় ৫মাস আগে তাদের একটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। ৩দিন আগে ৭ আগস্ট লাল মিয়া তার স্ত্রী ডলি বেগম ও সন্তান নাদিয়াকে নিয়ে নারায়নপুর বন্দেরবাড়ি এলাকায় ভাড়া বাড়িতে ওঠেন। এরই মধ্যে গতকাল সোমবার সকালে স্থানীয় লোকজন বাসার পাশের পুকুরে ডলির লাশ ভাসতে দেখে হবিগঞ্জ সদর থানায় খবর দেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।
এদিকে, সকাল থেকেই ডলির স্বামী লাল মিয়া ও মেয়ে নাদিয়াকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। এতে রহস্য ঘনীভূত হচ্ছে।
নিহতের বাবা সোহেল মিয়া জানান, বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে ০১৯৬৪-৪৯৭৩০৫ এই নাম্বার থেকে ডলি বেগম তার সাথে শেষ কথা বলে। এর পর থেকেই ওই নাম্বার বন্ধ এবং সেও নিখোঁজ হয়। তিনি আরো জানান যে, ডলির শ্বশুর দেড় বছর আগে ডলি বেগমের ৪ ভরি স্বর্ণ বিক্রি করে দেন এ নিয়ে আজমিরিগঞ্জে উপজেলা চেয়াম্যান আতর আলী মিয়া এবং ইউনিয়ন চেয়াম্যান তাপছির মিয়া সালিসও করে দেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন যে আমার মেয়েকে তার স্বামী মেরেছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com