সোমবার, ০১ Jun ২০২০, ০১:৪০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ভারতীয় নাগরিকের পিটুনীতে বাংলাদেশী খুন ॥ লাশের অপেক্ষায় স্বজনরা বানিয়াচংয়ের বিভিন্ন বাজারে সেনাবাহিনীর জনসচেতনতামূলক প্রচারাভিযান শ্রীমঙ্গলে ৬৭ টি মামলায় ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা নবীগঞ্জে সরকারের অর্থ সহায়তার তালিকায় নারী কাউন্সিলরের পরিবারের ৬ সদস্যের নাম শচীন্দ্র লাল সরকারের সমাধীতে জেলা সিপিবি, উদীচী, কিবরিয়া ফাউন্ডেশন, সচেতন নাগরিক কমিটি ও মাতৃছায়া কেজি এন্ড হাইস্কুলের পুষ্পস্তবক অর্পন দৈনিক খোয়াই পত্রিকার সার্কুলেশন ম্যানেজার সাইফুলের পিতার ইন্তেকাল নবীগঞ্জে ভাতিজার হাতে চাচা খুন শ্রীমঙ্গলে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শ্রীমঙ্গল পৌরসভার কাউন্সিলর আব্দুল আহাদের মৃত্যু বানিয়াচঙ্গের হাওর থেকে অজ্ঞাত মহিলার লাশ উদ্ধার হবিগঞ্জে জমি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১
বিশ্বকাপে হারানোর মধুর প্রতিশোধ নিল বাংলাদেশ ॥ ড. শাহ্ নেওয়াজের অভিনন্দন

বিশ্বকাপে হারানোর মধুর প্রতিশোধ নিল বাংলাদেশ ॥ ড. শাহ্ নেওয়াজের অভিনন্দন

পাবেল খান চৌধুরী ॥ বিশ্বকাপে হারের মধুর প্রতিশোধ নিল টাইগার বাহিনী। তিন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার ও সাকিব আল হাসান ভিত গড়ে দিয়েছিলেন জয়ের। ম্যাচের শুরুতেও সবচেয়ে আলোচিত নাম ছিল মুস্তাফিজ। প্রথমবার ওয়ানডে দলে ডাক পাওয়া বাঁহাতি পেসারের প্রথম ম্যাচেই একাদশে সুযোগ পাওয়া ছিল অনেকটাই অপ্রত্যাশিত। কিন্তু তাকে দলে রাখতেই বাংলাদেশ সবাইকে চমকে দেয় ৪ পেসার নিয়ে একাদশ সাজিয়ে। অধিনায়ক, টিম ম্যানেজমেন্টের আস্থার প্রতিদান কি দারুণ ভাবেই না দিলেন সাতক্ষীরার এই তরুণ! শুধু একাদশেই রাখা নয়, ইনিংসের প্রথম ওভারেই মুস্তাফিজের হাতে বল তুলে দেন অধিনায়ক মাশরাফি। একজন তরুণ বোলারের জন্য এর চেয়ে বড় অনুপ্রেরণা আর কি হতে পারে। উইকেট পেতে পারতো প্রথম বলেই। এলবিডব্লিউর জোড়ালো আবেদনে রোহিত শর্মা বেঁচে যান বল ব্যাটের কানা ছোঁয়ায়। পরে সেই রোহিতকে আউট করেই মুস্তাফিজ খোলেন উইকেটের খাতা। ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে ম্যাচ জয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট টিমসহ সংশ্লিষ্টদের অভিনন্দন জানিয়েছেন যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের উপদেষ্ঠা মন্ডলীর সদস্য, বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ আসন থেকে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশি ড. মোহাম্মদ শাহ্ নেওয়াজ। অভিনন্দন জানিয়ে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান এর কন্যা বাংলার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। আর এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ একদিন বিশ্ব জয় করবে। বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে ধারাবে এই প্রত্যাশা আমাদের সকলের।
৭৯ রানের জয়ে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেছে বাংলার টাইগাররা। সঙ্গে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলার সম্ভাবনা আরেকটু উজ্জ্বল হয়েছে তাদের। বৃহস্পতিবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রথম টস জিতে ব্যাট করতে নেমে দুই বল বাকি থাকতে ৩০৭ রানে অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ। ভারতের বিপক্ষে এটাই তাদের সর্বোচ্চ রান। ২০১০ সালের জানুয়ারিতে একই মাঠে ৬ উইকেটে করা ২৯৬ ছিল আগের সর্বোচ্চ। জবাবে ৪৬ ওভারে ২২৮ রানে অলআউট হয়ে যায় ভারত। তাদের কাছে হেরেই বিশ্বকাপের কোয়ার্টার-ফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছিল বাংলাদেশ। এবার সেই হারের প্রতিশোধ নেয় বাংলাদেশী ক্রিকেটারা। রুবেল হোসেনের করা নবম ওভারে মুশফিকুর রহিমকে ক্যাচ দেন শিখর ধাওয়ান। সেসময় ১৩ রানে ব্যাট করা এই বাহাতি ব্যাটসম্যানের ক্যাচ গ্লাভসবন্দি করতে পারেননি মুশফিক। মাশরাফি বিন মুর্তজার করা পরের ওভারে আবার ধাওয়ানের ক্যাচ ছাড়েন মুশফিক। আম্পায়ার মাশরাফির আবেদনে সাড়া দিয়ে আউট দেন কিন্তু এবারও ক্যাচ গ্লাভসবন্দি করতে পারেননি তিনি। তৃতীয় প্রচেষ্টায় সফল হন মুশফিক। তাসকিন আহমেদের বলে ধাওয়ানের (৩০) গ্লাভস ছুঁয়ে আসা বল এবার গ্লাভসবন্দি করেন তিনি। পরের ওভারে বিরাট কোহলিকেও ফেরান তাসকিন। তার বলে মুশফিকের গ্লাভসবন্দি হন কোহলি (১)। দ্বিতীয় স্পেলে ফিরে রোহিত শর্মাকে (৬৩) বিদায় করেন মুস্তাফিজুর রহমান। ওয়ানডেতে নিজের প্রথম উইকেট নিতে রোহিতকে মাশরাফির ক্যাচে পরিণত করেন এই বাঁহাতি পেসার। পরের ওভারে দারুণ এক স্লোয়ারে অজিঙ্কা রাহানেকে ফেরান মুস্তাফিজ। লাফিয়ে অসাধারণ ক্যাচ ধরা নাসির হোসেনের অবদানও তাতে কম নয়। বোলিংয়ে এসেই আঘাত হানেন সাকিব আল হাসান। তার বলে মুশফিককে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান মহেন্দ্র সিং ধোনি (৫)। ৩৭তম ওভারে বোলিং ফিরে বিপজ্জনক সুরেশ রায়নাকে বোল্ড করেন মুস্তাফিজ। পরের বলে রবি চন্দ্রন অশ্বিনকে মুশফিকের ক্যাচে পরিণত নিজের চতুর্থ উইকেট নেন তিনি। পরের ওভারে ফিরে রবিন্দ্র জাদেজাকে আউট করে নিজের পঞ্চম উইকেট নেন মুস্তাফিজ। এর আগে তিন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার ও সাকিব আল হাসানের অর্ধশতকে ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডেতে প্রথমবারের মতো তিনশ’ পার হয় বাংলাদেশের সংগ্রহ। স্বাগতিকদের উড়ন্ত সূচনা এনে দেন তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। শুরু থেকেই আত্মবিশ্বাসী ব্যাটিং করা এই দুই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান রানের গতি বাড়ানোর দিকে মনোযোগ দেন পঞ্চম ওভারের পর থেকে। উমেশ যাদবের করা ষষ্ঠ ওভারে তিন চার ও এক ছক্কায় ১৮ রান নেন তামিম। স্লিপের পাশ দিয়ে হয় প্রথম চার, পরেরটি তিনি হাঁকান পয়েন্টের ওপর দিয়ে। বোলার আর মিডঅনের মাঝ দিয়ে তৃতীয় চারটি আদায় করে নেন তামিম। আর শেষ বলে লংঅফ দিয়ে উড়িয়ে সীমানার বাইরে পাঠান এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। ৫.৪০ থেকে রান রেট বেড়ে হয় ৭.৫০। এরপর আর পেছনে তাকাতে হয়নি তামিম-সৌম্যকে। উমেশের সেই ওভারের পর তামিম নিজেকে একটু সামলে রাখলেও অতিথি বোলারদের ওপর চড়াও হন সৌম্য। তাতেই ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডেতে প্রথমবারের মতো শতরানের উদ্বোধনী জুটি পেয়ে যায় বাংলাদেশ। ১৩.৪ ওভার স্থায়ী উদ্বোধনী জুটি ভাঙে সৌম্যর (৫৪) রান আউটে। তার ৪০ বলের আক্রমণাত্মক ইনিংসটি সাজানো ৮টি চার ও একটি ছক্কায়। বেলা সাড়ে তিনটার দিকেই ফ্লাডলাইট জ্বলে উঠে, বৃষ্টি হানা দেয় তার একটু পরেই। ষোড়শ ওভারে বৃষ্টির বাধায় এক ঘণ্টা খেলা বন্ধ থাকার আগেই অর্ধশতকে পৌঁছান তামিম। ওয়ানডেতে এ নিয়ে মাত্র পঞ্চমবার একই ম্যাচে অর্ধশতক পেলেন বাংলাদেশের দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান। ষোড়শ ওভারে খেলা বন্ধ হওয়ার সময় বাংলাদেশের রান রেট ছিল আট ছুঁই ছুঁই। আবার খেলা শুরু হওয়ার পর রবি চন্দ্রন অশ্বিনের ৫ ওভারের এক স্পেলে তামিম, লিটন দাস ও মুশফিকুর রহিমের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে স্বাগতিকরা। ৬২ বলে ৭টি চার ও একটি ছক্কার সাহায্যে ৬০ রান তামিম এগিয়ে এসে তুলে মারতে গিয়ে সীমানায় ক্যাচ দিয়ে আউট হন। একইভাবে আউট হন দলের অন্যতম নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান মুশফিক। আর এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন অভিষিক্ত লিটন। ১২৩ রানে ১ উইকেট থেকে ১৪৬ রানে চার উইকেট হারিয়ে অস্বস্তিতে পড়া বাংলাদেশ প্রতিরোধ গড়ে সাকিব আল হাসান ও সাব্বির রহমানের ব্যাটে। শুরুতে সতর্ক ব্যাটিং করেন এই দুই জনে। ২৫তম ওভারে রান রেট নেমে আসে ছয়ের নিচে। তখন রান নিয়ে খুব একটা ভাবেননি এই দুই জনে। সময় গড়ানোর সঙ্গে শট খেলা শুরু করেন তারা, বাড়ে রান তোলার গতিও। ৩৫তম ওভারে রান রেট আবার ছয়ের ওপরে নিয়ে আসেন সাকিব-সাব্বির। তাদের ৮৩ রানের জুটিতে বড় সংগ্রহের দিকে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। রবিন্দ্র জাদেজার বলে সাব্বির বোল্ড হলে ভাঙে ১৪.২ ওভার স্থায়ী জুটি। ৪১ রান করা সাব্বিরের ৪৪ বলের ইনিংসটি গড়া ৫টি চার ও একটি ছক্কায়। এরপর বেশিক্ষণ টেকেননি সাকিব। অর্ধশতকে পৌঁছে উমেশ যাদবের বাজে একটি বলে জাদেজাকে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তিনি। বলটি মাঠের যেকোনো জায়গায় পাঠাতে পারতেন ৬৮ বলে ৫২ রান করা এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। প্রথম ছয় ব্যাটসম্যানের বিদায়ের পর তিনশ’ পার হতে বাংলাদেশ তাকিয়ে ছিল নাসির হোসেনের দিকে। ২৭ বলে ৩৪ রানের ইনিংস খেলা এই ব্যাটসম্যান সেদিকেই নিয়ে যাচ্ছিলেন দলকে। কিন্তু উমেশের বলে তিনি জাদেজার তালুবন্দি হলে বাংলাদেশের তিনশ’ রানে পৌঁছানো নিয়ে শঙ্কা জাগে। শেষ ওভারগুলোয় বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান না থাকায় আর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারানোয় এই সময়ে খুব বেশি রান সংগ্রহ করতে পারেনি বাংলাদেশ। কিন্তু ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডেতে নিজেদের সর্বোচ্চ সংগ্রহ ঠিকই গড়ে তারা। শেষ ওভারে আউট হওয়ার আগে ২১ রান করেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। তার দৃঢ়তায় ভারতের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো তিনশ’ পার হয় বাংলাদেশের সংগ্রহ। ভারতের পক্ষে ৫১ রানে ৩ উইকেট নেন অফস্পিনার অশ্বিন। এছাড়া দুটি করে উইকেট নেন উমেশ ও ভুবনেশ্বর। এবার অপেক্ষায় আছে বাংলাদেশের মানুষ ওয়ানডে সিরিজ জয় করে বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে হারানোর প্রতিশোধ নিয়ে ভারতকে উচিত শিক্ষা দেয়ার। বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে হারানোর পর ইন্ডিয়ান অনেক সাবেক ও বর্তমান ক্রিকেটাররা বাংলাদেশ নিয়ে নানান কটাক্ষ করেছিল। গতকাল ভারতের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে জয়ের মাধ্যমে তাদের সেই বিদ্রুপ মন্তব্যের করা জবাব দিয়েছে বাংলাদেশী টাইগার বাহিনী।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com