মঙ্গলবার, ০৯ মার্চ ২০২১, ০৭:৩০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সাতছড়িতে রকেট লাঞ্চারের ১৮টি গোলা নিস্ক্রিয় করলো সেনাবাহিনী মতবিনিময় সভায় নবাগত জেলা প্রশাসক ॥ দেশ ও জাতির উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় সাংবাদিকদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ আবু জাহির এমপি’র সাথে নবনির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌর পরিষদের সৌজন্য সাক্ষাৎ নারী দিবসের চেতনায় সবাইকে উজ্জীবিত হওয়ার আহ্বান জেলা প্রশাসকের ৪নং ওয়ার্ডের মুরুব্বীয়ানদের সাথে মেয়র সেলিমের শুভেচ্ছা বিনিময় নূর মডেল কেজি এন্ড হাই স্কুলের শিক্ষা সফর সম্পন্ন নবীগঞ্জ উপজেলা মাসিক আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্টিত বিদায়ী জেলা প্রশাসককে তাসনুভা-শামীম ফাউন্ডেশনের সম্মাননা স্মারক প্রদান হবিগঞ্জে আরো ৫৩৪ জন করোনা টিকা নিয়েছেন মাধবপুরে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত
ইচ্ছার কাছে দারিদ্রতা পরাজিত মাধবপুরে ৩ মেধাবী মুখ

ইচ্ছার কাছে দারিদ্রতা পরাজিত মাধবপুরে ৩ মেধাবী মুখ

আবুল হোসেন সবুজ, মাধবপুর থেকে ॥ অদম্য ইচ্ছা শক্তির কাছে দারিদ্রতা হার মানতে বাধ্য। এবারের এসএসসি পরীক্ষায় এমনই উদাহরণ সৃষ্টি করেছে মাধবপুরের ৩ মেধাবী মুখ। ৩ মেধাবীকে নিয়ে এ আয়োজেন-
তারেক আহম্মেদ :
অন্যের জমিতে দিন মজুরের কাজ করে মাধবপুর উপজেলার জগদীশপুর জেসি হাইস্কুল এন্ড কলেজ থেকে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় তারেক আহম্মেদ বিজ্ঞান বিভাগে জিপিএ-৫ পেয়ে সবাইকে তাক লাগিয়েছে। দারিদ্রতা তাকে দমিয়ে রাখতে পারেনি। লেখাপড়া ও সংসারের খরচ যোগাতে সে অন্যের কৃষি জমিতে শ্রমিকের কাজ করেছে। উপজেলার সন্তোষপুর গ্রামের  আলী আহম্মেদের ছেলে তারেক। বাবা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বিছানায় শয্যাশায়ী। ছেলে ভাল ফলাফল করেছে এ খবর শুনেও মুখে সামান্যতম হাসি নেই। দারিদ্র যেন তাদের গ্রাস করে ফেলেছে। ওরা ৩ ভাই ২ বোন। মা মুর্শিদা বেগম গৃহীনি। তিনি জানান, এত দিন তারেক লেখাপড়ার পাশাপাশি পরের জমিতে কাজ করে লেখাপড়া ও পরিবারের খরচ যোগিয়েছে। এখন তার অদম্য ইচ্ছা ভাল কলেজে ভর্তি হয়ে লেখাপড়া করে ডাক্তার হওয়ার। সেই স্বপ্ন পূরণ করতে চায় সে। কিন্তু অসুস্থ স্বামীকে নিয়ে কিভাবে ছেলের লেখাপড়ার খরচ যোগাবেন এ নিয়ে চিন্তিত তার মা।
কারিমা আক্তার :
মাধবপুর উপজেলার জগদীশপুর জেসি হাইস্কুল এন্ড কলেজ থেকে দর্জির কাজ করে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ -৫ পেয়েছে মোছাঃ কারিমা আক্তার। সে উপজেলার সন্তোষপুর গ্রামের হতদরিদ্র শামসুল ইসলামের মেয়ে। ৪ ভাই ২ বোন মা বাবা সহ ৮ জনের সংসারে একমাত্র উপার্জনকারী ব্যক্তি বাবা শামসুল ইসলামের পক্ষে লেখাপড়া ও সংসারের খরচ চালানো কষ্টকর ছিল। এ কারণে কারিমার লেখাপড়া বন্ধ হওয়ার উপক্রম ছিল। মা নাছিমা আক্তার পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের স্বেচ্ছাসেবী। বাড়িতে থাকা সেলাই মেশিনে মায়ের কাছ থেকে কাজ শিখে লেখাপড়ার পাশাপাশি সেলাইয়ের কাজ করে নিজের পড়াশোনা খরচ মিটিয়েছেন কারিমা। অদম্য ইচ্ছা কঠোর অধ্যবসায় ও বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আন্তরিক সহযোগিতায় জিপিএ-৫ পেয়েছে সে। তার মা নাছিমা আক্তার জানান, কারিমা ভাল ফলাফল করার পরও তারা আর্থিক সংকটের কারণে মেয়ের লেখাপড়া চালিয়ে নিতে পারবে কিনা এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছে।
সাথী রানী পাল :
ছোট বেলা থেকেই ডাক্তার হওয়ার অদম্য ইচ্ছা রয়েছে সাথী রানী পালের। এ অদম্য ইচ্ছা থেকে একাগ্রচিত্তে লেখাপড়া করে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় জগদীশপুর জেসি হাইস্কুল এন্ড কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে জিপিএ-৫ পেয়েছে সাথী রানী পাল। সে উপজেলার সন্তোষপুর গ্রামের সবজি বিক্রেতা হিরেন্দ্র পালের মেয়ে। সাথীর মা সূচিত্রা রানী পাল বলেন, ঘরটি তাদের একমাত্র সম্ভল। জমি জমা কিছুই নেই। সাথীর বাবা হিরেন্দ্র পাল কিডনী রোগী। সামান্য সবজির ব্যবসা করে পরিবার ও মেয়ের খরচ যোগিয়েছেন। এখন ভাল কলেজে ভর্তি করে মেয়ের পড়া শোনা চালিয়ে যেতে পারবে কি না এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন তারা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com