মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারী ২০২০, ০৫:২৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
কিবরিয়া ব্রীজের বেহাল অবস্থা বড় ধরণের দুর্ঘটনার আশংকা শহরে মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ বিক্রি করায় ফামের্সীকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা আ’লীগ-বিএনপির সংঘর্ষ নিহত ১ ॥ পর্তুগালে নবীগঞ্জের ২ প্রবাসী গ্রেফতার অ্যাপলো হাসপাতালে আলহাজ্ব রইছ মিয়া ও ডাঃ তপন কুমার দাশগুপ্তকে দেখতে গেছেন এমপি আবু জাহির হবিগঞ্জ পৌরসভায় দরপত্রের সিডিউল বিক্রয়ে অনিয়ম ॥ মেয়র বললেন অভিযোগ মিথ্যা শিক্ষার্থী জেরিনের মৃত্যুর প্রতিবাদে লাখাই সড়কে অবরোধ ও বিক্ষোভ আজমিরীগঞ্জে কাকাইলছেও দুর্বৃত্তের হামলা-ভাংচুর ॥ ৩ কলেজ ছাত্র আহত প্রাথমিক সহকারী শিক্ষকের হবিগঞ্জ সহ ১৪ জেলার ফলাফল স্থগিত বাণিজ্য মেলায় পণ্যের অতিরিক্ত মূল্য রাখার অভিযোগ উঠেছে হবিগঞ্জে নতুন মুক্তিযোদ্ধা স্বীকৃতি পাচ্ছেন ৩৬ জন
সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অমান্য করায় ॥ বিসমিল্লাহ পরিবহনের মালিক আব্দুস শহীদের ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ॥ ১৪ জুনের মধ্যে ভবনের অভিযুক্ত অংশ ভেঙ্গে ফেলতে পৌরসভাকে নির্দেশ

সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অমান্য করায় ॥ বিসমিল্লাহ পরিবহনের মালিক আব্দুস শহীদের ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ॥ ১৪ জুনের মধ্যে ভবনের অভিযুক্ত অংশ ভেঙ্গে ফেলতে পৌরসভাকে নির্দেশ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অমান্য করায় হবিগঞ্জ শহরের রামকৃষ্ণ মিশন রোডের বাসিন্দা, বিসমিল্লাহ পরিবহনের মালিক রোটারিয়ান আব্দুস শহীদ সালেহকে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ১৪ জুনের মধ্যে অভিযুক্ত অংশ ভেঙ্গে ফেলার জন্য হবিগঞ্জ পৌরসভাকে নির্দেশ দেন। প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নেতৃত্বে ৪ সদস্যের আপিল বেঞ্চ গতকাল সোমবার এ আদেশ দেন।
মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরনে জানা যায়, বিসমিল্লাহ পরিবহনের মালিক রোটারিয়ান আব্দুস শহীদ সালেহ পৌরসভার অনুমোদন ছাড়া ও স্বত্ব দখলীয় রাস্তা দখল করে বহুতল ভবন নির্মাণের অভিযোগ এনে প্রতিবেশী এডভোকেট শ্যামল কান্তি দাস বাদী হয়ে হবিগঞ্জ প্রথম যুগ্ম জেলা জজ আদালতে একটি মামলা দায়ের করা হয়। এর প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ বিচারক ওই জমিতে ভবন নির্মাণের ওপর নিষেধাজ্ঞার আদেশ দেন।
এ আদেশের বিরুদ্ধে শহীদ হাই কোর্টে আপিল করলে বিজ্ঞ বিচারক প্রথম যুগ্ম জেলা জজ আদালতের আদেশ স্থগিত করেন।
হাই কোর্টের এ আদেশের বিরুদ্ধে এডভোকেট শ্যামল কান্তি দাস আপিল বিভাগে আবেদন করলে ২০১৩ সালের ২৭ অগাস্ট ওই ভবন নির্মাণে স্থিতাবস্থা বজায় রাখার আদেশ দেয়া হয়। ওই আদেশ অমান্য করে নির্মাণ কাজ অব্যাহত রাখায় এডবোকেট শ্যামল কান্তি দাস বিবাদী শহীদের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ আনেন। এরপর আদালত অনুমোদনহীন ভবন অপসারণের জন্য পৌরসভাকে নির্দেশ দেন।
ওই নির্দেশ না মানায় পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র পিয়ারা বেগমসহ সাবেক ও বর্তমান সচিব ও নির্বাহী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল জারি হয়। তাদের সঙ্গে আব্দুস শহীদকেও তলব করে আদালত। সেই রুলের শুনানির জন্য গতকাল সোমবার আদালতে হাজির হন আব্দুস শহীদ সালেহ ও পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র পিয়ারা বেগমসহ অন্যান্যরা। আদালতে আবেদনকারী পক্ষে ছিলেন আইনজীবী সুব্রত চৌধুরী ও জগলুল হায়দার আফ্রিক। পৌরসভার পক্ষে ছিলেন এ কে এম ফয়েজ। ভবন মালিক শহীদের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট অন রেকর্ড জয়নুল আবেদীন তুহিন।
আদেশের পর এডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বলেন, “ভবন মালিক শহীদের বাধার কারণে বার বার সময় নিয়েও পৌরসভা ওই নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে পারেনি বলে জানিয়েছে। আদালতের নির্দেশ অমান্য করায় আপিল বিভাগ শহীদকে কারাদণ্ড দিয়েছে। রেজিষ্ট্রারের মাধ্যমে তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আপিল বিভাগ এক মাসের মধ্যে ওই অবৈধ স্থাপনা অপসারণ করতে পৌরসভাকে নির্দেশ দিয়েছে বলে জানান এডভোকেট সুব্রত চৌধুরী।
সুপ্রিম কোর্টের রেজিষ্ট্রার সৈয়দ আমিনুল ইসলাম বলেন, আদালত শহীদকে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন। আদালতের নির্দেশ অনুসারে শাহবাগ পুলিশের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com