রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৫:০৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাট সীমান্তের মাদক সম্রাট দুলন গ্রেফতার ॥ এলাকায় উল্লাস, মিষ্টি বিতরণ শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার হবিগঞ্জে কনফারেন্সে ড. বোরহান উদ্দিন ॥ ভারত উপমহাদেশে আ’লা হযরত ছিলেন আশির্বাদ স্বরূপ বাহুবলে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত খেলাধূলার উন্নয়নে আন্তরিকতা অব্যাহত থাকবে-এমপি আবু জাহির বাহুবলে ৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি হবিগঞ্জ জেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষে বিশেষ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত বানিয়াচঙ্গের এক গৃহবধূ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাইপাস সড়কে অবৈধভাবে আবারো জায়গা দখল চলছে
সরকারের সদিচ্ছাই পারে প্রতিবন্ধীদের ভিক্ষাভিত্তির পথ থেকে মুক্ত করতে

সরকারের সদিচ্ছাই পারে প্রতিবন্ধীদের ভিক্ষাভিত্তির পথ থেকে মুক্ত করতে

মোঃ কাউছার আহমেদ ॥ সাংবিধানিকভাবে বাংলাদেশের প্রতিটি নাগরিকের জাতি, ধর্ম, বর্ণ, নির্বিশেষে সমসুযোগ ও সমঅধিকার রয়েছে এবং জাতীয় উন্নয়নে দেশের সকল নাগরিকের সমঅংশীদারিত্বের সুযোগ সৃষ্টি একটি রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব। এক্ষেত্রে প্রতিবন্ধী নাগরিকদেরও রয়েছে উন্নয়নে ও অংশগ্রহণের পূর্ণ অধিকার। প্রতিটি প্রতিবন্ধী নাগরিক প্রথমে নাগরিক, পরে প্রতিবন্ধী কিন্তু আমাদের দেশের সামগ্রীক অবস্থা পর্যালোচনা করে দেখা যায় যে, প্রতিবন্ধী নাগরিকদের প্রতি আমাদের অজ্ঞতা, ভয় ও কুসংস্কারাচ্ছন্ন মনোভাবের কারণে পারিবারিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড তথা দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে তাদের অংশগ্রহণ ও অংশীদারিত্বের অধিকার খুবই নগন্য।
এ কথা বিবেচনায় রেখে মানব সম্প্রদায়ের মধ্যে সব চেয়ে অবহেলিত ও নিপিড়িত মানুষ প্রতিবন্ধীদের জীবন মান উন্নয়নে ২০০৫ সালে মাসে ১০০/- টাকা করে বয়স্ক ভাতা চালু করে তৎকালীন বিএনপি সরকার। পরবর্তীতে তা বাড়িয়ে ২০০/- করা হয়। বর্তমান আওয়ামলীগ সরকার তা বাড়িয়ে ৩০০/- টাকায় উন্নতি করেছে। এদিকে আওয়ামীলীগ সরকার প্রতিবন্ধীদের জন্যও ভাতা চালু করে। বর্তমানে প্রত্যেককে মাসে ৩৫০/- করে দেয়া হচ্ছে। যা প্রয়োজনের তুলনায় নগন্য।
হবিগঞ্জ পৌর এলাকার শায়েস্তানগরের বাসিন্দা দৃষ্টি প্রতিবন্ধী লিটন মিয়া জানান, “আমার বয়স যখন ১০/১২ বছর তখন আমার টাইফেড জ্বর হয়” “অর্থাভাবে উন্নত চিকিৎসা করতে না পারায় আমার দুটি চোখ নষ্ট হয়ে যায়, আমি পরিবারের বড় সন্তান বিদায়ে পরিবার চালানো দায়িত্ব পরে আমার উপর” দিশেহারী হয়ে বেচে থাকায় তাগিদে খুঁজে নেই ভিক্ষাভিত্তির পথ”। তিনি বলেন “সরকার আমাকে প্রতি মাসে ৩৫০/- টাকা করে ভাতা প্রদান করছে। কিন্তু তা প্রয়োজনের তুলনা তা খুবই কম”। ভিক্ষুক লিটন মিয়া আপেক্ষের সাথে বলেন, একমাত্র সরকারের সদিচ্ছায় আমাদের ভিক্ষুকের পথ থেকে মুক্তি দিতে পারে। সরকার যদি আমাদের ভাতা বাড়িয়ে এবং কাজের সুযোগ সৃষ্টি করে দিতে পারে তা আমরা রাস্তায় রাস্তায় ভিক্ষুক হয়ে ঘুরতে হবে না।
এদিকে চলতি অর্থ বছরের জুন মাস থেকে সারা দেশের ন্যায় হবিগঞ্জ জেলার ৮টি উপজেলা ও ৬টি পৌরসভায় চলছে প্রতিবন্ধী সনাক্তকরণ ও নিবন্ধনের কাজ। ২১ লাখ জনবসতির এই জেলার ৭৭টি ইউনিয়ন ও ৬টি পৌরসভার প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী এ পর্যন্ত ২৮ হাজার ৪শ জন প্রতিবন্ধী সনাক্ত করা হয়েছে। মাধবপুর উপজেলার সনাক্তকরণ কাজ এখনো চলছে। কোন কোন উপজেলায় সনাক্তকৃত প্রতিবন্ধীদের মেডিক্যাল চেকআপ এখনো সম্পন্ন হয়নি। মেডিকেল চেকআপের পর জেলার প্রতিবন্ধীদের সঠিক সংখ্যা নির্ণয় হবে।
প্রতিবন্ধীদের কিভাবে নির্বাচন করা হয়, এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে হবিগঞ্জ জেলা সমাজসেবা অফিসার তারেকুল কাইয়ূম ভূইয়া বলেন, হবিগঞ্জ আমরা ৮টি উপজেলায় সফলতার সাথে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসুচি হিসেবে প্রতিবন্ধীদের নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। প্রতিটি বাড়ী বাড়ী গিয়ে প্রতিবন্ধী খুজছি। তিনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা, বয়স্ক ভাতা, বিধবা, স্বামী পরিত্যক্তা দুঃস্থ মহিলা ভাতা, অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতা, হরিজন ভাতাসহ আর্থসামজিক নিরাপত্তা আয়ণে কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের ইউনিটের ৭২ জন সমাজকর্মী প্রতিবন্ধীদের নিয়ে নিরসল পরিশ্রম করে যাচ্ছে বলে তিনি এ প্রতিবেদককে জানান।
উপজলো ওয়ারী প্রতিবন্ধীদের তথ্য-
নবীগঞ্জ উপজেলা ঃ চলতি অর্থ বছরের প্রাথমিক প্রতিবন্ধী সনাক্তকরণ তথ্য অনুসারে নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় প্রাথমিক প্রতিবন্ধীর সংখ্যা ৪২৭১ জন। তন্মধ্যে নবীগঞ্জ পৌরসভায় ২০২ জন, বড়ভাকৈর পশ্চিম ইউনিয়নে ১৯১, পূর্ব ইউনিয়নে ১৬৮, দীগলবাগ ইউনিয়নে ২৭২, আউশকান্দি ইউনিয়নে ৩৮৮, কুর্শি ইউনিয়নে ৩০৬, করগাও ইউনিয়নে ৪৯৪, নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নে ২৯৭, গজনাইপুর ইউনিয়নে ৩৮৪, দেবপাড়া ইউনিয়নে ২৮৬, বাউসা ইউনিয়নে ৩২০, কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নে ২৩২, পানিউন্দা ইউনিয়নে ২৫৪ মোট ৪২১৭ জন।
নবীগঞ্জ উপজলার ঃ ১৩টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতাভোগী হলেন ২৬৮ জন, বয়স্ক ভাতাভোগী ৬০৭৪ জন, বিধবা-স্বামী পরিত্যক্তা/দুঃস্থ মহিলা ভাতা ভোগী ২৫০৫ জন, অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতাভোগী ৭৩০ জন এবং শিক্ষা প্র্রতিবন্ধী ভাতাভোগী ২৬ জন, দলিত হরিজন ভাতাভোগী ৯ জন ও দলিত হরিজন শিক্ষা ভাতাভোগী ৮ জন।
বাহুবল উপজেলা ঃ চলতি অর্থ বছরের প্রাথমিক প্রতিবন্ধী সনাক্তকরণ তথ্য অনুসারে বাহুবল উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে প্রতিবন্ধীর সংখ্যা ২১৩২ জন। তন্মধ্যে স্নানঘাট ইউনিয়নে ২৯২, পুটিজুরি ইউনিয়নে ৩৮১, সাতকাপন ইউনিয়নে ৩১৩, বাহুবল সদর ইউনিয়নে ৩১০, লামাতাশী ইউনিয়নে ২৩৫, মিরপুর ইউনিয়নে ১৯৬ ও ভাদেশ্বর ইউনিয়নে ৪০৫ জন মোট ২১৩২।
বাহুবল উপজলার ৭টি ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতাভোগী হলেন ১০৯ জন, বয়স্ক ভাতাভোগী ১৬৭২ জন, বিধবা-স্বামী পরিত্যক্তা/দুঃস্থ মহিলা ভাতা ভোগী ৯৯৭ জন, অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতাভোগী ৩৬৬ জন, শিক্ষা প্রতিবন্ধী ভাতাভোগী ১৯ জন, দলিত হরিজন ভাতাভোগী ২২ জন ও দলিত হরিজন শিক্ষা ভাতাভোগী ১৪ জন।
বানিয়াচং উপজলা ঃ চলতি অর্থ বছরের প্রাথমিক প্রতিবন্ধী সনাক্তকরণ তথ্য অনুসারে বানিয়াচং উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নে প্রাথমিক প্রতিবন্ধীর সংখ্যা ৪২৭১ জন। তন্মধ্যে বানিয়াচং উত্তর-পূর্ব ইউনিয়নে ৩০৬ জন, বানিয়াচং উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়নে ৩২২ জন, বানিয়াচং দক্ষিণ-পূর্ব ইউনিয়নে ৪৩৫জন, বানিয়াচং দক্ষিণ-পশ্চিম ইউনিয়নে ২৯৮জন, দৌলতপুর ইউনিয়নে ২৯৬ জন, কাগাপাশা ইউনিয়নে ২৪০জন, বড়উড়ি ইউনিয়নে ৪৩২জন, খাগাউড়া ইউনিয়নে ২০৫জন, পুকড়া ইউনিয়নে ৩৭২জন, সুবিদপুর ইউনিয়নে ১৭৭ জন, মক্রমপুর ইউনিয়নে ২৯২জন, সুজাতপুর ইউনিয়নে ৩৫০জন, মন্দরী ইউনিয়নে ২৫৩জন, মুরাদপুর ইউনিয়নে ২৮৯ ও পইলারকান্দি ইউনিয়নে ৩৯৯জন।
বানিয়াচং উপজলার ১৫টি ইউনিয়নে মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতাভোগী হলেন ১৮১ জন, বয়স্ক ভাতাভোগী ৬০২১ জন, বিধবা-স্বামী পরিত্যক্তা/দুঃস্থ মহিলা ভাতা ভোগী ১২৪০৫ জন, অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতাভোগী ৬২৪ জন, শিক্ষা প্রতিবন্ধী ভাতাভোগী ২২ জন, দলিত হরিজন ভাতাভোগী ১৭ জন ও দলিত হরিজন শিক্ষা ভাতাভোগী ৫ জন।
আজমিরীগঞ্জ উপজেলা ঃ চলতি অর্থ বছরের প্রাথমিক প্রতিবন্ধী সনাক্তকরণ তথ্য অনুসারে আজমিরীগঞ্জ উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় প্রাথমিক প্রতিবন্ধীর সংখ্যা ১৮০০ জন। তার মধ্যে পৌরসভায় ২৯৮জন, আজমিরীগঞ্জ সদর ইউনিয়নে ১৮৮জন, বদলপুর ইউনিয়নে ৩৩৬জন, জলসুখা ইউনিয়নে ২৫০জন, কাকাইলছেও ইউনিয়নে ৩৪২জন ও  শিবপাশা ইউনিয়নে ৩৮৫ জন। মোট ১৮০০জন।
আজমিরীগঞ্জ উপজলার ৫টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতাভোগী হলেন ১০১ জন, বয়স্ক ভাতাভোগী ৩৮৯৩ জন, বিধবা-স্বামী পরিত্যক্তা/দুঃস্থ মহিলা ভাতা ভোগী ১২০৮ জন, অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতাভোগী ২৩১ জন, শিক্ষা প্রতিবন্ধী ভাতাভোগী ২১ জন, দলিত হরিজন ভাতাভোগী ২১ জন ও দলিত হরিজন শিক্ষা ভাতাভোগী ৪ জন।
হবিগঞ্জ সদর উপজেলা ঃ চলতি অর্থ বছরের প্রাথমিক প্রতিবন্ধী সনাক্তকরণ তথ্য অনুসারে অনুযায়ী হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় প্রাথমিক প্রতিবন্ধীর সংখ্যা ৩৭৮৫ জন। এ উপজেলায় বতর্মানেও সনাক্তকরণ কাজ চলছে।
হবিগঞ্জ সদর উপজলার ১০টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভায় মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতাভোগী হলেন ১৯৬ জন, বয়স্ক ভাতাভোগী ৫২৯৩ জন, বিধবা-স্বামী পরিত্যক্তা/দুঃস্থ মহিলা ভাতা ভোগী ১৬৭৯ জন, অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতাভোগী ৪১ জন, দলিত হরিজন ভাতাভোগী ৩০০ জন ও দলিত হরিজন শিক্ষা ভাতাভোগী ১২৫ জন।
লাখাই উপজেলা ঃ চলতি অর্থ বছরের প্রাথমিক প্রতিবন্ধী সনাক্তকরণ তথ্য অনুসারে লাখাই উপজেলার ৩টি ইউনিয়ন প্রতিবন্ধী সনাক্তকরণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। অন্যন্যাটিতে চলমান রয়েছে। তবে ৩ ইউনিয়নে প্রতিবন্ধীর সংখ্যা ৬৬২ জন। এখানে ৪ বছর যাবত অফিসসহকারী নাই। প্রধান কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করছে ভারপ্রাপ্ত  কর্মকর্তা। মাঠকর্মীও আছে মাত্র ১।
লাখাই উপজলায়  মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতাভোগী হলেন ৭৪ জন, বয়স্ক ভাতাভোগী ২৫৫৫ জন, বিধবা-স্বামী পরিত্যক্তা/দুঃস্থ মহিলা ভাতা ভোগী ৯৯৬৫ জন, অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতাভোগী ২৭০ জন, প্রতিবন্ধী শিক্ষা উপবৃত্তি ভাতা ১১ জন, দলিত হরিজন ভাতাভোগী ১৮ জন ও দলিত হরিজন শিক্ষা ভাতাভোগী ২ জন।
চুনারুঘাট উপজেলা ঃ চলতি অর্থ বছরের পাইলট প্রজেন্ট হিসেবে জেলার সবার আগেই প্রাথমিক প্রতিবন্ধী সনাক্তরণ কাজ চুনারুঘাটে সম্পন্ন করা হয়। উক্ত তালিকা অনুযায়ী চুনারুঘাট উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় প্রাথমিক প্রতিবন্ধীর সংখ্যা ৪৮১০ জন। তার মধ্যে চুনারুঘাট পৌর সভায় ৩০৯জন, গাজীপুর ইউনিয়নে ৫২৭, আহমদাবাদ ইউনিয়নে ৪৭৪জন, দেওগাছ ইউনিয়নে ৪০০ জন, পাইকপাড়া ইউনিয়নে ৪২২জন, শানখলা ইউনিয়নে ৩৮১, চুনারুঘাট সদর ইউনিয়নে ৩৫০জন, উবাহাটা ইউনিয়নে ৪০০জন, সাটিয়াজুরী ইউনিয়নে ৪১৩জন, রানীগাও ইউনিয়নে ৫৬৩জন ও মিরাশী ইউনিয়নে ৫৬৮ জন। মোট ৪৮১০ জন।
মাধবপুর উপজেলা ঃ মাধবপুর উপজেলায় প্রতিবন্ধী সনাক্তকরণ কাজ চলমান রয়েছে তবে এ উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতাভোগী হলেন ৩৫০ জন, বয়স্ক ভাতাভোগী ৬৪৩৩ জন, বিধবা-স্বামী পরিত্যক্তা/দুঃস্থ মহিলা ভাতা ভোগী ২১৫৩ জন, অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতাভোগী ৬৯৪ জন, প্রতিবন্ধী শিক্ষা উপবৃত্তি ভাতা ৩৮ জন, দলিত হরিজন ভাতাভোগী ৬০ জন ও দলিত হরিজন শিক্ষা ভাতাভোগী ১৪ জন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com