শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৬:১৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজ মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস নবীগঞ্জে সিএনজি-মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে গৃহবধূ নিহত ॥ ৩ জন আহত শায়েস্তাগঞ্জে ও মিরপুরে ট্রেন থেকে আবারও তেল চুরির হিড়িক ভাষা শহীদদের প্রতি হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের শ্রদ্ধা নিবেদন মুজিববর্ষ উপলক্ষে সম্প্রাসারিত বিট পুলিশিংয়ের আলোচনা সভা ॥ অপরাধ দমনে আন্তরিক ভাবে কাজ করছে পুলিশ-পুলিশ সুপার লন্ডনে দীঘলবাক ইউনিয়ন ডেভেলাপম্যান্ট এসোসিয়েশন ইউকের সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত নাতিরাবাদকে পাঁচ উইকেটে হারিয়ে নাইট ক্রিকেট চ্যাম্পিয়ন অনন্তপুর আজমিরীগঞ্জে চুলার আগুনে ঝলসে গেছে দ্বিতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থীর শরীর মরণব্যাধি করোনা ভাইরাস সম্পর্কে হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম এর সচেতনতামূলক সেমিনার ও মাস্ক বিতরণ শহীদ মিনারে হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের শ্রদ্ধা নিবেদন
বানিয়াচংয়ের নদীগুলোতে পলি জমে ভরাট হয়ে যাচ্ছে ॥ দ্রুত পুনঃ খননের ব্যবস্থা না নিলে ভয়াবহ বিপর্যের আশংকা

বানিয়াচংয়ের নদীগুলোতে পলি জমে ভরাট হয়ে যাচ্ছে ॥ দ্রুত পুনঃ খননের ব্যবস্থা না নিলে ভয়াবহ বিপর্যের আশংকা

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে ॥ হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ উপজেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত ঝিংড়ি, শাখা কুশিয়ারা, শুটকিসহ ৭ টি শাখা নদী পানি শুণ্য হয়ে পড়েছে। পাল্টে গেছে নদীর চিত্র। নাব্যতা হারিয়ে পরিণত হয়েছে এখন কেবলই মরা খালে। মাইলের পর মাইল জুড়ে এসব নদীর বুক জুড়ে উড়ছে ধু-ধু বালু। যানবাহনসহ লোকজন হেঁটে এপার-ওপার হতে পারছে। আবার কোথাও কোথাও নদীর তলদেশ ভরে সৃষ্টি হয়েছে ফসলের ক্ষেত। প্রতি বর্ষা মৌসুমে উজান থেকে পানির ঢলের সাথে নেমে আসা পলি জমে নদীগুলো ক্রমান্বয়ে ভরাট হয়ে গেছে। নদীর তলদেশে ২ থেকে ৩ ফুট পানি রয়েছে। সহসা বৃষ্টিপাত না হলে এ পানিটুকুও শুকিয়ে যাবে। সময়মতো নদীগুলো ড্রেজিং ও খনন সংস্কারের অভাবেই নদীগুলো মরে গেছে বলে নদী তীরবর্তী বাসিন্দারা জানিয়েছেন। নদী খননের প্রয়োজনীয় উদ্যোগ না নেয়ায় নদী তীরবর্তী বিস্তৃৃত এলাকার বোরো জমি চাষাবাদের অনুপযোগি হয়ে পড়ছে। উপজেলার ৫০ হাজার হেক্টর রোরো জমির মধ্যে প্রায় অর্ধেক জমিই সেচ সংকটের সম্মুখীন। ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে এলাকার হাজার হাজার কৃষক পরিবার। বর্ষাকাল ছাড়া নদী পথে আর নৌ-পরিবহন চলাচল করতে পারছে না। এর বিরূপ প্রভাব পড়ে ধস নেমেছে নৌঘাট কেন্দ্রিক গড়ে ওঠা বাজারগুলোর ব্যবসা-বাণিজ্যের। শুষ্ক মৌসুমে নদী অববাহিকা এলাকার কয়েক সহস্রাধিক জেলে বেকার হয়ে পড়েছে। নদীতে পানি বা মাছ মিলছে না। জেলেরা পেশা বদল করে অন্য পেশায় চলে যাচ্ছে। এঅঞ্চলের প্রাকৃতিক সম্পদও উজার হতে চলেছে। ইতিমধ্যে প্রায় ৩২ প্রজাতির মিঠা পানির মাছ হারিয়ে গেছে। এককালে এসব নদীতে শীত,বর্ষা নির্বিশেষে সব মৌসুমে অথৈ পানি থাকত। চলাচল করত ট্রলার, ইঞ্জিন নৌকা ও রঙ-বেরঙের পালতোলা নৌকা। জেলা শহরের সাথে যোগাযোগ ও পণ্য আমদানি-রপ্তানির একমাত্র জলপথ। হাজার হাজার কৃষকের মালামালের বাহন ছিল এসব শাখা নদী। সেই সঙ্গে এলাকার কয়েক লাখ মানুষের আর্থিক স্বচ্ছলতার সহায়ক ছিল ওই সব নদী। কিন্তু বর্তমানে কর্তৃপক্ষের চরম অবহেলা ও উদাসীনতার কারণে নদীগুলো সেই চিত্র কল্প কাহিনীতে পরিণত হয়েছে। সরজমিন ঘুরে ও নদী তীরবর্তী বাসিন্দা সূত্রে জানা গেছে,বানিয়াচং উপজেলা দিয়ে  প্রবাহিত শুটকি নদীর প্রায় ৩০ কিলোমিটার এলাকা মৃত। এ নদীর কোথাও কোথাও ২-৩ ফুট পানি। যানবাহনসহ হেঁটে পারাপার হচ্ছে এলাকার লোকজন। প্রায় ৪০ কিলোমিটার দীর্ঘ রতœা নদীর বিভিন্ন স্থানে ভেড়ামোহনা ইয়ারা, ছিনাই ও বছিরা নাম ধারণ করে কালনী নদীতে পতিত হয়েছে। এর উৎপত্তি খোয়াই ও করাঙ্গী নদী থেকে। এ গুরুত্বপূর্ণ নদীটি একেবারে মুমূর্ষু হয়ে পড়েছে। প্রায় ৬০ কিলোমিটার দীর্ঘ শাখা কুশিয়ারা নদী মরা খালে পরিণত হয়েছে। মাইলের পর মাইল জুড়ে উড়ছে ধুধু বালু। আজমিরীগঞ্জ উপজেলা দিয়ে প্রবাহিত ঝিংড়ি নদী ৭৪ সালে মাটি কাটার মাধ্যমে সংস্কার হয়েছিল। এর পর দীর্ঘ ৪০ বছর পেরিয়ে গেলেও আর হাত লাগেনি। রতœা ও কুশিয়ারা নদীর সাথে সংযুক্ত এ নদীর ২০ কিলোমিটারের মধ্যে প্রায় অর্ধেকই পানি শূন্য। এর বুকে আবাদ হচ্ছে বোরো ফসল ও বিভিন্ন প্রকার রবিশস্য। পাল্টে গেছে নদীর চিত্র। পানির অভাবে সেচ ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ে কৃষিতে নেমে এসেছে ধস। দ্রুত এসব নদীগুলো পুনঃ খনন না করলে কৃষক,কৃষি ও হাওর পাড়ের লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবনে চরম দূর্ভোগ নেমে আসবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com