মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৭:২৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
করোনা ভাইরাস ॥ চীন ফেরত শিক্ষার্থী নিয়ে হবিগঞ্জে স্বাস্থ্য বিভাগের লুকোচুরি চাঁদাবাজির কারণে থমকে গেছে গুঙ্গিয়াজুরী হাওরে ৪০ হাজার মন ধান উৎপাদন ্॥ কৃষকদের ৪ কোটি টাকা ক্ষতির আশংকা ৯ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে জ্বিনের বাদশা ! ॥ সর্বস্ব খুইয়ে ওই ব্যক্তি পাগল প্রায় ॥ আতঙ্ক গ্রস্থ পরিবার বহুলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন এমপি আবু জাহির শহরের বদরুন্নেছা (প্রাঃ) হাসপাতালের মালিক দাবিদার বদরুন্নেছার বিরুদ্ধে এন্তার অভিযোগ নবীগঞ্জে স্বাস্থ্য সহকারী ও স্বাস্থ্য পরিদর্শক এসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় দাবী আদায়ের লক্ষ্যে হাম-রুবেলা ক্যাম্পেইনের প্রশিক্ষন বর্জন হবিগঞ্জ শহরে কিশোরকে ছুরিকাঘাত করেছে যুবতী কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নে গণফোরামের ৫ নং পুরানগাঁও ওয়ার্ড কমিটি গঠিত বাহুবলে জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান ॥ অমর একুশে বইমেলা মহান ভাষা আন্দোলনের স্মৃতিকে জাগ্রত রাখছে শায়েস্তাগঞ্জ জিয়াখাল রেল ব্রীজটি হুমকির মুখে
নবীগঞ্জ নিষিদ্ধ গাইড বইয়ে সয়লাব

নবীগঞ্জ নিষিদ্ধ গাইড বইয়ে সয়লাব

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জে নিষিদ্ধ গাইড বইয়ে সয়লাব। শুধু লাইব্রেরিতে নয়, বিভিন্ন প্রাইমারী স্কুলে ও বিক্রি হচ্ছে নিষিদ্ধ গাইড ও নোটবই। কিন্তু এর বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা ও নজর নেই প্রশাসনের। ফলে লাইব্রেরি ব্যবসায়ীরা নির্বিঘেœ ও স্বাচ্ছেন্দে নিষিদ্ধ গাইড বইয়ের ব্যবসা করে যাচ্ছেন। সরকারের সৃজনশীল প্রশ্ন পদ্ধতি চালু করার মূল লক্ষ্য ছিল শিক্ষার মানোন্নয়ন করা।
সরেজমিনে নবীগঞ্জ শহরের বিভিন্ন লাইব্রেরি ঘুরে দেখা যায়, লেকচার, জুপিটার, পাঞ্জেরী, অনুপম, গ্যালাক্সি, নিউ পপি, নিউ স্টার, মেগদুত, মিশন, কম্পিটার, স্টার ও নেপচুনসহ বিভিন্ন প্রকাশনীর নোট ও গাইড বই লাইব্রেরিগুলোতে স্তরে স্তরে সাজিয়ে রাখা হয়েছে। প্রকাশ্যে চলছে নিষিদ্ধ বইয়ের রমরমা ব্যবসা। গাইড বই কিনতে আসা শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের সাথে আলাপ করে জানা যায়- বিভিন্ন স্কুল থেকে শিক্ষার্থীদের এসব গাইড কিনতে চাপ দেয়া হচ্ছে। নির্দিষ্ট প্রকাশনীর গাইড বই না কিনলে স্কুলে শিক্ষার্থীদের মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করা হয়। অনুসন্ধানে জানা যায়, বাজার থেকে কম দামে গাইড বই কিনে নিয়ে গ্রামের বিভিন্ন প্রাইমারী স্কুলে বেশি দামে বিক্রি করেন এক শ্রেণির শিক্ষক। এসব বিষয়ে প্রশাসন নীরব ভূমিকা পালন করছে। এতে শিক্ষার মান নিম্নমুখি হওয়ার আশংকা করছেন সচেতন মহল।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ শহরের এক লাইব্রেরি ব্যাবসায়ী বলেন, “ভাই আমাদের কিছু করার নাই, ঢাকা কারখানায় বই তৈরি করতাছে আমরা কিনে এনে বিক্রি করি। যদি ঢাকা বন্ধ করা হতো তাহলে আর আমরাও বন্ধ থাকতাম।”
লাইব্রেরিতে ও বিভিন্ন প্রাইমারী স্কুলে গাইড ও নোট বিক্রির ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাকের সাথে ফোন করে প্রতিবেদকের পরিচয় দিয়ে প্রশ্নটি করার পর তিনি গাড়িতে আছেন বলে ফোন কেটে দেন। পরে আর ফোন রিসিভ করেননি।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নজরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “ইউএনও স্যারের সাথে আলাপ করে এ বিষয়ে একটা ব্যবস্থা গ্রহন করব”।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com