মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:৫৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
লবন নিয়ে গুজব ॥ মুদির দোকানে ক্রেতাদের ভীড় বাহুবল উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতির ২ মাসের কারাদন্ড জেলা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় আহমদ হোসেন ॥ আমাদের যাতে রাজপথে যেতে না হয় সে জন্য মিলেমিলে কাজ করতে হবে কুলাঙ্গার পুত্রের কান্ড ! নবীগঞ্জে প্রতি কেজি পেয়াজ ৫৫-৬০ টাকার বেশি বিক্রি করলেই ১ লাখ টাকা জরিমানা-ইউএনও নবীগঞ্জে ৪ মাদকসেবী আটক নবীগঞ্জের তরুণীকে অপহরণ করে ধর্ষণের চেষ্টায় গ্রেপ্তার ২ জীবনমৃত্যুর সন্ধিক্ষণে ট্রেন দুর্ঘটনায় আহত সোহেল ॥ চিকিৎসার ব্যয়ে দিশেহারা পরিবার বাহুবলে ৩শ বস্তা সরকারী চাল জব্দ ॥ ১ জন আটক মাদক স¤্র্রাট জুয়েল নিষিদ্ধ অফিসার চয়েজসহ গ্রেপ্তার
মানবতাবিরোধী অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় সৈয়দ কায়সারের ফাঁসি

মানবতাবিরোধী অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় সৈয়দ কায়সারের ফাঁসি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জাতীয় পার্টির সাবেক নেতা সাবেক প্রতিমন্ত্রী সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সারকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে নিজের নামে ‘কায়সার বাহিনী’ গঠন করে যুদ্ধাপরাধ সংঘটনকারী হবিগঞ্জ মহকুমার এ রাজাকার কমান্ডারের বিরুদ্ধে ১৬টি অভিযোগের মধ্যে হত্যা-গণহত্যা, ধর্ষণ, নির্যাতন, আটক, মুক্তিপণ আদায়, অগ্নিসংযোগ ও লুণ্ঠন এবং ষড়যন্ত্রের ১৪টিই প্রমাণিত হওয়ায় তাকে সর্বোচ্চ এ দণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে।
এই প্রথমবারের মতো অন্য অপরাধের পাশাপাশি ধর্ষণের দায়ে কোনো যুদ্ধাপরাধীকে ফাঁসির দণ্ডাদেশ দিলেন ট্রাইব্যুনাল। কায়সারের বিরুদ্ধে দুই নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়েছিল। সাঁওতাল নারী হীরামনি ও মাজেদা নামের অপর নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ দু’টি প্রমাণিত হয়েছে রায়ে। ওই দুই বীরাঙ্গনা নারী ও ধর্ষণের ফলে বীরাঙ্গনা মায়ের গর্ভে জন্ম নেওয়া যুদ্ধশিশু শামসুন্নাহার ট্রাইব্যুনালে এসে সাক্ষ্যও দেন কায়সারের বিরুদ্ধে।
রায়ে একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে নির্যাতিত বীরাঙ্গনা নারী ও যুদ্ধশিশুদের ক্ষতিপূরণ স্কিম চালুর পাশাপাশি তালিকা করে সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করার জন্য রাষ্ট্রকে উদ্যোগ নিতে বলেছেন ট্রাইব্যুনাল।
গতকাল মঙ্গলবার সকালে এ রায় ঘোষণা করেন চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, বিচারক প্যানেলের সদস্য বিচারপতি মো. মুজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি শাহীনুর ইসলামের সমন্বয়ে গঠিত ৩ সদস্যের ট্রাইব্যুনাল।
কায়সারের বিরুদ্ধে ১৬টি মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছিল। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আইন’১৯৭৩ এর ৩(২)(এ), ৩(২)(সি), ৩(২)(জি), ৩(২)(আই),  ২০ (২) এবং ৪(১) ধারা অনুসারে আনা এসব অভিযোগের মধ্যে ছিল ১৫২ জনকে হত্যা-গণহত্যা, ২ নারীকে ধর্ষণ, ৫ জনকে আটক, অপহরণ, নির্যাতন ও মুক্তিপণ আদায় এবং দুই শতাধিক বাড়ি-ঘরে অগ্নিসংযোগ ও লুণ্ঠনের অভিযোগ।
এগুলোর মধ্যে প্রমাণিত হয়েছে ৪ ও ১৫ নম্বর বাদে সবগুলো অভিযোগ। প্রমাণিত ১৪ অভিযোগের মধ্যে ৭টিতে অর্থাৎ ৩, ৫, ৬, ৮, ১০, ১২ ও ১৬ নম্বর অভিযোগে ফাঁসির আদেশ পেয়েছেন কায়সার। ৪টি অর্থাৎ ১, ৯, ১৩ ও ১৪ নম্বর অভিযোগে তাকে দেওয়া হয়েছে আমৃত্যু কারাদণ্ডাদেশ। এছাড়া ২ নম্বর অভিযোগে ১০ বছর, ৭ নম্বর অভিযোগে ৭ বছর এবং ১১ নম্বর অভিযোগে ৫ বছর মিলিয়ে আরও ২২ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে তাকে। প্রমাণিত না হওয়া ৪ ও ১৫ নম্বর অভিযোগ থেকে খালাস পেয়েছেন কায়সার।
বীরাঙ্গনা-যুদ্ধশিশুদের পুনর্বাসন করতে হবে ঃ
রায়ের পর্যবেক্ষণে একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে নির্যাতিত বীরাঙ্গনা নারী ও যুদ্ধশিশুদের ক্ষতিপূরণ স্কিম চালু করার জন্য রাষ্ট্রকে উদ্যোগ নিতে বলেছেন ট্রাইব্যুনাল। পাশাপাশি তালিকা করে সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করার জন্য বলেন ট্রাইব্যুনাল।
এক্ষেত্রে সরকারের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয়, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়, বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থা এবং এনজিওগুলোকে এ বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য বলেছেন ট্রাইব্যুনাল।
ট্রাইব্যুনাল তাদেরকে আমাদের দেশের জাতীয় বীর বলেও উল্লেখ করেন। কায়সারের মামলায় প্রথমবারের মতো একজন যুদ্ধশিশু ও দুই বীরাঙ্গনাকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দেওয়ার এ দাবি জানিয়েছিলেন প্রসিকিউশন। কায়সারের বিরুদ্ধে যুক্তিতর্ক উপস্থাপনকালে একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে ধর্ষিতা হয়ে বীরাঙ্গনা মায়ের গর্ভে জন্ম নেওয়া বর্তমানে ৪২ বছর বয়সী যুদ্ধশিশু শামসুন্নাহার এবং দুই বীরাঙ্গনা হীরামনি ও মাজেদাকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানানো হয়েছিল। প্রসিকিউশন কায়সারের স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে এ তিনজনকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানিয়েছিলেন। কায়সারের স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি না পাওয়া গেলে রাষ্ট্র তাদেরকে ক্ষতিপূরণ দেবে বলেও দাবি করেন প্রসিকিউশন।
রায়ের পর্যবেক্ষণে আরও বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে যেসব নারী বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন, তারা আমাদের দেশের জাতীয় বীর। ট্রাইব্যুনাল বলেন, আজ আমাদের সময় এসেছে বীরাঙ্গনাদের রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি দেওয়ার। ট্রাইব্যুনালে এসে সাক্ষ্য দেওয়ায় যুদ্ধশিশু শামসুন্নাহারকে সাহসিকতার জন্য স্যালুট জানান ট্রাইব্যুনাল।
ট্রাইব্যুনাল সকল নির্যাতিত নারী ও বীরাঙ্গনাদেরও স্যালুট জানিয়ে রায়ের পর্যবেক্ষণে বলেন, ১৯৭১ সালে মুক্তিযদ্ধের পরপরই মুক্তিযুদ্ধে নির্যাতিত নারীদের পুর্নবাসনের জন্য উদ্যোগ গ্রহন করেছিলেন বঙ্গবন্ধু সরকার। নিঃসন্দেহ এ উদ্যোগ ইতিবাচক।
এসব জাতীয় বীরদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া উচিত ছিল। যদিও তাদের ত্যাগ এবং অসীম ক্ষতি পূরণযোগ্য নয় তবু ক্ষতিপূরণ এবং পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা উচিত ছিল।
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে বিদ্যমান আইনে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার সুযোগ নেই উল্লেখ করে ট্রাইব্যুনাল বলেন, এতোদিন রাষ্ট্র সমাজ এসব জাতীয় বীরদের বিষয়ে যে নীরবতা এবং অমনোযোগিতা প্রকাশ করেছে এখন সেটা করার আর কোনো সুযোগ নেই।
সাত অভিযোগে ফাঁসি ঃ
প্রমাণিত হওয়া সাতটি অভিযোগে কায়সারকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে।
সেগুলোর মধ্যে প্রমাণিত তৃতীয় অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ২৭ এপ্রিল সন্ধ্যা আনুমানিক ৭টা থেকে সোয়া ৭টার দিকে হবিগঞ্জ জেলার (তৎকালীন মহকুমা) মাধবপুর থানার কৃষ্ণনগর গ্রামের অহিদ হোসেন পাঠান, চেরাগ আলী, জনাব আলী ও মধু সুইপারকে হত্যা এবং তাদের বাড়ি-ঘরে লুটপাট করার পর অগ্নিসংযোগ করে সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী।
প্রমাণিত পঞ্চম অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ২৯ এপ্রিল বিকেল আনুমানিক সাড়ে ৩টা থেকে ৪টা এবং সন্ধ্যার পর যেকোনো সময় হবিগঞ্জ জেলার (তৎকালীন মহকুমা) সদর থানার পুনারবাজার পয়েন্ট, সাবেক প্রধান বিচারপতি সৈয়দ এ বি এম মহিউদ্দিনের বাড়ি ও লস্করপুর রেললাইনের পার্শ্ববর্তী এলাকা থেকে ডা. সালেহ উদ্দিন আহমেদ এবং হীরেন্দ্র চন্দ্র রায়কে ধরে নিয়ে আটকের পর নির্যাতন করে হত্যা করে সৈয়দ কায়সার এবং তার বাহিনী।
প্রমাণিত ষষ্ঠ অভিযোগে বলা হয়েছে, সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী ১৯৭১ সালের ৩০ এপ্রিল সকাল আনুমানিক ১০টা সাড়ে ১০টা থেকে বিকেল ৪টা সাড়ে চারটার মধ্যে হবিগঞ্জ জেলা (তৎকালীন মহকুমা) সদরের এনএনএ মোস্তফা আলীর বাড়িসহ ৪০/৫০টি বাড়ি-ঘর ও দোকানপাটে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করে।
প্রমাণিত অষ্টম অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ১৫ মে সকাল আনুমানিক ১০টা/সোয়া ১০টা থেকে বেলা একটা/দেড়টা পর্যন্ত হবিগঞ্জ জেলার (তৎকালীন মহকুমা) মাধবপুরের লোহাইদ এলাকার আব্দুল আজিজ, আব্দুল গফুর, জমির উদ্দিন, আজিম উদ্দিন, এতিমুনেছা, নূর আলী চৌধুরী, আলম চাঁনবিবি ও আব্দুল আলীকে হত্যা করে সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী। এদিন আকরাম আলী চৌধুরী (বর্তমানে মৃত) নামে একজনকে জখমও করেন সৈয়দ কায়সার।
প্রমাণিত দশম অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ১৬ জুন বেলা আনুমানিক দুইটা/আড়াইটার দিকে হবিগঞ্জ জেলার (তৎকালীন মহকুমা) সদর, মোকাম বাড়ি, শায়েস্তাগঞ্জ থানার আরঅ্যান্ডএইচ ডাকবাংলো এবং মাধবপুর থানার শাহাজীবাজার এলাকার শাহ ফিরোজ আলীকে অপহরণের পর আটক করে নির্যাতন করে হত্যা করে এবং সাবু মিয়াকে অপহরণের পর আটক করে নির্যাতন চালায় সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী।
প্রমাণিত ১২নং অভিযোগে বলা হয়েছে, সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী ১৯৭১ সালের ১৮ আগস্ট দুপুর বেলা হবিগঞ্জ জেলার (তৎকালীন মহকুমা) মাধবপুর থানার বেলাঘর, জগদীশপুর হাইস্কুলে আতাব মিয়া, আইয়ুব মিয়া ও মাজেদা বেগমকে অপহরণ করে আটক করে এবং তাদের বিভিন্ন কাজ করতে বাধ্য করানো হয়। এক পর্যায়ে মাজেদাকে ধর্ষণ করা হয়।
প্রমাণিত ১৬নং অভিযোগে বলা হয়েছে, সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী ১৯৭১ সালের ১৫ নভেম্বর সকাল ৭টা/সাড়ে ৭টা থেকে বিকেল ৩টা/সাড়ে ৩টার মধ্যে ব্রাহ্মণবড়িয়া জেলার (তৎকালীন মহকুমা) ভাটপাড়া (বর্তমান নাসিরনগর) থানার দাউরা, নিশ্চিন্তপুর, গুটমা, বুরুঙ্গা, চিতনা, নূরপুর, ফুলপুর, জেঠাগ্রাম, পাঠানিশা, কুলিতুন্ডা, আন্দ্রাবহ, তিলপাড়া, কমলপুর, গঙ্গানগর, বাঘি, শ্যামপুর, কুয়ারপুর, নোয়াগাঁও, লক্ষীপুর, করগ্রাম গ্রামের ১০৮ জন গ্রামবাসিকে হত্যা করে। এছাড়া এসব গ্রামের আলোকচান বিবি (বর্তমানে মৃত), বাসনা চক্রবর্তী ও ক্ষীরদা চক্রবর্তী তাদের হামলায় আহত হন।
চার অভিযোগে আমৃত্যু কারাদণ্ডাদেশ ঃ
প্রমাণিত হওয়া আরও চারটি অভিযোগে আমৃত্যু কারাদণ্ডাদেশ পেয়েছেন কায়সার। প্রমাণিত প্রথম অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ২৭ এপ্রিল বেলা দেড়টা থেকে বিকেল ৩টার মধ্যে  ব্রাহ্মণবাড়িয়া (তৎকালীন কুমিল্লা মহকুমা) সদরের পুলিশ ফাঁড়ি, ইসলামপুর গ্রামের কাজীবাড়িতে হামলা চালিয়ে শাহজাহান চেয়ারম্যানকে হত্যা, নায়েব আলীকে জখম এবং বাড়িতে লুটপাট করে সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী।
প্রমাণিত নবম অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের  ২৯ মে আনুমানিক বেলা একটা/দেড়টা থেকে বিকেল তিনটা সাড়ে তিনটার মধ্যে হবিগঞ্জ জেলা (তৎকালীন মহকুমা) সদরের শায়েস্তাগঞ্জ খাদ্যগুদাম এবং শায়েস্তাগঞ্জ পুরানা বাজারের রেলব্রিজ এলাকার আব্দুল আজিজ, আব্দুল খালেক, রেজাউল করিম, আব্দুর রহমান, বড়বহুলা এলাকার আব্দুল আলী ওরফে গ্যাদা উল্লাহ, লেঞ্জাপাড়া এলাকার মাজত আলী ও তারা মিয়া চৌধুরীকে আটক করে নির্যাতনের পর হত্যা করে সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী।
প্রমাণিত ১৩নং অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ১৮ আগস্ট সকাল ৯টা/সাড়ে ৯টা থেকে বিকেল ৩টা/সাড়ে ৩টা পর্যন্ত হবিগঞ্জ জেলার (তৎকালীন মহকুমা) চুনারুঘাট চা বাগান এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৪ জন মুক্তিযোদ্ধা মহিবুল্লাহ, আবদুস শহিদ, আকবর আলী, জাহির হোসেনকে অপহরণ করে নিয়ে যায় সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী। অপহৃতদেরকে নরপতিতে আব্দুস শহিদের বাড়ি, রাজেন্দ্র দত্তের বাড়িতে স্থাপিত স্থানীয় শান্তি কমিটির কার্যালয়, কালাপুরের পাকিস্তানি আর্মি ক্যাম্প এবং নলুয়া চা বাগানে ধর্মনাথের বধ্যভূমি এলাকায় আটকে রেখে নির্যাতনের পর হত্যা করে মরদেহ কুয়ার ভেতরে ফেলে দেওয়া হয়।
প্রমাণিত ১৪নং অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর ভোর ৫টা/সাড়ে ৫টা থেকে বেলা ২টা/আড়াইটা পর্যন্ত হবিগঞ্জ জেলার (তৎকালীন মহকুমা) মাধবপুর থানার মৌজপুরের সিরাজ আলীর বাড়ি, জদীশপুর হাইস্কুলের আর্মি ক্যাম্প এবং সোনাই নদীর ব্রিজ এলাকার সিরাজ আলী, ওয়াহেদ আলী, আক্কাস আলী, আব্দুল ছাত্তারকে অপহরণ করে নিয়ে যায় সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী। অপহৃতদের আটকে রেখে নির্যাতনের পর হত্যা করা হয়।
তিন অভিযোগে আরও ২২ বছর ঃ
মৃত্যুদণ্ড ও আমৃত্যু কারাদণ্ডের পাশাপাশি তিনটি প্রমাণিত এ যুদ্ধাপরাধীকে দেওয়া হয়েছে আরও মোট ২২ বছরের কারাদণ্ডাদেশ।
প্রমাণিত দ্বিতীয় অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ২৭ এপ্রিল আনুমানিক বিকেল ৫/৬টার দিকে হবিগঞ্জ জেলার (তৎকালীন মহকুমা) মাধবপুর বাজারের পশ্চিমাংশ ও পার্শ¦বর্তী কাটিয়ারায় লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করে সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী। এতে কামিনী রায়, বিনোদ বিহারী মোদক, শচীন্দ্র রায়, হীরেন্দ্র রায়, রতি বাবু, অহিদ হোসেন পাঠানের দোকানসহ প্রায় ১৫০টি বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ অভিযোগে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে কায়সারকে।
প্রমাণিত সপ্তম অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ১১ মে সকাল আনুমানিক ১০টার দিকে হবিগঞ্জ জেলার (তৎকালীন মহকুমা) চুনারুঘাট থানার চাঁদপুর চা বাগানে হীরামনি নামের এক সাঁওতাল নারীকে ধর্ষণ করে সৈয়দ কায়সারের বাহিনী। সৈয়দ কায়সার এ সাঁওতাল নারীকে ধর্ষণে সহায়তা করেছিলেন। এ অভিযোগে ৭ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে কায়সারকে।
প্রমাণিত ১১নং অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ২৩ জুন সকাল আনুমানিক সাড়ে ১০টা থেকে ১১টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার (তৎকালীন মহকুমা) হরিপুর থানার নাসিরনগরের গোলাম রউফ মাস্টার ও তার পরিবারের লোকজনদের ওপর নির্যাতন চালায় সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী। এছাড়া গোলাম রউফ মাস্টারকে অপহরণ ও আটকের পর তার ওপর নির্যাতন চালায়। এক পর্যায়ে মুক্তিপণ আদায় করলেও তাকে হত্যা, বাড়িঘরে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। এছাড়া একই দিনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর থানার দয়াল গোবিন্দ রায় ওরফে বাদল কর্মকারের বাড়িতে হামলা চালায় সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী। লুটপাটের পর ওই বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়। এ অভিযোগে ৫ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে কায়সারকে।
প্রমাণিত হয়নি দুই অভিযোগ ঃ
প্রমাণিত না হওয়া চতুর্থ অভিযোগে বলা হয়েছে, সৈয়দ কায়সার ও তার বাহিনী ১৯৭১ সালের ২৮ এপ্রিল সকাল আনুমানিক ১০টা থেকে বেলা আড়াইটার মধ্যে হবিগঞ্জ জেলার (তৎকালীন মহকুমা) মাধবপুর থানার মাধবপুর বাজারের উত্তর পূর্ব অংশে, উত্তর মাধবপুর, সাদত বাড়িতে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করে। এ সময় তারা পূর্ব মাধবপুরের আব্দুস সাত্তার, লালু মিয়া ও বরকত আলীকে হত্যা এবং কদর আলীকে জখম করে।
প্রমাণিত না হওয়া ১৫নং অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের অক্টোবর মাসের মাঝামাঝি যেকোনো একদিন বিকেল ৫টার দিকে হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর থানার শাহাপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মো. নাজিম উদ্দিনের বাড়ি থেকে নাজিম উদ্দিনকে অপহরণের পর সৈয়দ কায়সারের গ্রাম নোয়াপাড়ার বাড়ি, শাহাজীবাজার বিদ্যুৎ কেন্দ্রে স্থাপিত পাকিস্তানি সেনাদের নির্যাতন কেন্দ্র এবং শালবন রঘুনন্দ পাহাড় এলাকায় আটকে রেখে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়। এ দুই অভিযোগ থেকে খালাস পেয়েছেন কায়সার।
গতকাল মঙ্গলবার বেলা এগারোটা ৫ মিনিট থেকে শুরু করে বারটা ১২ মিনিট পর্যন্ত কায়সারের মামলার রায় ঘোষণা করা হয়।
১৬৬১ প্যারার ৪৮৪ পৃষ্ঠার রায়ের সারাংশ পাঠ করেন ট্রাইব্যুনাল চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান।
এর আগে বেলা এগারটা ৩ মিনিটে ট্রাইব্যুনালে এসে এজলাসকক্ষে আসন নেন বিচারপতিরা। শুরুতে সংক্ষিপ্ত ভূমিকা বক্তব্য দেন চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান।
বেলা দশটা ৫৭ মিনিটে ট্রাইব্যুনালের আসামির কাঠগড়ায় তোলা হয় কায়সারকে। সকাল পৌনে নয়টার দিকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ট্রাইব্যুনালে এনে হাজতখানায় রাখা হয় তাকে। তার পরনে ছিল সাদা রঙের প্যান্ট ও অ্যাশ কালারের ব্লেজার। সকাল সাড়ে আটটার দিকে কায়সারকে কারাগার থেকে বের করে তাকে নিয়ে ট্রাইব্যুনালের উদ্দেশ্যে রওনা হয় একটি প্রিজন ভ্যান। পুরোটা সময় তাকে চিন্তাযুক্ত দেখাচ্ছিল।
রায় ঘোষণা শেষে সাজার পরোয়ানা দিয়ে ফের কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে কায়সারকে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com