শনিবার, ১৭ অগাস্ট ২০১৯, ০৪:৩৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সদর উপজেলার যমুনাবাদে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু চুনারুঘাটে চোরাই সেগুন কাঠ উদ্ধার যুক্তরাজ্যে হবিগঞ্জবাসীর উদ্যোগে ঈদ পূনর্মিলনী “আনন্দ সন্ধ্যা” নবীগঞ্জের বনকাদিপুর আমজাদ ॥ আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আর নেই বঙ্গবন্ধু ছিলেন আধুনিক বাংলার স্বপ্নদ্রষ্টা ॥ এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জে বিষাক্ত সাপের কামড়ে গৃহবধু আহত সীমেরগাঁও গ্রামে সংঘর্ষে টেটাবিদ্ধ ২ জনসহ আহত ১০ সৌদি আরবের জেদ্দা কনস্যুলেট এর উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালন ॥ বিশেষ অতিথি হিসাবে মন্ত্রী মাহবুব আলীর যোগদান মাধবপুরে সাজাপ্রাপ্ত দুই আসামী গ্রেপ্তার নবীগঞ্জ উপজেলা ও পৌর জাতীয় পার্টির ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্টিত
মালয়েশিয়ায় বন্দি জীবন কাটাচ্ছে নবীগঞ্জের কয়েক যুবক ॥ পরিবারে হাতাশা

মালয়েশিয়ায় বন্দি জীবন কাটাচ্ছে নবীগঞ্জের কয়েক যুবক ॥ পরিবারে হাতাশা

এটিএম সালাম, নবীগঞ্জ থকে ॥ নবীগঞ্জের কয়েক যুবক দালালের প্রলোভনে পড়ে অবৈধভাবে মালয়েশিয়া গিয়ে চরম বিপাকে পড়েছে। মালয়েশিয়া পৌছার পর সেখানে তারা পণ্যের মত বিক্রি হতে হচ্ছে। কেউ কেউ টাকা দিয়ে জিম্মিদশা থেকে মুক্তি পেলেও কাজ জুটছেনা। এতে করে দেশে থাকা আত্মীয়স্বজনরা দেশে ভূ-সম্পদ বিক্রি করে দালালকে দিতে হচ্ছে পুনরায় টাকা। এরপরও বিদেশগাশীদের ভবিষ্যত অনিশ্চিত। এতে করে তাদের পরিবার হাতামায় নিমজ্জিত হয়েছে। ভুক্তভোগী পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চৌশতপুর গ্রামের রেজাক মিয়ার ছেলে আদম ব্যবসায়ী আবুল মিয়া দীর্ঘদিন ধরে ইরান, মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশে অবৈধভাবে নৌ-পথে লোক পাঠিয়ে আসছেন। সেই সুবাধে নবীগঞ্জ পৌর এলাকার রাজনগর গ্রামের মৃত তাজ উল্লার ছেলে ফল ব্যবসায়ী মর্তুজ আলী, করগাঁও ইউনিয়নের মিল্লিক গ্রামের মৃত হেকিম আলীর ছেলে রহমত আলীকে প্রায় ৩ মাস পুর্বে ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা কন্ট্রাক্টের মাধ্যমে নৌ পথে জাহাজযোগে মালয়েশিয়া পাঠায়। মর্তুজ আলী ও রহমত আলী মালয়েশিয়া পৌছানোর পর সেখানে অবস্থানরত বাংলাদেশী অপর দালালের কাছে বিক্রী করে দেয়া হয়। ওই দালাল তাদেরকে বন্দি করে রাখে। পরে দালাল তাদের বাড়িতে ফোন করে ২লাখ ৪০ হাজার টাকা দাবী করে। টাকা না দেয়া পর্যন্ত তাদেরকে মুক্তি দেয়া হবেনা বলে হুমকি দেয়। কিন্তু এ পরিমাণ টাকা দেয়া দুই পরিবারের পক্ষে সম্ভব নয়। ফলে বন্দিদশা থেকে মুক্তি করতে ওই দুই জনের পরিবার সুদ ও লগ্নি করে টাকা জোগারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এমতাবস্থায় প্রায় ৩ মাস যাবৎ তারা দালালদের বন্দিদশায় রয়েছে। আরও কত দিন থাকতে হবে তা কেউ বলতে পারছেন না। এতে তাদের স্বজনরাও রয়েছেন আতংকে।
একই অবস্থায় রয়েছেন নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চৌশতপুর গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে করিম মিয়া, ওয়াহিদ মিয়ার ছেলে মোশাহিদ মিয়া, গোলাপ মাষ্টারের ছেলে মইনু মিয়া, জমির মিয়ার ছেলে আনসার মিয়াসহ আরো কয়েকজন।
ইতিমধ্যে কেউ কেউ দ্বিগুণ টাকা দিয়ে মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত দালাল এবং নবীগঞ্জের চৌশতপুর গ্রামের দালাল আবুল মিয়াকে দ্বিগুন টাকা দিয়ে বন্দিদশা থেকে মুক্তি পেয়েছেন। তবে এখন পর্যন্ত তাদের ভাগ্যে কোন কাজকর্ম বা সুযোগ সুবিধা জোটেনি। অপর দিকে দালাল আবুল মিয়া অবৈধ পথে ওই লোকদের মালয়েশিয়া পাঠিয়ে সেখানে অবস্থানরত অপর দালালদের হাতে নিজের মুনাফা নিয়ে বিক্রী করে দিব্যি বাড়িতে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। অন্যদিকে মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত দালালদের বন্দিদশায় থেকে মানবেতর জীবন যাপন করার খবরে দেশে অবস্থানরত স্বজনদের কান্নায় বালিশ ভিজছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন বন্দিদশায় থাকা লোকদের স্বজনরা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com