বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:৪৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে ছোট্ট ছোঁয়া দাফন সম্পন্ন ॥ পরিবারে চলছে শোকের মাতম প্রধানমন্ত্রী অবহেলিত মানুষের কাছে স্বাস্থ্য সেবা পৌছে দিচ্ছেন-ডাঃ মুশফিক চৌধুরী নবীগঞ্জে বিভিন্ন স্কুলে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি আদায় বাহুবলে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ডাকাতি ॥ আটক ১ বারাপৈলের জয়নাল মিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করায় প্রতিবাদ সমাবেশ নবীগঞ্জে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বিএনপি নেতা আব্দুল হাই বহিষ্কার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের নিয়ে মোতাচ্ছিরুল ইসলামের মতবিনিময় দক্ষিণ তেঘরিয়া থেকে এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার চান্দপুর ও মির্জাপুরে মাদক ও দাঙ্গা প্রতিরোধে সচেতনতামূলক সভা বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস হবিগঞ্জ জেলা শাখার প্রশিক্ষণ বৈঠক অনুষ্ঠিত
মালয়েশিয়ায় বন্দি জীবন কাটাচ্ছে নবীগঞ্জের কয়েক যুবক ॥ পরিবারে হাতাশা

মালয়েশিয়ায় বন্দি জীবন কাটাচ্ছে নবীগঞ্জের কয়েক যুবক ॥ পরিবারে হাতাশা

এটিএম সালাম, নবীগঞ্জ থকে ॥ নবীগঞ্জের কয়েক যুবক দালালের প্রলোভনে পড়ে অবৈধভাবে মালয়েশিয়া গিয়ে চরম বিপাকে পড়েছে। মালয়েশিয়া পৌছার পর সেখানে তারা পণ্যের মত বিক্রি হতে হচ্ছে। কেউ কেউ টাকা দিয়ে জিম্মিদশা থেকে মুক্তি পেলেও কাজ জুটছেনা। এতে করে দেশে থাকা আত্মীয়স্বজনরা দেশে ভূ-সম্পদ বিক্রি করে দালালকে দিতে হচ্ছে পুনরায় টাকা। এরপরও বিদেশগাশীদের ভবিষ্যত অনিশ্চিত। এতে করে তাদের পরিবার হাতামায় নিমজ্জিত হয়েছে। ভুক্তভোগী পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চৌশতপুর গ্রামের রেজাক মিয়ার ছেলে আদম ব্যবসায়ী আবুল মিয়া দীর্ঘদিন ধরে ইরান, মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশে অবৈধভাবে নৌ-পথে লোক পাঠিয়ে আসছেন। সেই সুবাধে নবীগঞ্জ পৌর এলাকার রাজনগর গ্রামের মৃত তাজ উল্লার ছেলে ফল ব্যবসায়ী মর্তুজ আলী, করগাঁও ইউনিয়নের মিল্লিক গ্রামের মৃত হেকিম আলীর ছেলে রহমত আলীকে প্রায় ৩ মাস পুর্বে ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা কন্ট্রাক্টের মাধ্যমে নৌ পথে জাহাজযোগে মালয়েশিয়া পাঠায়। মর্তুজ আলী ও রহমত আলী মালয়েশিয়া পৌছানোর পর সেখানে অবস্থানরত বাংলাদেশী অপর দালালের কাছে বিক্রী করে দেয়া হয়। ওই দালাল তাদেরকে বন্দি করে রাখে। পরে দালাল তাদের বাড়িতে ফোন করে ২লাখ ৪০ হাজার টাকা দাবী করে। টাকা না দেয়া পর্যন্ত তাদেরকে মুক্তি দেয়া হবেনা বলে হুমকি দেয়। কিন্তু এ পরিমাণ টাকা দেয়া দুই পরিবারের পক্ষে সম্ভব নয়। ফলে বন্দিদশা থেকে মুক্তি করতে ওই দুই জনের পরিবার সুদ ও লগ্নি করে টাকা জোগারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এমতাবস্থায় প্রায় ৩ মাস যাবৎ তারা দালালদের বন্দিদশায় রয়েছে। আরও কত দিন থাকতে হবে তা কেউ বলতে পারছেন না। এতে তাদের স্বজনরাও রয়েছেন আতংকে।
একই অবস্থায় রয়েছেন নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চৌশতপুর গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে করিম মিয়া, ওয়াহিদ মিয়ার ছেলে মোশাহিদ মিয়া, গোলাপ মাষ্টারের ছেলে মইনু মিয়া, জমির মিয়ার ছেলে আনসার মিয়াসহ আরো কয়েকজন।
ইতিমধ্যে কেউ কেউ দ্বিগুণ টাকা দিয়ে মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত দালাল এবং নবীগঞ্জের চৌশতপুর গ্রামের দালাল আবুল মিয়াকে দ্বিগুন টাকা দিয়ে বন্দিদশা থেকে মুক্তি পেয়েছেন। তবে এখন পর্যন্ত তাদের ভাগ্যে কোন কাজকর্ম বা সুযোগ সুবিধা জোটেনি। অপর দিকে দালাল আবুল মিয়া অবৈধ পথে ওই লোকদের মালয়েশিয়া পাঠিয়ে সেখানে অবস্থানরত অপর দালালদের হাতে নিজের মুনাফা নিয়ে বিক্রী করে দিব্যি বাড়িতে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। অন্যদিকে মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত দালালদের বন্দিদশায় থেকে মানবেতর জীবন যাপন করার খবরে দেশে অবস্থানরত স্বজনদের কান্নায় বালিশ ভিজছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন বন্দিদশায় থাকা লোকদের স্বজনরা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com