শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ০১:০৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শায়েস্তাগঞ্জে চাঁন্দের গাড়ির চাপায় নিহত ১ ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের এজিএম সম্পন্ন ॥ সেলিম সিদ্দিকী সভাপতি ও আব্দুল্লাহ সম্পাদক পুন: নির্বাচিত নবীগঞ্জে ভুয়া কাগজ দিয়ে রেজেষ্ট্রি ॥ ২ দলিল লিখক বরখাস্ত ড.রেজা কিবরিয়ার হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে গণফোরামে যোগদান করলেন নবীগঞ্জের সাবেক ছাত্রনেতা আবুল হোসেন জীবন হবিগঞ্জ জেলার সর্বোচ্চ আয়কর পরিশোধকারী আহছান কবীর তানজীম ও সাইদাতুন্নিছাকে ক্রেস্ট ও সম্মাননাপত্র প্রদান যুক্তরাষ্ট্র হবিগঞ্জ জেলা সমিতির কৃতি ছাত্র-ছাত্রীদের স্কলারশিপ এ্যাওয়ার্ড প্রদান নবীগঞ্জ পৌর আইডিয়াল স্কুলে বিদায় অনুষ্ঠান ও অভিভাবক সমাবেশ অনুষ্টিত হবিগঞ্জে বিশ্ব ডায়াবেটিক দিবস পালিত নবীগঞ্জে প্রতিপক্ষের হামলায় এক ব্যক্তি গুরুতর আহত মুজিব বর্ষ’ উদযাপনের লক্ষ্যে মেয়র মোঃ মিজানুর রহমানের মতবিনিময়
নবীগঞ্জের ৭৫ লাখ টাকার ব্রিফকেস রহস্য ॥ মূল হোতা শাহীন আটক

নবীগঞ্জের ৭৫ লাখ টাকার ব্রিফকেস রহস্য ॥ মূল হোতা শাহীন আটক

কিবরিয়া চৌধুরী/মো: আলমগীর মিয়া, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জে ৭৫ল টাকা সহ ব্রিফকেস লুটের ঘটনায় জড়িত মূল হুতা শাহিনকে গতকাল সোমবার জনতা ধরে পুলিশে সোর্পদ করেছে। সকাল সাড়ে ১০টায় দিকে গহরপুর গ্রামবাসী শাহিনকে তার শশুর বাড়িতে ঘুরা ফেরার সময় আটক করে। নবীগঞ্জ থানা পুলিশকে খবর দিলে সেকেন্ড অফিসার এস আই শাহজাহানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে থানায় নিয়ে আসে। থানা হাজতে আটক শাহিন সাংবাদিকদের কাছে ৭৫লাখ টাকার ব্রিফকেস পাওয়ার সত্যতা স্বীকার করেন। এদিকে থানা পুলিশ জানিয়েছে শাহিনকে এব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। মামলার তদন্তের স্বার্থে এখন কিছু বলা যাবেনা। অপরদিকে সকালে শাহিন গ্রেফতারের পর থেকেই ঘটনাটি ভিন্ন খাতে নেওয়ার জন্য তরপর হয়ে উঠে একটি মহল। ওই ঘটনাকে ধামাচাপা দিয়ে পারিবারিক বিরোধ বলে গুজব ছড়ানো হচ্ছে প্রশাসনের কাছে। ওই মহলটির দৌড় ঝাঁপ দেখে সচেতন মহলে প্রশ্ন জেগেছে শাহিনকে নিয়ে তাদের পেটে এতো ব্যথা কেন ?
জানা যায়, গত ১ নভেম্বর শনিবার সন্ধ্যা রাতে হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশের তদন্ত দল সরেজমিনে ঘটনাস্থল নবীগঞ্জ উপজেলার বাউশা গ্রামে গেলে শত শত লোকজন এই ব্রিফকেস লুটের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে স্বাক্ষ্য প্রদান করেন। এ সময় এক সাবেক ছাত্রলীগ নেতার নাম গ্রামবাসী প্রকাশ করে।
উল্লেখ্য যে, নবীগঞ্জে বাউশা ইউনিয়নের গহরপুর গ্রামের রেজ্জাক মিয়ার বাড়ী থেকে ব্রিফকেস ভর্তি ৭৫ লাখ টাকা লুটের ঘটনায় নবীগঞ্জ প্রসাশনের নীরব ভূমিকা পালন করলেও জনতা গতকাল শাহিনকে ধরে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করলেও পুলিশ রহস্যময় ভূমিকা পালন করছে। জনতার দাবী জানিয়েছে শাহিনকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে মূল ঘটনা উদঘাটনের জন্য। গত ১ নভেম্বর সন্ধ্যায় হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশের ওসি মোক্তাদির হোসেন এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে স্বাক্ষ্য গ্রহন করেন।
গতকাল হাজতে আটক শাহিন সাংবাদিকদের কাছে জানায়, প্রায় এক মাস পূর্বে হবিগঞ্জের বুল্লা বাজার এলাকার একটি চা স্টলের কেবিনে নাস্তা করার জন্য প্রবেশ করলে দেখে চেয়ারে একটি ব্রিফকেস পড়ে রয়েছে। আমি নাস্তা শেষ করে ঐ ব্রিফকেসটি হাতে করে নিয়ে চলে যাই হবিগঞ্জ শহরে আমার বোনের বাসায়। খুলে দেখতে পাই শুধু টাকা আর টাকা। গুনে দেখি এতে ৭৫ লাখ টাকা আছে। এখান থেকে আমি ১লাখ টাকা সে খরচ করে ফেলি। আমার বোন কিছু টাকার কথা বললে আমি বোনকে টাকা দিব বলে আশ্বাসও দেই। কিন্তু কি করব কোন দিক নির্দেশনা পাচ্ছিলাম না। পরে ব্রিফকেস ভর্তি ৭৪ লাখ টাকা নিয়ে রাতে সিএনজি যোগে আমার শশুর বাড়িতে আসি। পরে তাদের বসত ঘরের চৌকির নীচে গর্ত করে ওই ব্রিফকেস মাটির নীচে পূতে রেখেছিলাম। এ ঘটনাটি দেখে সিএনজি চালক বদর। কারন সে আমার বন্ধু ও তার সিএনজিতে রাতে ব্রিফকেস নিয়ে আমি শশুর বাড়ি আসি। সিএনজি চালক বদরের বাড়ি আমার শ্বশুরের গ্রামের মধ্যে এবং আমার সম্বন্ধি রব্বানের বন্ধু। ব্রিফকেসে টাকা রয়েছে তা বুঝতে পেরে সিএনজি চালক বদর আমার কাছে সিএনজি ক্রয় করার জন্য ৫ লাখ টাকা দাবী করে। এসময় আমি পরে টাকা দিব বলে বদরকে আশ্বাস দেই। বিষয়টি বদর বিশ্বাস না করে আমার মামা শ্বশুর গহরপুর গ্রামের আলাল মিয়া, জয়নাল মিয়া ও তিমিরপুর গ্রামের মালিক মিয়ার সাথে আলাপ করে। বদর ও আলাল মিয়া আরো কয়েকজনকে নিয়ে গত ১৪ অক্টোবর মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে তারা কে বা কাহাকে ভূয়া মালিক সাজিয়ে আমার শশুর আব্দুল রেজ্জাকের বাড়িতে হানা দিয়ে জোর পূর্বক মাটির নীচ থেকে ব্রিফকেস তুলে নিয়ে যায়। এদিকে ব্রিফকেস নেওয়ার পর থেকে বদরের সাথে আমার কোন যোগাযোগ নেই।
নবীগঞ্জ থানার ওসি লিয়াকত আলী জানান, আটক শাহিনকে পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। তার কাছে গুরত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। মামলা তদন্তের স্বার্থে এখন কিছু বলা যাচ্ছেনা।
এস.আই শাহজাহান বলেন, আমরা তাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করছি ক্লু পেলে সাংবাদিকদের জানাবো।
হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশের ওসি মোক্তাদির হোসেন বলেন, সকাল ১০টায় শাহিনকে আটক করা হলেও রাত ৮টা পর্যন্ত কেউ বিষয়টি আমাকে জানায় নি। বিষয়টি আমরা সাংবাদিকদের কাছ থেকে শুনে নবীগঞ্জ থানায় যোগাযোগ করেছি। এক প্রশ্নে জবাবে ডিবির ওসি জানান, আমরা আমাদের মতো তদন্ত করবো তবে, শাহিনকে আটকের কথা নবীগঞ্জ থানা পুলিশ স্বীকার করেছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com