সোমবার, ০১ Jun ২০২০, ১১:৫৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
এমপি আবু জাহির এর প্রচেষ্টায় হবিগঞ্জে হতে যাচ্ছে করোনা পরীক্ষার ল্যাব জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ ১ মাদক ব্যবসায়ী আটক নবীগঞ্জে মাসিক আইনশৃংঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত লাখাইয়ে পরীক্ষায় ফেল করায় কিশোরী আত্মহত্যা করোনায় চুনারুঘাটে সেলুন ব্যবসায়ীরা দিশেহারা নবীগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষায় পাশের হার ৭৯.৩১% জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭৬ জন ভারতীয় নাগরিকদের হাতে নিহত বাংলাদেশীর লাশ ৬ দিন পর বিজিবির কাছে হস্তান্তর হবিগঞ্জে দুই গ্রামবাসির সংঘর্ষে আহত ৫০ নবীগঞ্জে পুলিশের হস্তক্ষেপে সংঘাত থেকে রক্ষা পেল গ্রামবাসী বানিয়াচঙ্গে কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টা ॥ লম্পট গ্রেফতার
নবীগঞ্জে ৭৫ লাখ টাকা ভর্তি ব্রিফকেস রহস্য উদঘাটনে ডিবি পুলিশ মাঠে ॥ তদন্তকালে জড়িতদের নাম প্রকাশ করেছে গ্রামবাসী

নবীগঞ্জে ৭৫ লাখ টাকা ভর্তি ব্রিফকেস রহস্য উদঘাটনে ডিবি পুলিশ মাঠে ॥ তদন্তকালে জড়িতদের নাম প্রকাশ করেছে গ্রামবাসী

কিবরিয়া চৌধুরী/ মোঃ আলমগীর মিয়া, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জে ৭৫ লাখ টাকা সহ ব্রিফকেস লুটের ঘটনার সাথে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জড়িত বলে ডিবি পুলিশকে জানিয়েছে গ্রামবাসী। গতকাল তদন্তে গেলে ডিবির কর্মকর্তার নিকট গ্রামবাসী ওই ছাত্রলীগ নেতার নামও প্রকাশ করেছে। তরে তদন্তের স্বার্থে ওই নাম গোপন রাখা হয়েছে।
৭৫ লাখ টাকা ভর্তি ব্রিফকেস লুটের ঘটনা উদঘাটনে গতকাল শনিবার সন্ধ্যার পর হবিগঞ্জ ডিবির ওসি মোঃ মোক্তাদির হোসেন তদন্ত দল সরেজমিনে ঘটনাস্থল নবীগঞ্জ উপজেলার বাউশা গ্রামে যান। এ সময় গ্রামের লোকজন ওই ব্রিফকেস লুটের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে পুলিশের নিকট বর্ণনা দেন। খবর পেয়ে নবীগঞ্জে কর্মরত বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকার সাংবাদিকরা উপস্থিত হন বাউশা গ্রামে। সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে তদন্তকালে ডিবি পুলিশের নিকট স্থানীয় লোকজন ওই ব্রিফকেস লুটের সাথে জড়িত সাবেক ছাত্রলীগ নেতাসহ অন্যান্যদের নাম প্রকাশ করেন। তবে তদন্তকারী কর্মকর্তা প্রাপ্ত তথ্য যাচাই বাচাই করছেন। অনেকের মতে তদন্তকারী আন্তরিক হলে দ্রুততম সময়ের মধ্যে এর রহস্য উদঘাটন হবে বলে আমাদের বিশ্বাস।
জানা যায়, নবীগঞ্জের বাউশা ইউনিয়নের গহরপুর গ্রামের রেজ্জাক মিয়ার বাড়ী থেকে ব্রিফকেস ভর্তি ৭৫ লাখ টাকা লুটের ঘটনায় নবীগঞ্জ প্রসাশনের নীরব ভূমিকা পালন করলে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিদের্শে গতকাল সন্ধ্যায় হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশের ওসি মোক্তাদির হোসেন এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে স্বাক্ষ্য গ্রহন করেন।
হবিগঞ্জ পৌরসভার উমেদনগর গ্রামের দিন মজুর শাহীনের শ্বশুর আব্দুর রেজ্জাক ডিবি পুলিশকে জানান, তার মেয়ের জামাই শাহিন লাখাই উপজেলার বুল্লা এলাকার একটি চা স্টলের চেয়ারে একটি ব্রিফকেস পড়ে থাকতে দেখে নিয়ে আসে। সে নাস্তা শেষ করে ওই ব্রিফকেসটি নিয়ে চলে যায় হবিগঞ্জ শহরে তার বোনের বাসায়। খুলে দেখতে পায় এটি টাকাভর্তি। গুনে দেখে এতে ৭৫ লাখ টাকা রয়েছে। এ টাকা পেয়ে শাহীন হতভম্ব হয়ে পড়ে। কি করবে এ টাকা দিয়ে তা ভেবে পাচ্ছিনা। এরই মধ্যে সে ১লাখ টাকা খরচ করে ফেলে। এদিকে তার বোনও কিছু টাকা দাবী করে শাহীনের নিকট। সে বোনকে টাকা দিবে বলে আশ্বাসও দেয়। রাজ্জাক এরা জানান, এভাবে ১৭দিন চলার পর এক পর্যায়ে জামাই শাহীন রাতের আধারে ব্রিফকেস নিয়ে একটি সিএনজি যোগে আমার বাড়িতে আসে। নিরাপত্তার দিক চিন্তা করে বসত ঘরের চৌকির নীচে গর্ত করে ওই ব্রিফকেস মাটির নীচে পূতে রাখে শাহীন।
এদিকে টাকা নিয়ে আলাপ আলোচনা করায় শাহীনের সম্বন্ধিক রব্বানের বন্ধু সিএনজি চালক বদরেরও লোভ যায় ওই টাকার প্রতি। সে একটি সিএনজি কেনার জন্য ৫ লাখ টাকা চায় জামাই শাহীনের নিকট। শাহীন পরে টাকা দেবার আশ্বাস দিলে বদর চলে যায়। কিন্তু বদর টাকার ঘটনাটি হজম করতে না পেরে শাহীনের মামা শ্বশুর গহরপুর গ্রামের আলাল মিয়া, জয়নাল মিয়া ও তিমির পুর গ্রামের মালিক মিয়ার সাথে বিষয়টি আলাপ করে। এর পর থেকে এরা টাকার ব্রিফকেটি হাতিয়ে নেয়ার কৌশল আঁটতে থাকে। বদর ও আলাল আরো কয়েকজনকে নিয়ে গত ১৪ অক্টোবর মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে নবীগঞ্জ ছাত্রলীগের সাবেক এক নেতাকে ভূয়া মালিক সাজিয়ে প্রাইভেট কার যোগে আব্দুল রেজ্জাকের বাড়িতে যায়। এ সময় ওই ছাত্রলীগ নেতা নিজেকে ওই টাকার মালিক দাবী করে জোর পূর্বক মাটির নীচ থেকে টাকা ভর্তি ব্রিফকেস তুলে নিয়ে চলে যায়। ভয়ে কেই এতে বাধা দেয়নি। পরে টাকাগুলো ভাগবাটোয়ারা করা হয়।
এ ব্যাপারে পার্শ¦বর্তী মাইজগাঁও গ্রামের কতুব উদ্দিন বলেন, পরদিন আমি ঘটনা শোনে সিএনজি চালক বদরের সাথে কথা বলেছি। সে আমাকে বলে শাহীনের স্বমন্ধি রব্বানকে নিয়ে হোটেল সোনালীতে গেলে সেখানে বদর, মালিক, আলাল গংরা হাজির হয়ে বলে রাতে যে ব্রিফকেস রব্বানের বাড়ি থেকে এনেছি সেটার মধ্যে কোন টাকা ছিল না।
গহরপুর গ্রামের শাহিনের শশুর আব্দুর রাজ্জাক, গ্রামের মুরুব্বি সুইল মিয়া, নুর মিয়া ও জমসেদ মিয়া ডিবি পুলিশ ও সাংবাদিকদের কাছে বলেন, সন্ধ্যার সময় ৭/৮ জন লোক এসে আমাদের বাড়িতে রেজ্জাক মিয়ার ঘরে প্রবেশ করে তন্ন তন্ন করে খুঁজে চৌকির নীচ থেকে মাটি কুড়ে চকলেট রংয়ের ব্রিফকেস তুলে নিয়ে যায়। আমরা এসময় বাধাঁ দিলে তারা বলে আমাদের সাথে পুলিশ আছে বলে হুমকী দিয়ে ব্রিফকেস নিয়ে চলে যায়।
এদিকে শাহীনের শ্বশুর আব্দুর রেজ্জাক বাদী হয়ে গত ২০ অক্টোবর সোমবার সকালে নবীগঞ্জ থানায় এ ব্যাপারে ৪ জনের নাম উল্লেখ করে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এসআই আব্দুর রহিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করার পর থেকে রহস্যজনক কারণে থেমে যায় পুলিশের তদন্ত।
এব্যাপারে ডিবি পুলিশের ওসি মোক্তাদির হোসেন বলেন, আমরা তদন্ত করে ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পেয়েছি। যাদের নাম তদন্তে এসেছে তাদেরকে গ্রেফতার করলেই থলের বিড়াল বেরিয়ে আসবে। জড়িতদের গ্রেফতারের তৎপরতা চলছে। তিনি বলেন, এর সাথে যত বড় রাঘব বোয়ালই জড়িত হোক না কেন তদন্তে সত্যতা প্রমান পেলে অবশ্যই তাকে গ্রেফতার করবো। তবে এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের সার্বিক সহযোগীতা চান। সাংবাদিকদের লেখালেখির কারণেই আজ এ ঘটনার রহস্য উদঘাটনের পথে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com