রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০১:২৬ পূর্বাহ্ন

যেভাবে লতিফনামার অবসান

যেভাবে লতিফনামার অবসান

এক্সপ্রেস ডেস্ক ॥ সংবিধানে কোন মন্ত্রীকে অব্যাহতি ও অপসারণের কোন বিধান বলা নেই। এই কারণে আব্দুল লতিফ সিদ্দিকীকে অপসারণ করা হয়েছে কিংবা অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে এর কোনটি বলা যাবে না। নিয়ম অনুযায়ী তার নিয়োগের অবসান হয়েছে। এই ব্যাপারে সংবিধানের নির্বাহী বিভাগের ২য় পরিচ্ছেদ এ প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিসভা বিষয়ে অন্যান্য মন্ত্রীর পদের মেয়াদ সম্পর্কে বলা হয় ৫৮। (১) প্রধানমন্ত্রী ব্যতীত অন্য কোন মন্ত্রীর পদ শূন্য হইবে, যদি- (ক) তিনি রাষ্ট্রপতির নিকট পেশ করিবার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নিকট পদত্যাগপত্র প্রদান করেন; (খ) তিনি সংসদ-সদস্য না থাকেন, তবে ৫৬ অনুচ্ছেদের (২) দফার শতাংশের অধীনে মনোনীত মন্ত্রীর ক্ষেত্রে ইহা প্রযোজ্য হইবে না; লতিফ সিদ্দিকী নিজে পদত্যাগ করেননি। আবার তিনি সংসদ সদস্য পদ থেকেও পদত্যাগ করেনি। এই কারণে এই দুটির কোনটি তার বেলায় কার্যকর হয়নি। তার বেলায় যেটা হয়েছে তা হলো সংবিধানের ৫৮ এর (২) প্রধানমন্ত্রী যে কোন সময়ে কোন মন্ত্রীকে পদত্যাগ করিতে অনুরোধ করিতে পারিবেন এবং উক্ত মন্ত্রী অনুরূপ অনুরোধ পালনে অসমর্থ হইলে তিনি রাষ্ট্রপতিকে উক্ত মন্ত্রীর নিয়োগের অবসান ঘটাইবার পরামর্শ দান করিতে পারিবেন। এই বিধান বলে প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতিকে লতিফ সিদ্দিকীর নিয়োগের অবসান ঘটানোর পরামর্শ দান করেন। আর সেই হিসাবে রাষ্ট্রপতি ৫৮ এর বিধান বলে ১(গ) হিসাবে তার নিয়োগের অবসান ঘটান।
সংবিধানে (গ) এই অনুচ্ছেদের (২) দফা অনুসারে রাষ্ট্রপতি অনুরূপ নির্দেশ দান করেন; অথবা (ঘ) এই অনুচ্ছেদের (৪) দফায় যেরূপ বিধান করা হইয়াছে তাহা কার্যকর হয়, বলা হয়েছে। এখানে রাষ্ট্রপতি যে নির্দেশ দিয়েছেন সেটাই কার্যকর করা হয়েছে। সংবিধানের কোথাও অপসারণ ও অব্যাহতি এই শব্দ দুটি না থাকার কারণে এটাকে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগও অপসারণ কিংবা অব্যাহতি বলতে পারেননি। মন্ত্রী পরিষদ সচিবের কাছে এই ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি কোন শব্দও ব্যবহার করেননি। প্রজ্ঞাপনের কথাই বলেছেন। প্রজ্ঞাপনের মধ্যে নিয়োগ অবসানের কথা বলা হয়েছে।
এদিকে লতিফ সিদ্দিকীর ভাই কাদের সিদ্দিকী অভিযোগ করেছেন, প্রধানমন্ত্রী সংবিধানের বিধান মানেননি। তা অমান্য করেছেন। তিনি লতিফ সিদ্দিকীকে মন্ত্রী পরিষদের সদস্য থেকে পদত্যাগ করার অনুরোধ করা দরকার ছিল। তিনি পদত্যাগ না করলে তাকে বাদ দিতে পারতেন। সেই রকম সুযোগ রয়েছে। কিন্তু তাকে পদত্যাগ করার কোন অনুরোধ করা হয়েছে বলে মনে হয় না। এমনকি তার সঙ্গে যোগাযোগও করা হয়নি। আর এই কারণে সংবিধান তাকে বাদ দেওয়ার ক্ষেত্রে পুরোপুরি মানা হয়নি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com