মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৭:১৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
করোনা ভাইরাস ॥ চীন ফেরত শিক্ষার্থী নিয়ে হবিগঞ্জে স্বাস্থ্য বিভাগের লুকোচুরি চাঁদাবাজির কারণে থমকে গেছে গুঙ্গিয়াজুরী হাওরে ৪০ হাজার মন ধান উৎপাদন ্॥ কৃষকদের ৪ কোটি টাকা ক্ষতির আশংকা ৯ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে জ্বিনের বাদশা ! ॥ সর্বস্ব খুইয়ে ওই ব্যক্তি পাগল প্রায় ॥ আতঙ্ক গ্রস্থ পরিবার বহুলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন এমপি আবু জাহির শহরের বদরুন্নেছা (প্রাঃ) হাসপাতালের মালিক দাবিদার বদরুন্নেছার বিরুদ্ধে এন্তার অভিযোগ নবীগঞ্জে স্বাস্থ্য সহকারী ও স্বাস্থ্য পরিদর্শক এসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় দাবী আদায়ের লক্ষ্যে হাম-রুবেলা ক্যাম্পেইনের প্রশিক্ষন বর্জন হবিগঞ্জ শহরে কিশোরকে ছুরিকাঘাত করেছে যুবতী কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নে গণফোরামের ৫ নং পুরানগাঁও ওয়ার্ড কমিটি গঠিত বাহুবলে জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান ॥ অমর একুশে বইমেলা মহান ভাষা আন্দোলনের স্মৃতিকে জাগ্রত রাখছে শায়েস্তাগঞ্জ জিয়াখাল রেল ব্রীজটি হুমকির মুখে
নবীগঞ্জে পশু সম্পদ কর্মকর্তার অনিয়ম দুর্নীতি ওপেন সিক্রেট

নবীগঞ্জে পশু সম্পদ কর্মকর্তার অনিয়ম দুর্নীতি ওপেন সিক্রেট

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ উপজেলা পশু সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ বরুন কুমার দত্তের অনিয়ম ও দুর্নীতি অনেকটা ওপেন সিক্রেট। গবাদিপশুর চিকিৎসা নিতে আসা কৃষকরা তার কাছে পুরোপুরি জিম্মি। পশু হাসপাতালে গবাদিপশুকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসলে ডাক্তার বরুন কুমার দত্ত ৩ শ’ থেকে ১ হাজার টাকা পর্যন্ত ফি আদায় করে থাকেন। অন্যথায় বিনা চিকিৎসায় ফিরতে হয়। এছাড়া ওই পশু হাসপাতাল থেকে সরকারী কোন ঔষধ পত্র না পেয়ে বিভিন্ন ফার্মেসীর দোকান থেকে চড়া মুল্যে খরিদ করতে হয়। নতুবা টাকা দিলে উক্ত হাসপাতাল থেকে ঔষধ এবং ভ্যাকসিন দেয়া হয়। ডাক্তার বরুন কুমার দত্তের এমন কর্মকান্ডে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন গবাদিপশুকে চিকিৎসা দিতে আসা সাধারণ মানুষ। ভোগান্তির শিকার উপজেলার কুর্শি ইউনিয়নের রতনপুর গ্রামের মনমন রায়ের ছেলে অমর রায় জানান, গত শনিবার তার একটি গাভীকে ভিঙ্গুল বলায় কামড় দিলে তিনি ডাক্তারের কাছে ছুটে আসেন বাড়িতে নেয়ার জন্য। এ সময় ডাঃ বরুন কুমার দত্ত ৫ শ টাকা ফি দাবী করেন। তবে তিনি গিয়ে ঔষধ লিখে দিলে তা বাজার থেকে খরিদ করে নিতে হবে এবং ইনজেকশন পুশ করতে গেলে আরও ৫ শত টাকা দিতে হবে বলে জানান। অসহায় অমর রায় এত টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তিনি যেতে অসম্মতি জানান। অতি সম্প্রতি পৌর এলাকার গন্ধ্যা গ্রামের জনৈক রিক্সা চালক তার একটি বাছুর ঘাস কম খাওয়ার কারনে পশু হাসপাতাল নিয়ে আসেন। তার কাছ থেকে ৫ শত টাকার বিনিময়ে ইনজেকশন দেয়ার সময় বাছুরটি দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে ওই লোক স্থানীয় লোকদের সহযোগীতায় বাছুর ধরে আনলে ডাঃ বরুন দত্ত একটি ইনজেকশন পুশ করার আধ ঘন্টার মধ্যে বাছুরটি মারা যায়। ওই লোকটি অভিযোগ করেন টাকা নিয়েও তার বাছুরটিকে মেয়াদ উর্ত্তীণ ইনজেকশন দিয়ে মেরে ফেলছে।
অভিযোগে প্রকাশ, ডাক্তার বরুন কুমার দত্ত নবীগঞ্জ পশু সম্পদ কার্যালয়ে যোগদানের পর থেকেই ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতি শুরু করেন। সাধারণ মানুষ গবাদি পশু নিয়ে হাসপাতালে এলে টাকা ছাড়া কোন চিকিৎসা সেবা পান না। এছাড়া সরকারী ঔষধ, ভ্যাকসিন কালো বাজারে বিক্রী করে প্রচুর অর্থ-বিত্তের মালিক হয়েছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে হাসপাতালের জনৈক কর্মচারী বলেন, ডাঃ বরুন দত্ত নাকি নবীগঞ্জ আসতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে কয়েক লাখ টাকা ঘুষ দিতে হয়েছে। ওই টাকা সাধারণ মানুষের কাছ থেকে আদায় করার মিশনে নেমেছেন। এ ব্যাপারে ডাঃ বরুন দত্তের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। এসব অপকর্ম চালিয়ে যাওয়ার পরও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেনা। প্রশ্ন উঠেছে, বরুন কুমার দত্তের খুঁটির জোর কোথায়?

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com