বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ১০:০১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ডাঃ ফাতেমা খানম দশ টাকা কেজির চাল হাতে দিয়ে লোকজনকে ঘরে থাকার আহবান জানালেন এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জের বেসরকারি চিকিৎসকদের পিপিই প্রদান করলেন ডাঃ মুশফিক চৌধুরী মাধবপুরে করোনা সতর্কতা ॥ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সরানো হল বাজার মাধবপুরে পিস্তলের গুলি বের হয়ে এএসআই আহত বানিয়াচঙ্গে গ্রামবাসীর উদ্যোগে ৩০টি গ্রাম লকডাউন “আপনার সুরক্ষা আপনার হাতে” এ স্লোগান এখন চা শ্রমিকের ঘরে ঘরে শ্রীমঙ্গলে করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে লোকসমাগম কমাতে কাঁচা বাজার স্থানান্তর হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম বানিয়াচংয়ে আইন অমান্য করে ব্যাবসা প্রতিষ্টান খোলা রাখায় অর্থদন্ড
নৈশ প্রহরী ও দারোয়ানের পরিবারকে এমপি কেয়া চৌধুরীর গাভী প্রদান

নৈশ প্রহরী ও দারোয়ানের পরিবারকে এমপি কেয়া চৌধুরীর গাভী প্রদান

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরে পাক বাহিনীর হাতে নিহত শায়েস্তাগঞ্জ খাদ্যগুদামের নৈশ প্রহরী ও দারোয়ানের পরিবারকে স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য গাভী প্রদান করেছেন এমপি কেয়া চৌধুরী। গতকাল এ দু’টি পরিবারের কাছে গাভী হস্তান্তর করা হয়। এ সময় জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা শেখ মুজিবুর রহমান, আওয়ামীলীগ নেতা ফজলুল হক ফটিক, আব্দুল মন্নান মেম্বার, রফিক মেম্বার, সাবেক মেম্বার আব্দুল আলীম নবী, পৌর কাউন্সিলর খায়রুল আলম, যুবলীগ নেতা জুনাইদ আহমেদ, শফিক মিয়া, ছাত্রলীগ নেতা হাবিবুর রহমান পয়েশ, মাসুক আহমেদ, সাজন মিয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। গাভী বিতরণকালে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে এমপি কেয়া চৌধুরী বলেন, যারা এদেশের জন্য প্রাণ দিয়েছে, তাদের ঋণ শোধ হবার নয়। জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। আর আমি জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধাদেরসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়নে কাজ করছি।
উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধকালে ১৯৭১ সালের ২৯ মে চিহ্নিত রাজাকারদের পূর্ণ সহযোগীতায় পাকসৈনারা শায়েস্তাগঞ্জ খাদ্যগুদামে হামলা চালায়। এসময় এ গুদামের কর্মকর্তা থেকে শুরু করে নৈশপ্রহরী পর্যন্ত ৭ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করে খোয়াই নদী দিয়ে ভাসিয়ে দেয়। এরমধ্যে একজনের লাশ পাওয়া যায়। বাকীদের লাশ পাওয়া যায়নি। এ ৭ জনের মধ্যে বড় বহুলা গ্রামের নৈশপ্রহরী আব্দুর রহমান ও দারোয়ান মাজেদ মিয়া ছিলেন।
নিহত নৈশ প্রহরী আব্দুর রহমানের স্ত্রীর নাম কমলা বানু। বয়স ৯০ বছর। তিনি একজন অসহায় মহিলা। যদিও তার রয়েছে এক কন্যা ও পুত্র সন্তান। তারা নানা পেশায় কাজ করে কোনো উপায়ে দিন যাপন করছে। কমলাবানু শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার তালুগড়াই গ্রামে মেয়ের জামাতার দুই শতক জমির উপর নির্মিত ঝুপড়ি ঘরে বসবাস করে আসছিলেন। সম্প্রতি তিনি অসুস্থ হয়ে স্মৃতিশক্তি হারিয়ে ফেলেন। এরপর তার একদিকের হাত পা অবশ হয়ে যায়। চিকিৎসা করনোর মত অর্থ ছিল না। এসব কথা জানতে পেরে বীর মুক্তিযোদ্ধা কমানডেন্ট মানিক চৌধুরীর কন্যা হবিগঞ্জ ও সিলেট এর দায়িত্বপ্রাপ্ত এমপি, চেতনায় ৭১ হবিগঞ্জের সদস্য সচিব এডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী তালুগড়াই এসে কমলা বানুকে নিজ গাড়ী করে হাসপাতালে নিয়ে যান। এ চিকিৎসায় তিনি কিছুটা সুস্থ আছেন। নৈশ প্রহরী আব্দুর রহমানের ন্যায় দারোয়ান মাজেদ মিয়ার পরিবারের অবস্থাও তেমন একটা ভাল নয়।
তাই তাদের পরিবারকে এমপি কেয়া চৌধুরী নানাভাবে সহযোগীতার আশ্বাস প্রদান করেছিলেন। এর প্রেক্ষিতে গতকাল দুইটি পরিবারকে গাভী প্রদান করা হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com