শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০৫:৩১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি মাধবপুরে গাছ এবং বৈদ্যুতিক খুঁটি ॥ প্রাণ বাঁচাল শিশু ও বৃদ্ধসহ ৪০-৫০ জন বাস যাত্রীর চুনারুঘাটের স্ত্রী-বিজয়নগরের স্বামী বিপুল গাঁজাসহ ভৈরব রেলওয়ে পুলিশের খাঁচায় হবিগঞ্জে আরো ৭০৩ জন করোনা টিকা নিয়েছেন চুনারুঘাট এসোসিয়েশন ইউকে ও শায়েস্তাগঞ্জ সমিতি ইউকের ভার্চুয়াল শোক সভা ও দোয়া মাহফিল হবিগঞ্জে জাতীয় জীবন বীমা দিবস উপলক্ষে র‌্যালী নব নির্বাচিত মেয়র সেলিমের সাথে আইনজীবীদের শুভেচ্ছা বিনিময় শহরের মাদক ব্যবসায়ী সৈয়দ আলী কারাগারে ॥ রিমান্ডের আবেদন কাঁচা সুপারি দিয়ে পান খেয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু মাধবপুরে মাদক বিরোধী জনসচেতনতার লক্ষ্যে বিটং পুলিশিং এর সভা অনুষ্টিত
নবীগঞ্জের সফল কৃষক হাবিবুর রহমান হাবিব

নবীগঞ্জের সফল কৃষক হাবিবুর রহমান হাবিব

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার নিভৃত পল্লী বড় ভাকৈর পুর্ব ইউনিয়নের বড় ভাকৈর গ্রামের এম এ শহীদ বহুমুখী ফার্ম সমন্বিত কৃষি খামার করে সফল হয়েছে। কৃষি খামারের পাশাপাশি পুকুরে মাছ চাষ ও ফল্টি ফার্ম সমন্বয়ে দৃষ্টি নন্দিত এই খামার এক নজর দেখার জন্য প্রতিদিন বিভিন্ন জায়গা থেকে অনেক লোক ভীড় জমান। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, বড় ভাকৈর গ্রামের হাবিবুর রহমান হাবিব চলতি বছরের প্রথম দিকে প্রায় ৩ একর জায়গা নিয়ে নিজ উদ্যোগে ও উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের সার্বিক পরামর্শে এম এ শহীদ বহুমুখী ফার্ম নামে একটি সমন্বিত কৃষি খামার গড়ে তুলেন। এই খামারে প্রায় ১২জন শ্রমিক কাজ করে তাদের জিবিকা নির্বাহ করে। এখানে কৃষি খামারের শুরুতেই তিনি নাগা মরিচ, কাচা মরিচ, বেগুন, ছিছিংঙ্গা, ঝিংগা, কাকরুল, চাল কুমড়ার আবাদ করেন। প্রাকৃতিক পরিবেশ অনুকুলে থাকা ও তাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বাম্পার শুরুতেই ফলন হয়েছে। বিষমুক্ত তার এই সবজি উপজেলার বিভিন্ন হাঠ বাজারে বিক্রি করা হয়েছে। সব মিলে তার প্রায় ৩ লাখ টাকা খরচ করে তিনি অন্তত ৩ লক্ষাধিক টাকা আয় করেছেন। এর পাশাপাশি ওই খামারে ৩টি পুকুরে দেশীয় রুই ও কার্প জাতীয় মাছের চাষ করা হয়েছে। পুকুরের চার পাড়ে মাচা দিয়ে বিভিন্ন জাতের সবজি আবাদ করায় সবার দৃষ্টি কাড়ে। দৃষ্টি নন্দিত এই পুকুর গুলোতে মৎস্য অধিদপ্তরের সার্বিক তদারকিতে মাছের ও বেশ ভালই উৎপাদন হবে বলে আশা প্রকাশ করা হচ্ছে। মাছ চাষ করে সব খরচ শেষে বছরে অন্তত ২ লক্ষাধিক টাকা আয় হবে বলে ধারনা করা হচ্ছে। অপরদিকে এই ফার্মে প্রায় ২ হাজার বয়লার মুরগির শেড তৈরি করে বাচ্চা পালন শুরু করেছেন। বাচ্চা লালন পালন করে বড় হলে ডিম বিক্রি শুরু হবে। সেই দিনের অপেক্ষায় দিনরাত নিরলস ভাবে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন হাবিবুর রহমান। তার একটাই স্বপ্ন কৃষি ক্ষেত্রে বিপ্লব গঠানো। তার আশা পল্ট্রি ফার্ম থেকে বছরে অন্তত ২ লক্ষাধিক টাকা আয় হবে। ইদানিং তিনি প্রায় ১ বিগা জমিতে কলুম করা গৃষ্মকালিন টমেটো বারি ৪ জাতের চারা রোপন করেন। বর্তমানে চারা গাছে ফুলে ফুলে ভরপুর হয়ে উঠেছে। মাঝে মধ্যে দু’চারটা গাছে ফল ধরতে শুরু করেছে। যদি প্রাকৃতিক কোন দুর্যোগ দেখা না দেয় তাহলে টমেটোতে বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। হাবিবুর রহমান আশা করেন টমেটো বিক্রি করে তিনি ২ লক্ষাধিক টাকা আয় করবেন। অন্যদিকে এই ফার্মের মধ্যখানে পেপের আবাদ দেখলে মন ঝুড়িয়ে যায় প্রতিটি গাছে অফুরন্ত পেপে ধরেছে। বর্তমানে তার বাগানের পেপে বাজারজাত শুরু হয়েছে। তিনি আশা করছেন পেপে বিক্রি করে অন্তত ১ লক্ষাধিক টাকা আয় করবেন। তার এই অফুরন্ত পরিশ্রমের পর সফলতা দেখে এলাকার সবার নজরে দৃষ্টি কেড়েছে।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ফার্মের মালিক হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, মানুষ ইচ্ছা করলে অনেক কিছু করতে পারে। মানুষের অসাধ্য কিছুই নয়। আমার পরিশ্রম ও সবার সার্বিক সহযোগিতায় আমি অনেকটা সফল হয়েছি। আমার ভবিষ্যত পরিকল্পনা এখানে একটি গবাদি পশুর খামার করা ছাড়া ও আরো ব্যাপক ভাবে খামারকে বৃদ্ধি করা। এতে শুধু আমিই স্বাবলম্ভি হবনা এলাকার মানুষের ও কর্মসংস্থান হবে। গতকাল আকস্মিক ভাবে খামার পরিদর্শনে যান উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ দুলাল উদ্দিন, এস এ পি পি ও মোঃ আব্দুল জালাল ও এস এ এ ও অজিত রঞ্জন দাশ। এ সময় প্রতিনিধির সাথে কথা হয় উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ দুলাল উদ্দিনের সাথে, তিনি বলেন, নিভৃত এই পল্লী গ্রামের কৃষক হাবিবুর রহমান অতি স্বল্প দিনের মধ্যে যে সফলতা দেখিয়েছেন তাহা নিশ্চয়ই প্রশংসার দাবীদার। যদি ও কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর তাকে সার্বিক সহযোগীতা ও তদারকি করেছি কিন্তু সব মিলে তার পরিশ্রম ও ধৈর্য তাকে সহায়তা করেছে। তার মতো অত্র এলাকার আরো লোকজন যদি এগিয়ে আসে তাহলে ওই এলাকা তথা নবীগঞ্জ উপজেলা কৃষিতে সমৃদ্ধ হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com