শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:৫২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বানিয়াচং-হবিগঞ্জ সড়কে সিএনজি ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে শিশুর মৃত্যু ॥ আহত ৩ গণভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কৃতজ্ঞতা জানালেন জেলা আওয়ামীলীগের নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নবীগঞ্জে কম দামে পেঁয়াজ ক্রয় করতে থানার সামনে ভীড় হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে অ্যাডভোকেট আলমগীর চৌধুরীর চমক মাথায় কাপনের কাপড় ও হাতে লাঠি নিয়ে জেলা ছাত্রদলের বিক্ষোভ হবিগঞ্জ লায়ন্স ক্লাবের নেতৃবৃন্দ ভারতের চেন্নাইয়ে মিনি ইন্টারন্যাশনাল লায়ন্স কনভেনশনে যোগদান করবেন হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের নয়া সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আলমগীর চৌধুরীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ সাংবাদিক ইমদাদকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে বানিয়াচংয়ে মানববন্ধন মাধবপুর পৌরসভা ও চৌমুহনী ইউনিয়নে তরুণ শিল্পপতি সৈয়দ সাজ্জাদ আহমেদের দরিদ্রদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ নবীগঞ্জ পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড বিএনপির নির্বাচন কমিশন গঠন
বাহুবল হাসপাতালে পাল্টাপাল্টি কমিটি নিয়ে দুই এমপি অনড়

বাহুবল হাসপাতালে পাল্টাপাল্টি কমিটি নিয়ে দুই এমপি অনড়

এম এ বাছিত ॥ বাহুবল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ব্যবস্থাপনা কমিটি নিয়ে দুই এমপির পাল্টাপাল্টি ডিও নিয়ে তোলপাড় চলছে। ১০ আগষ্ট ব্যবস্থাপনা কমিটির তালিকা দিয়ে ডিও দেন সংসদ সদস্য মুুনিম চৌধুরী বাবু। ১১ আগস্ট পৃথক কমিটি দিয়ে ডিও দেন এডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী এমপি। গতকাল বুধবার চিঠি ইস্যু ছাড়া কমিটির ১ম বৈঠক নিয়ে চাঞ্চল্য তৈরী হয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় হবিগঞ্জ সিভিল সার্জন ডাঃ নাসির উদ্দিন ভূইয়া মঙ্গলবার রাতে দুই এমপিকে চিঠি দেন। সি.স.হ-বি/৭-১/১৪ নং স্বারকে প্রেরিত চিঠিতে বাহুবল হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির বৈঠক অনির্দ্দিষ্টকালের জন্য স্থগিতের অনুরোধ জানানো হয়। সংসদ সদস্য এডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী ও মুনিম চৌধুরী বাবু চিঠির সত্যতা নিশ্চিত করেন। প্রেরিত পত্রের অনুলিপি স্বাস্থ্য মন্ত্রী, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, সিলেট বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক, বিভাগীয় কমিশনার এবং হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসককে অনুলিপি দেয়া হয়েছে।
এদিকে মুনিম চৌধুরী বাবু এমপি গতকাল হাসপাতালে বৈঠকের চেষ্টা করেন মর্মে অভিযোগ রয়েছে। এসময় তিনি জাপা নেতাদের নিয়ে হাসপাতাল ক্যাম্পাসে যান। তবে আনুষ্ঠানিক ভাবে বৈঠক হয়নি। এনিয়ে বাহুবল উপজেলা আওয়ামীলীগে তীব্র ক্ষোভের সঞ্চালন হয়েছে। দুই এমপির অনড় ভূমিকায় চিকিৎসক, নার্স ও কর্মকর্তা, কর্মচারীদের মধ্যে উদ্ধেগ, উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে।
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও রাজনৈতিক সূত্র জানায়, গত ৫ জানুয়ারীর আলোচিত নির্বাচনের ৭ মাস অতিবাহিত হলেও বাহুবল হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠন হয়নি। বিধি মোতাবেক নতুন সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেয়ার পরপরই কমিটি গঠনের বিধান রয়েছে। এরই মধ্যে হাসপতালের বিভিন্ন অনিয়ম, অব্যবস্থাপনায় অতিষ্ঠ লোকজন তাদের প্রতিবেশী সিলেট ও হবিগঞ্জ জেলায় নিয়োজিত সংসদ সদস্য এডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরীর শরণাপন্ন হন। ১৭ এপ্রিল এমপি কেয়া চৌধুরী হাসপাতাল পরিদর্শন করেন।
৩১ শয্যার হাসপাতাল ৫০ শয্যায় বৃদ্ধির জন্য ২০১০ সালে নতুন ভবন নির্মিত হয়। নতুন ভবনের কার্যাদেশ হস্তান্তরের পূর্বেই বিভিন্ন অংশে বড় রকমের ফাটল দেখা দেয়। সরেজমিন পরিদর্শন শেষে সার্বিক অবস্থান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে অবহিত করেন সংসদ সদস্য এডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী। মন্ত্রণালয়ের পরামর্শে তিনি একটি ডিও দেন। সিলেট স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী ডা. ছোহেল আহমদকে বাহুবল হাসপাতালের দৈন্যদশা অবহিত করেন। এরই ভিত্তিতে গত ৬ জুলাই ঘটনাস্থলে আসেন মন্ত্রণালয়ের প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল কবির আহমদ। এসময় উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য এডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী, হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোঃ জয়নাল আবেদীন, সিলেট স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী ছোহের আহমদ, হবিগঞ্জ সিভিল সার্জন ডাঃ নাসির উদ্দিন ভূইয়া, উপজেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাবৃন্দ।
হাসপতালের অব্যবস্থাপনা এবং কমপ্লেক্স নির্মাণে অনিয়ম দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তদন্তকারীদল। তাৎক্ষণিক নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপে বেকায়দায় পড়ে অসাধু চক্র। চিকিৎসা সেবা, শৃংখলা, স্যানিটেশন, অপরিচ্ছন্নতা, পানি সরবরাহ ব্যবস্থার উন্নয়নে দ্রুত কার্যকর উদ্যোগ নেয়া হয়। প্রশংসায় সিক্ত হন কেয়া চৌধুরী। এদিকে, ১০ আগষ্ঠ স্থানীয় সংসদ হিসেবে ১৯ সদস্যের কমিটি জমা দেন মুনিম চৌধুরী বাবু। এনিয়ে চিকিৎসক ও কর্মচারীদের মধ্যে প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। ১১ আগষ্ঠ উপজেলা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা আহবান করেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি কাকুল শাহরিয়ার চৌধুরী পিপলু। সভায় সর্বসম্মতিতে হাসপাতালের সার্বিক উন্নয়নের নিমিত্তে এমপি কেয়া চৌধুরীকে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের সুপারিশ অনুমোদিত হয়। ২১ সদস্যের কমিটিতে সভাপতি হিসেবে পদাধিকার বলে এমপি কেয়া চৌধুরী, সহ-সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিবকল্পনা কর্মকর্তাকে সদস্য সচিব রেখে ২৩ সদস্যের কমিটি গঠন করে ডিও দেন কেয়া চৌধুরী। ওই কমিটিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, থানার ওসি, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা, আবাসিক মেডিকেল অফিসার, মেডিকেল অফিসার (এমওএমসিএইচ), উপজেলা প.প. কর্মকর্তা, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার, মনোনীত ইউপি চেয়ারম্যান, এনজিও প্রতিনিধি, প্রেসক্লাব প্রতিনিধি, গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ, নার্সিং প্রতিনিধি, হাসপাতালের তৃতীয় ও চতৃর্থ শ্রেণীর কর্মচারী প্রতিনিধি এবং সংসদ সদস্য মনোনীত ৩ জন বিশিষ্ট ব্যাক্তিকে অন্তর্ভুক্ত করে একটি কমিটি জমাদেন কেয়া চৌধুরী। স্থানীয় সংসদ সদস্য মুনিম চৌধুরী বাবু নিজদলীয় লোকদের সদস্য করে অপর একটি কমিটি জমাদেন। পাল্টাপাল্টি কমিটি নিয়ে বেকায় দায় পড়েন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সোলায়মান খান। তিনি বলেন, দুটি ডিও নিয়ে সংকটে রয়েছি। ১ম সভার জন্য আমন্ত্রণ ইস্যু করিনি। জটিলতা নিরসনে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের মতামত চেয়েছি। কেয়া চৌধুরীর পিত্রালয় বাহুবলের খাগাউড়া গ্রাম হওয়ার সুবাদে প্রথমবারের মতো ওই এলাকার সংসদ সদস্য হিসেবে উন্নয়ন কর্মকান্ডে সক্রিয় রয়েছেন। এছাড়াও ১০ম সংসদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত এমপি মুনিম চৌধুরী বাবুর জন্ম ভূমি নবীগঞ্জের বিভিন্ন ইউনিয়নে উন্নয়ন কর্মকান্ডে কেয়া চৌধুরীর সম্পৃক্ততা নিয়ে দুই এমপির মৌন দ্বন্দ্ব চলছে।
এবিষয়ে সংসদ সদস্য মুনিম চৌধুরী বাবু বলেন, নির্বাচিত সংসদ সদস্য হিসেবে বিধি মোতাবেক কমিটি জমা দিয়েছি। আওয়ামীলীগ মনোনীত সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্য কেয়া চৌধুরী অহেতুক বিশৃংখলা করছেন। সিভিল সার্জন চিঠি দিয়ে রাষ্ট্রপতির আদেশ লঙ্ঘন করেছেন। আওয়ামীলীগ হাস্যকর ভাবে বর্ধিত সভায় রেজুলেশন করেছে। যার আইনী কোন ভিত্তি নেই।
সংসদ সদস্য কেয়া চৌধুরী বলেন, মন্ত্রণালয়ে দেয়া আমার ডিওর ভিত্তিতে হাসপাতালের উন্নয়নে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সভাপতি কাকুল শাহরিয়ার পিকলু চৌধুরী বলেন, হাসপাতালের সার্বিক উন্নয়নে এমপি কেয়া চৌধুরীর ভূমিকা এবং সরকার ও জনগণের স্বার্থে রেজুলেশ করেছে আওয়ামীলীগ। সাংগঠনিক সম্পাদক বশির আহমদ ও ছোহেল আহমদ কুটি বলেন, হাসপাতালের অনিয়ম এবং অব্যস্থাপনা নিয়ে এতোদিন কোথায় ছিলেন মুনিম চৌধুরী বাবু। আমাদের এলাকার গর্বিত সন্তান কমানন্ডেন্ট মানিক চৌধুরী কন্যা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে যোগাযোগ করে হাসপাতালের উন্নয়নে অনবদ্য ভূমিকা রেখেছেন। চলমান গতিকে ব্যাহত হতে দেয়া হবেনা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com