রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৭:১৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
উৎসব মূখর পরিবেশে আজ হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন ॥ লড়াই হবে ত্রি-মুখি বানিয়াচঙ্গে পুলিশের অভিযান কালাশাহ সহ ৩ ডাকাত গ্রেপ্তার হবিগঞ্জে আরো ৬২৭ জন করোনা টিকা গ্রহণ করেছেন নবীগঞ্জ ৯নং বাউসা ইউনিয়ন বিএনপির বর্ধিত সভা অনুষ্টিত হবিগঞ্জে উৎসব মুখর পরিবেশে সমকাল জাতীয় বিজ্ঞান বিতর্ক উৎসব নবীগঞ্জে বিষ প্রয়োগে ২৫০টি হাঁস নিধন ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ নবীগঞ্জ উপজেলার কাউন্সিল কার্যক্রম সম্পন্ন চুনারুঘাটে মরহুম সফিক মিয়া স্মরণে ফ্রিজ কাপ ক্রিকেট টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন হবিগঞ্জে নৌকার জয় হলে শেখ হাসিনার জয় হবে-ব্যরিস্টার শেখ ফজলে নাঈম একনায়কতন্ত্রের বিরুদ্ধে বিএনপির প্রার্থী সেলিমকে ধানের শীষে ভোট দিন-জিকে গউছ
ডাক্তার না পেয়ে নবীগঞ্জ হাসপাতালের গেইটে তালা ও অবস্থান ধর্মঘট

ডাক্তার না পেয়ে নবীগঞ্জ হাসপাতালের গেইটে তালা ও অবস্থান ধর্মঘট

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ ঈদের পর দিনে বিকেলে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের গেইটে তালা ঝুলিয়ে অবস্থান ধর্মঘট করেছে বিক্ষুব্ধ জনতা। এসময় হাসাপতালে আসা রোগীরা প্রবেশ করতে বা বের হতে না পেরে দুর্ভোগ পোহাতে হয়। পরে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজমা আক্তারের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে ১ ঘন্টা পর বিক্ষুব্ধ জনতা অবস্থান ধর্মঘট প্রত্যাহার করে। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জ পৌর এলাকার চরগাও গ্রামের আল-আমীন নামের এক ব্যক্তি পেটের ব্যাথায় আক্রান্ত হলে ঈদের পরদিন বিকেল ৫টার দিকে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হয়। হাসপাতালের জরুরী বিভাগে এসে ডিউটি ডাক্তার না থাকায় তাৎক্ষণিক কোন চিকিৎসা পায়নি ওই রোগী। এ সময় ডিউটি ডাঃ শর্মীষ্টা দাশ মিতু উপজেলা কমপ্লেক্সে তার এক আত্মীয়ের বাসায় দুপুর খাবার খেতে গিয়ে ছিলেন। এদিকে রোগী আসার পর জরুরী বিভাগ থেকে ডিউটি ডাঃ শর্মীষ্টা দাশ মিতুকে ফোন করা হয়। কিন্তু ডাঃ শর্মীষ্টা দাশ মিতু আসতে দেরী হওয়ায় রোগীর আত্মীয়রা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। আত্মীয়ের অসুস্থতার খবর পেয়ে বাসদ নেতা চৌধুরী ফয়সল শোয়েবও হাসপাতাল আসেন। এক পর্যায়ে কোন চিকিৎসা ছাড়াই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে নিয়ে অন্যত্র চিকিৎসা দেয়া হয়।
এদিকে চিকিৎসা না পাওয়ায় আত্মীয় স্বজন বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধরা হাসপাতালের গেইটে তালা ঝুলিয়ে দেয়। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে গেইটের তালা খুলে দিলেও বিক্ষুব্ধ জনতা গেইটে অবস্থান ধর্মঘট শুরু করে।
খবর পেয়ে হাসপাতালের টিএইচও ডাঃ অর্ধেন্দু দেব, বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সভাপতি আব্দুল মালিক, রাজনৈতিক নেতা তৌহিদুল ইসলাম চৌধুরী, পৌর মেয়রের প্রতিনিধি হিসেবে কাউন্সিলর এটিএম সালাম হাসপাতালে আসেন। পরে অবস্থান ধর্মঘটকারী নেতৃবৃন্দকে নিয়ে বৈঠকে বসে ধর্মঘট প্রত্যাহারের আহ্বান জানান। এ সময় ধর্মঘটীরা সংসদ সদস্য অথবা উপজেলা চেয়ারম্যান অথবা পৌর মেয়র আসলে তারা ধর্মঘট প্রত্যাহার করবেন বলে জানান। এতে বৈঠকে থাকা নেতৃবৃন্দ অনেকটা ক্ষুব্ধ হয়ে হাসপাতাল থেকে চলে যান। এদিকে বিভিন্ন সমস্যার কারনে তাদের কেউ ঘটনাস্থলে আসতে না পারায় বিশৃংখল অবস্থার সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে আন্দোলনকারীদের দাবীর প্রেক্ষিতে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজমা আক্তার ঘটনাস্থলে এসে বিষয়টি উপজেলা স্বাস্থ্য সেবা কমিটি ও আইনশৃংখলা কমিটিতে আলোচনা করে এর সমাধান দেবেন বলে আশ্বাস দিলে ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়। ফলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসে।
এ ব্যাপারে ডিউটি ডাক্তার শর্মীষ্টা দাশ মিতু জানান, তিনি উপজেলার ১নং বড় ভাকৈর (পশ্চিম) ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে কর্মরত ছিলাম। পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত দু’জন ডাক্তার ছুটিতে থাকায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডিউটি করার জন্য কর্তৃপক্ষ নিয়ে আসেন। তিনি জানান, ঈদের আগের দিন থেকে একাই জরুরী বিভাগে ডিউটি করে আসছি। বুধবার বিকেল পৌনে ৫ টার দিকে কোন রোগী না থাকায় উপজেলা কমপ্লেক্সে তিনি তার এক আত্বীয়ের বাসায় দুপুরের খাবার খেতে যান। এর কিছুক্ষণ পর ৫টার দিকে একজন ব্যথার রোগী আসার খবর পেয়ে দ্রুত রিক্সা যোগে হাসপাতালে আসার পুর্বেই ওই রোগী চলে যায়। তিনি জানান, তিনি জরুরী বিভাগে প্রবেশের কিছুক্ষণ পরই জরুরী বিভাগের প্রধান ফটকে তালা দেয়া হয়।
হাসপাতালের টিএইচও ডাঃ অর্ধেন্দু দেব বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে আমি তাৎক্ষনিক হাসপাতালে ছুটে এসে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা করি। এক পর্যায়ে পুলিশ এসে তালা খুলে দিলেও চৌধুরী শোয়েবসহ অন্যান্য গেইটে অবস্থান ধর্মঘট শুরু করে। পরে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজমা আক্তারের স্মরনাপন্ন হলে তিনি এতে আশ্বাস প্রদান করলে ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়।
এ ব্যাপারে বাসদ নেতা চৌধুরী শোয়েব এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তার আত্মীয়কে হাসপাতালে নিয়ে আসার পর কোন ডাক্তার পাওয়া যায়নি। ডিউটি ডাক্তারের সাথে বার বার যোগাযোগ করা হলেও তিনি আসেন নি। দীর্ঘ সময় অপেক্ষার পর রোগীকে সিলেট প্রেরণ করা হয়। এ সময় রোগীর চাচা এসে বিক্ষুব্ধ হয়ে হাসপাতালের গেইটে তালা ঝুলিয়ে এখানে অবস্থান ধর্মঘট শুরু করে। তখন তিনিও তাদের সাথে যোগ দেন। পরে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজমা আক্তার এসে বিষয়টি দেখার আশ্বাস দিলে ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com