শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১১:১১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বানিয়াচঙ্গে বর পক্ষের ওপর কনে পক্ষের হামলা, আহত ১০ মাধবপুরে ইটাখোলা আলীয়া মাদ্রাসা ভবনের কাজের উদ্বোধন প্রশাসনের অনুমতি না পেয়ে গভীর রাতে সাদ পন্থীদের ইজতেমা আয়োজনের চেষ্টা ॥ পুলিশের হস্তক্ষেপে পণ্ড দিনভর উত্তেজনা হবিগঞ্জ শিল্পনগরীতে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান ॥ জরিমানা বর্তমান সরকার নারীর ক্ষমতায়নে বদ্ধ পরিকর ॥ এমপি আবু জাহির হবিগঞ্জের কৃতিসন্তান মাক্সীম লন্ডন যুবদলের সাধারণ সম্পাদক শায়েস্তাগঞ্জে ৮ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ হচ্ছে ৬ তলা বিশিষ্ট আধুনিক থানা ভবন শায়েস্তাগঞ্জ জংশনে চাঁদা তুলার অভিযোগে জরিমানা নবীগঞ্জে ইয়াবাসেবী সজলুর দৌরাত্ম্য ‘ধনি গরীবের সমতায়, অসহায়রা থাকুক মমতায়’ নবীগঞ্জে হ্যাপী মিল ডে পালিত
নবীগঞ্জে দিলাল হত্যা মামলার ৭ আসামী বেকসুর খালাস

নবীগঞ্জে দিলাল হত্যা মামলার ৭ আসামী বেকসুর খালাস

এম এ বাছিত, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জের বহুল আলোচিত দিলাল হত্যা মামলায় সাবেক দুই ইউপি চেয়ারম্যান আশিকুর রহমান ও আকতার হোসেন ছুবা মিয়াসহ ৭ আসামীকে বেকসুর খালাস দিয়েছে সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল। চাঞ্চল্যকর ওই মামলা ৭ বছর পর নিস্পত্তি হয়েছে। মামলা রেকর্ড নিয়ে পুলিশ সদর দপ্তরে আবেদন, সিকিউরিটি বিভাগের তদন্ত, দুই সাবেক চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগ, মামলার মোটিভ নিয়ে নাটকীয়তায় উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা দেখা দেয়। কয়েকদফা বিচারিক আদালত পরিবর্তনের আবেদন নিয়ে উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ে। সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে ৩ জুলাই মামলার রায় দেন সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিজ্ঞ বিচারক দিলীপ কুমার দেবনাথ।
মামলা ও স্থানীয় সূত্রে প্রকাশ, ২০০৭ সালের ৯ সেপ্টেম্বর উপজেলার ২নং বড় ভাকৈর ইউনিয়নের বাগাউড়া গ্রামের ছোরাব উল্যার পুত্র উত্তরাঞ্চলের ত্রাস খ্যাত দিলাল বাহিনীর প্রধান দিলাল হোসেন বিকেল সাড়ে ৪ টায় স্থানীয় কাজীগঞ্জ বাজারে প্রকাশ্য দিবোলোকে খুন হন। ওই বাজারের একটি সেলুনে চুল কাটার সময় দুর্র্বৃত্তরা অতর্কিত হামলা চালিয়ে তাকে নৃশংসভাবে হত্যা করে। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। তাঁর গোপনাঙ্গ কেটে দুর্বৃত্তরা মৃত্যু নিশ্চিত করে। অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের হিসেবেই ঘটে আলোচিত ওই হত্যাকান্ড। নিহতের মা গুল নেহার বেগম সাবেক দুই চেয়ারম্যানসহ ৭ জনকে অভিযুক্ত করে ২০০৭ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর নবীগঞ্জ থানায় মামলা করেন। ১২ ডিসেম্বর আসামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা ইনাতগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মোঃ আব্দুল মতিন মহিদ সরকার। ২০০৮ সালের ৫ ফেব্র“য়ারী মামলাটি হবিগঞ্জ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট কগনিজেন্স কোর্ট-২ এ গৃহিত হয়। বাদী পক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০১৩ সালের ৫ মার্চ মামলাটি সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তরিত হয়। গত ৩ জুলাই আলোচিত মামলায় সকল আসামীকে খালাস দেন বিজ্ঞ বিচারক। আসামী পক্ষে শুনানীতে অংশ গ্রহণ করেন সিনিয়র আইনজীবি শামীম আহমদ ও এডভোকেট সাইফুর রহমান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন, পিপি এডভোকেট কিশোর কর।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com