বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০১:০৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সাতছড়িতে বিজিবির অভিযান রকেট লাঞ্চারের ১৮টি গোলা উদ্ধার হবিগঞ্জে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ম্যারাথন এর উদ্বোধন সাতছড়ি উদ্যানে পূর্বের ৬ অভিযানে যা যা মিলেছে উদ্ধার হওয়া রকেট লাঞ্চারের গোলাগুলো খুব বিপজ্জনক আলোচনায় কাহালু ও চট্টগ্রামের ১০ ট্রাক অস্ত্র নোয়া হাটি সংবর্ধনা সভায় মেয়র সেলিম ॥ আমি হবিগঞ্জ পৌরবাসীর ভালবাসা কুড়িয়ে নিতে চাই হবিগঞ্জ পৌরসভার নব-নির্বাচিত ২ কাউন্সিলরকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী নবীগঞ্জে মাদকাসক্ত স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা ॥ হুমকির মুখে নিরিহ পরিবার পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়রের সঙ্গে ব্যাংকারদের শুভেচ্ছা বিনিময় নবীগঞ্জে শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন ২০২১ প্রতিযোগীতায় ॥ ২৩ বিজয়ী
হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল॥ লাশ পঁচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে

হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল॥ লাশ পঁচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে বিষজনিত কারণে যুবকের মৃত্যু নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে হাসপাতাল ও থানার গ্যাড়াকলে পড়ে সময়মতো ময়নাতদন্ত না হওয়ায় লাশ পঁচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। তবে হাসপাতাল ও থানা কর্তৃপক্ষ বলছে, আইনি জটিলতার কারণে সময়মতো ময়নাতদন্ত হয়নি। অবশেষে গতকাল শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় সদর থানা পুলিশ লাশের সুরতহাল তৈরি করে সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার তাজপুর গ্রামের সোহেল মিয়ার পুত্র নাইম (১৮) পারিবারিক কলহের জের ধরে গত শুক্রবার দুপুরে বিষপান করে। পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে ওইদিন বিকাল ৪টায় সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে সিলেট প্রেরণ করা হয়। সিলেট নিয়ে যাবার পথে রাস্তায় তার মৃত্যু হয়। স্বজনরা কিছু বুঝতে না পেরে লাশটি বাড়িতে নিয়ে গিয়ে ওইদিন রাতেই দাফনের চেষ্টা করেন। পুলিশের ফোন পেয়ে স্থানীয় মেম্বারের সহযোগিতায় লাশটি হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে আনা হয়। এরপর ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করলেও পুলিশ না যাওয়ায় লাশের সুরতহাল হয়নি। আর সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি না হওয়ায় মর্গেও নেয়া হয়নি লাশ। এদিকে নাইমের স্বজনরা হাসপাতালে গেলে বলা হয় থানায় যেতে, সদর থানায় গেলে বলে বানিয়াচং থানায় যোগাযোগ করার জন্য। বানিয়াচং থানায় যোগাযোগ করলে বলে হাসপাতালে যোগাযোগ করতে। এ ভাবে শনিবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত আসা যাওয়া করতে করতেই লাশ পঁচে হাসপাতালে দুর্গন্ধ ছড়াতে থাকে। অবশেষে সন্ধ্যায় নিহতের ভাইয়ের আবেদনের প্রেক্ষিতে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক লাশটি জরুরি খাতায় এন্ট্রি করে থানাকে মৃত্যুর সংবাদ দেয়ার পর কোর্ট স্টেশন ফাঁড়ির এসআই সাইফুল ইসলাম সন্ধ্যায় লাশের সুরতহাল তৈরি করে মর্গে প্রেরণ করেন। মৃতের ভাই জানান, লাশ নিয়ে যদি এরকম ভোগান্তিতে পড়তে হয় তাহলে দুর্ঘটনাকবলিত লাশ লুকিয়ে দাফন করাই ভালা। পুলিশ লাশ আইন্যা আমারারে আরও বিপদে ফালাইছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com