শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১২:২০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে নৌকার জয় হলে শেখ হাসিনার জয় হবে-ব্যরিস্টার শেখ ফজলে নাঈম একনায়কতন্ত্রের বিরুদ্ধে বিএনপির প্রার্থী সেলিমকে ধানের শীষে ভোট দিন-জিকে গউছ শায়েস্তাগঞ্জ সড়কে দুর্ঘটনায় যুবক নিহত ॥ আহত ৫ ভয়ভীতির উর্ধে উঠে নারিকেল গাছ প্রতীকে ভোট দিন-মেয়র প্রার্থী মিজান হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন ॥ স্বশিক্ষিতের ভিড়ে ব্যতিক্রম ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী কৌশিক আচার্য্য পায়েল এডঃ এনামুল হক সেলিমের সমর্থনে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি পরিবারের ভার্চুয়াল আলোচনা অনুষ্টিত ব্যাংকার মওদুদ হত্যার প্রতিবাদে হবিগঞ্জে মানববন্ধন ও শোক র‌্যালী মেয়র প্রার্থী আতাউর রহমান সেলিমকে হবিগঞ্জ জেলা ন্যাপের সমর্থন গণসংযোগকালে পান্না কুমার শীল আমি বিজয়ী হলে ৩নং ওয়ার্ডকে একটি আধুনিক ও বাসযোগ্য হিসেবে গড়ে তুলব বাংলাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হিসাবে স্বীকৃতির দাবিতে হবিগঞ্জে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা অনুষ্টিত
চুনারুঘাটে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ৭৪ পরিবারের কাছে ঘর হস্তান্তর

চুনারুঘাটে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ৭৪ পরিবারের কাছে ঘর হস্তান্তর

নুরুল আমিন ॥ নুরুল হুদা, বয়স ৭০। জীবণ কাটিয়ে দিয়েছেন বনে, পরের জমিতে, জীবণের শেষ বয়সে এসে ঘর পেয়ে শুকরিয়া আদায় করলেন, বললেন, এবার হয়তো প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘরে মরতে পারবো। একই ভাবে আছিয়া খাতুন, বয়স ৬৫, তিনিও বসবাস করতেন কালেঙ্গা বস্তিতে ছিলনা নিজের ঘর, বাড়ি। থাকতেন অন্যের বাড়িতে। দুই ছেলে আছে, পেশায় কাজের ঝি, মানুষের ঘরে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতেন, এবার পেলে নিজের ঘর। এবার ছেলে মেয়ে নিয়ে এ ঘরেই তিনি মরতে চান, তিনি বলেন, “এখন থাইক্কা আর ঝড়-বৃষ্টিতে ভিজন লাগতো না, আমরার কষ্ট দুর করছইন পরধানমন্ত্রী (প্রধানমন্ত্রী) তাইনের লাইগ্যা দোয়া করি আল্লাহ যে, হায়াত বাড়িয়ে দেয়” নুরুল হুদা আর আছিয়ার মতো ৭৪ জন গৃহহীন পেল নিজের জমি আর ঘর। চুনারুঘাট উপজেলার ৭৪টি সহ জেলার ৩২৫টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর এবং দলিল হস্তান্তর করা হয়েছে। মাননীয় প্রধানমনন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ইকরতলী আশ্রয়ন প্রকল্পে সরাসরি যুক্ত হয়ে এসব ঘরের দলিল হস্তান্তর করেন। এসময় তিনি বলেন, জাতির পিতার স্বপ্ন পুরণ করতে পেরে আজ আমি গর্বিত, ঘর ও জমি প্রদান করতে পারা নিজের সবচেয়ে বড় আনন্দের বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
শনিবার (২৩ জানুয়ারি) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধনের পর প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। এদিন দেশের ৪৯২ উপজেলার প্রায় ৭০ হাজার পরিবারকে পাকাঘর হস্তান্তর করেন তিনি। শেখ হাসিনা বলেন, ‘আজকে আমার অত্যন্ত আনন্দের দিন। গৃহহীন পরিবারকে গৃহ দিতে পারছি, এটি আমার সবচেয়ে আনন্দের। আমার বাবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মানুষের কথাই ভাবতেন। আমাদের পরিবারের লোকদের চেয়ে তিনি গরীব অসহায় মানুষদের নিয়ে বেশি ভাবতেন এবং কাজ করেছেন। এই গৃহ প্রদান কার্যক্রম তারই শুরু করা।’
এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সত্যজিত রায় দাশের সঞ্চালনায় লাইভে যুক্ত ছিলেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট মাহবুব আলী, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সদস্য ডাঃ মুসফিক হোসেন চৌধুরী, হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান, জাতীয় পরিষদ সদস্য শহীদ উদ্দিন চৌধুরী, চুনারুঘাট উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল কাদির লস্কর, সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আবু তাহের, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট আকবর হোসেন জিতু, ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ূন কবির খানসহ বিভাগীয় কর্মকর্তা, জনপ্রতনিধি, দলীয় নেতাকর্মী ও উপকারভোগীরা। উপকারভোগীদের মধ্যে নাজমুল হুদা এবং প্রকল্প বাস্তবায়নে সরাসরি যুক্ত সহকারি কমিশনার মিল্টন পাল বক্তব্য রাখেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী চুনারুঘাট তথা জেলাবাসীকে ধন্যবাদ জানান এবং আগামীতে উপজেলার সকল গৃহহীন ও ভূমিহীনকে আবাসনের ব্যবস্থা করবেন। তিনি বলেন, কেউ গৃহহীন থাকবে না, মুজিববর্ষে সকল অসহায়, দু:স্থ ও গৃহহীনকে ঘর দেওয়ার কথা পুনরায় ব্যক্ত করেন। মুজিববর্ষ উপলক্ষে আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর আওতায় জেলায় ৭৮৭ জন মানুষকে পুনর্বাসন প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে পাকাঘর উপহার দেয়া হচ্ছে প্রথম পর্যায়ে ঘর পেল ৩২৫ পরিবার। আগামী মাসে আরও বাকী পরিবারগুলো বাড়ি পাবে। অনুষ্ঠানে আশ্রয়ন প্রকল্পের তৈরি ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়।উপজেহলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্লাবন পাল বলেন, প্রত্যেকটি বাসগৃহ নির্মানে ব্যয় হয়েছে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। প্রধানমন্ত্রীর ত্রান ও পুনর্বাসন বিভাগ থেকে এসব বাসগৃহের বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। যাদের জমিও নেই, ঘরও নেই, শুধু তারাই এসব বাসগহে ঠাঁই পাবেন। ইতোমধ্যে তালিকা তৈরীর কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সত্যজিত রায় দাশ। তিনি জানান, মুজিববর্ষ উপলক্ষে উপজেলায় জমিও নেই, ঘরও নেই (ক শ্রেণী) এমন দরিদ্র ৮০টি পরিবার এসব ঘরে ঠাইঁ পাচ্ছেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com