মঙ্গলবার, ০৯ মার্চ ২০২১, ১২:৩৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজ ঐতিহাসিক ৭ মার্চ হবিগঞ্জে ড্যান্ডি নেশায় ঝুঁকছে টোকাই শিশুরা প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলীর সাথে মেয়র সেলিমের শুভেচ্ছা বিনিময় নয়া জেলা প্রশাসক ইসরাত জাহানের দায়িত্ব গ্রহণ এমপি পুত্র ইফাত জামিলের আইন বিষয়ে ¯œাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন হবিগঞ্জ পৌর নির্বাচন ৭দিন আগে অনুষ্ঠিত হলেও শহরে বিরাজ করছে নির্বাচনী আমেজ! পোষ্টারে পোষ্টারে ছেয়ে আছে হবিগঞ্জ শহর ! এগুলো পরিস্কারের দায়িত্ব কার ? জন দূর্ভোগ ॥ নবীগঞ্জ-মুক্তাহার ব্রীজ বানিয়াচংয়ে প্রেমিকের ব্যবসা প্রতিষ্টানে প্রেমিকার অনশন ॥ সালিশে নিষ্পত্তির শর্তে মুরুব্বীদের জিম্মায় নবীগঞ্জে খোলা জায়গায় পশু জবাই করে বিক্রি ॥ পরিবেশ দুষিত হচ্ছেন পত্রিকায় লিখে কোন লাভ হবে না। কর্তারা তাদের ম্যানেজ নবীগঞ্জে অসহায় ব্যক্তির অর্ধশতাধিক গাছ কর্তন
নবীগঞ্জে ভোট যুদ্ধ আজ ॥ জনগণে আতংক-উৎকণ্ঠা ॥ আ.লীগ ও বিএনপির পাল্টা-পাল্টি কালো টাকা বিতরণের অভিযোগ

নবীগঞ্জে ভোট যুদ্ধ আজ ॥ জনগণে আতংক-উৎকণ্ঠা ॥ আ.লীগ ও বিএনপির পাল্টা-পাল্টি কালো টাকা বিতরণের অভিযোগ

ছনি চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥
নবীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন আজ। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। বিভিন্ন কৌশলে ভোটারদের মনজয় করতে নানা ধরণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। এদিকে নিজের ভোটের পাল্লা ভারী করতে কালো টাকা বিতরণ করা হয়েছে বলে একে অপরের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি।
১৯৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত নবীগঞ্জ পৌরসভা ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত। নির্বাচনে ১৮ হাজার ৮৭৭ জন নারী ও পুরুষ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। ১০টি ভোট কেন্দ্রে মোট ৪৮টি বুথে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ইতিমধ্যে নির্বাচনে যে কোনো ধরণের বিশৃংখলা এড়াতে কঠোর অবস্থানে রয়েছে আইনশৃংখলা বাহিনী। নির্বাচন কমিশন বলছে- অবাধ নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন উপহার দিবেন তাঁরা। নির্বাচনে ১০টি ভোট কেন্দ্রে দু’জন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে মোট ৯জন ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে কাজ করবেন। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে ১০জন পুলিশ ও ৯ জন আনসার সদস্য নিরাপত্তা নিশ্চিতে ভোটকেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করবে। পুলিশের ৫টি মোবাইল টিম ও ২টি স্টাইকিং টিমের টহল অব্যাহত। এছাড়াও ৯টি ভোট কেন্দ্রে র‌্যাবের ২টি স্টাইকিং ফোর্স ও বিজিবির ২ প্লাটুন সদস্য সার্বক্ষণিক টহল দিবে। নবীগঞ্জ পৌরবাসী শহরের যানজট সমস্যা সমাধান, ড্রাম্পিং স্টেশন স্থাপনসহ পৌর নাগরিকদের সমস্যা সমাধানে কাজ করবে এমন ব্যক্তিকেই পৌরসভা মেয়র নির্বাচিত করতে চান ভোটাররা।
নির্বাচনে মেয়র পদে ৩জন, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১২জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন- নবীগঞ্জ পৌরসভার বর্তমান মেয়র ও বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ছাবির আহমদ চৌধুরী (ধানের শীষ), আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক গোলাম রসুল রাহেল চৌধুরী (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী শ্রমিক নেতা মাহবুবুল আলম সুমন (জগ)।
সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে কে হচ্ছেন আগামী ৫ বছরের জন্য পৌর পিতা তা নিয়ে পৌরসভা ছাড়াও আলোচনা গড়িয়েছে পুরো উপজেলায়। মেয়র পদে ৩জন প্রার্থীই হেভিওয়েট। যার যার মতো করে শক্ত অবস্থানে রয়েছেন তিন মেয়র প্রার্থী। ভোটারদের কাছ থেকে ত্রিমুখি লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে।
মোহাম্মদ রুবেল নামে একজন ভোটার জানান- বিগত কিছুদিন ধরে নবীগঞ্জের রাজনৈতিক অঙ্গন উত্তপ্ত, সুষ্ঠ পরিবেশে ভোট দিতে পারবো কী না এনিয়ে টেনশনে আছি।
অন্যদিকে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি পরস্পরের বিরুদ্ধে কালো টাকা বিতরণের অভিযোগ উঠেছে।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ পৌরসভার বর্তমান মেয়র ও বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ছাবির আহমদ চৌধুরী বলেন- সব সময় মানুষের ভালোবাসা আদায় করতে আমি কাজ করেছি। মানুষ আমাকে ভালোবাসে তাই আমি বিজয়ী হবো বলে আশাবাদী। তিনি বলেন-আওয়ামীলীগ অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলা দেয়ার ফলে মানুষের মাঝে চাপা ক্ষোভ ও আতংক রয়েছে। কালো টাকা বিতরণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন- আওয়ামীলীগ প্রার্থীসহ তারা তিন ভাই কালো টাকা বিতরণ করছেন। এছাড়া তিনি নবীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুল হক চৌধুরী সেলিম এর বিরুদ্ধেও কালো টাকা বিতরণের অভিযোগ করেন।
আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী গোলাম রসুল রাহেল চৌধুরী বলেন- আওয়ামীলীগের গণ জোয়ার উঠেছে। আমি বিজয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী। নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত জেনে বিএনপির প্রার্থী মিথ্যাচার করছেন।
অভিযোগের প্রেক্ষিতে নবীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুল হক চৌধুরী বলেন- বিএনপির মেয়র প্রার্থী এমন অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। তিনি বলেন- ছাবির আহমদ চৌধুরী কালো টাকার মালিক। তিনি ভোটারদের কাছে কালো টাকা বিলি করছেন। আওয়ামীলীগের জয়জয়কার দেখে হিংসায় ও আক্রোশে তিনি এমন অভিযোগ ও গুজব রটাচ্ছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি।
এ ব্যাপারে স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহবুবুল আলম সুমন বলেছেন- ভোটারদের মাঝে আতংকের চাপ পাওয়া যাচ্ছে। ভোট সুষ্ঠু হওয়া নিয়ে আমি চিন্তিত। তবে জনগণ সুষ্ঠু পরিবেশে ভোট প্রয়োগ করতে পারলে আমার বিজয় সুনিশ্চিত। আমার বিজয় সুনিশ্চিত দেখে একটি পক্ষ গুজব ছড়াচ্ছে যে আমি নির্বাচন থেকে সরে দাড়িঁয়েছি। আমি ভোটারদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, আমি ভোটে আছি, ভোটে থাকবো। তিনি জগ প্রতীকে ভোটাধিকার প্রয়োগ করারও আহবান জানান।
নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে ১নং ওয়ার্ডের গন্ধা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে মোট ২ হাজার ৫৮ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে বর্তমান কাউন্সিলর মোঃ জাকির হোসেন, সাবেক কাউন্সিলর মোঃ মিজানুর রহমান ও মোঃ আক্তার উজ্জামান চৌধুরী রুহেল প্রতিদ্বিন্দ্বিতা করছেন।
২নং ওয়ার্ডে হিরা মিয়া গার্লস হাই স্কুলে মোট ২ হাজার ১৯৬ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে বর্তমান কাউন্সিলর মোঃ সুন্দর আলী, আঃ ছোবহান, আকমল হোসেন আজাদ টিটু, এটি.এম রুবেল মিয়া ও মোঃ সাহেদুর রহমান প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
৩নং ওয়ার্ডে নবীগঞ্জ জে.কে উচ্চ বিদ্যালয়ে মোট ভোটার সংখ্যা ২ হাজার ৩০ জন। এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে সাবেক কাউন্সিলর শাহ মোঃ রিজভী আহমেদ খালেদ, ওহি দেওয়ান চৌধুরী ও মোঃ নানু মিয়া প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
৪নং ওয়ার্ডে গয়াহরি সরকাকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ২ হাজার ২৬৬ জন ভোটার রয়েছেন। এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে বর্তমান কাউন্সিলর প্রাণেশ চন্দ্র দেব, সাবেক কাউন্সিলর যুবরাজ গোপ ও সমীরন দাশ। প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
৫নং ওয়ার্ডে রাজাবাদ কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে মোট ভোটার হচ্ছেন ১ হাজার ৭৯৫ জন। এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে বর্তমান কাউন্সিলর সাংবাদিক এটিএম সালাম, মোঃ লুৎফুর রহমান, মোঃ আমির হোসেন, মোঃ সুহেলুজ্জামান লিপ্টন ও ইসমত আলী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
৬নং ওয়ার্ডে চরগাঁও শেখ আমিনা বিবি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটার হচ্ছে ১ হাজার ৭৮২ জন। এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে বর্তমান কাউন্সিলর জায়েদ চৌধুরী, শেখ মোঃ আবুল কাশেম, আল আমিন চৌধুরী, মঈনুল ইসলাম চৌধুরী, মোঃ ইসলাম উদ্দিন চৌধুরী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
৭নং ওয়ার্ডে নহরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটার হচ্ছেন ২ হাজার ২৫৮ জন। এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে বর্তমান কাউন্সিলর মোঃ কবির মিয়া, সাবেক কাউন্সিলর আলহাজ্ব রুহুল আমিন রফু ও ফখরুজ্জামান চৌধুরী বুলবুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
৮নং ওয়ার্ডে শিবপাশা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে মোট ভোটার হচ্ছেন ২ হাজার ১৪২ জন। এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে বর্তমান কাউন্সিলর বাবুল চন্দ্র দাশ, সাবেক কাউন্সিলর সন্তোষ দাস, দিব্যেন্দু ধর দীপন ও ইঞ্জিনিয়ার আলমগীর হোসেন চৌধুরী।
৯নং ওয়ার্ডে দুটি কেন্দ্র পূর্ব তিমিরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও জয়নগর পৌর আইডিয়াল স্কুলে মোট ভোটার হচ্ছেন ২ হাজার ২৫০ জন। এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বর্তমান কাউন্সিলর মোঃ আলাউদ্দিন, শেখ শাহনূর আলম ছানু, মোঃ ফজল আহমদ চৌধুরী, শাহ ফজলুল করিম, শেখ জগলুল হাসান ও শাফি মিয়া তালুকদার।
এদিকে সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডে বর্তমান মহিলা কাউন্সিলর ফারজানা মিলন পারুল, সাবেক মহিলা কাউন্সিলর জাকিয়া আক্তার লাকী, শামেলা বেগম ও মোছাঃ স্বপ্না বেগম।
৪, ৫ ও ৬নং ওয়ার্ডে সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে প্রার্থী হচ্ছেন বর্তমান কাউন্সিলর মোছাঃ রুকেয়া বেগম, পূর্ণিমা রানী দাশ, মোছাঃ তৈয়মুন্নেছা, মোর্শেদা আক্তার নিতু ও রওশনারা বেগম।
৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডে সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে প্রার্থী হচ্ছেন বর্তমান মহিলা কাউন্সিলর সৈয়দা নাসিমা বেগম, মোছাঃ শেলী বেগম ও মোছাঃ রাজিয়া বেগম।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com