রবিবার, ০৭ মার্চ ২০২১, ১০:১২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজ ঐতিহাসিক ৭ মার্চ হবিগঞ্জে ড্যান্ডি নেশায় ঝুঁকছে টোকাই শিশুরা প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলীর সাথে মেয়র সেলিমের শুভেচ্ছা বিনিময় নয়া জেলা প্রশাসক ইসরাত জাহানের দায়িত্ব গ্রহণ এমপি পুত্র ইফাত জামিলের আইন বিষয়ে ¯œাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন হবিগঞ্জ পৌর নির্বাচন ৭দিন আগে অনুষ্ঠিত হলেও শহরে বিরাজ করছে নির্বাচনী আমেজ! পোষ্টারে পোষ্টারে ছেয়ে আছে হবিগঞ্জ শহর ! এগুলো পরিস্কারের দায়িত্ব কার ? জন দূর্ভোগ ॥ নবীগঞ্জ-মুক্তাহার ব্রীজ বানিয়াচংয়ে প্রেমিকের ব্যবসা প্রতিষ্টানে প্রেমিকার অনশন ॥ সালিশে নিষ্পত্তির শর্তে মুরুব্বীদের জিম্মায় নবীগঞ্জে খোলা জায়গায় পশু জবাই করে বিক্রি ॥ পরিবেশ দুষিত হচ্ছেন পত্রিকায় লিখে কোন লাভ হবে না। কর্তারা তাদের ম্যানেজ নবীগঞ্জে অসহায় ব্যক্তির অর্ধশতাধিক গাছ কর্তন
হবিগঞ্জ পৌরসভার সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র ও সচিবের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের

হবিগঞ্জ পৌরসভার সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র ও সচিবের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের

স্টাফ রিপোর্টার ॥ অবৈধভাবে দোকান ঘর ভেঙ্গে ক্ষতি সাধনের অভিযোগে হবিগঞ্জ পৌরসভার সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র দীলিপ দাস ও পৌর সচিবের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। হবিগঞ্জের সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মামলাটি দায়ের করেন সংবাদপত্র এজেন্ট মোঃ শাহজাহান মিয়া।
মামলা সুত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জ পৌরসভার দক্ষিণ দিকে অবস্থিত মাদার কেয়ার ডায়গনস্টিক সেন্টার সংলগ্ন ড্রেনে ওই এলাকার সাধারণ মানুষ ও ব্যবসায়ীরা ময়লা আবর্জনা ফেলে স্তুপে পরিণত করে আসছিল। ফলে ড্রেনটি বন্ধ হয়ে উজান দিকের শায়েস্তানগরের বাসা বাড়িতে অল্প বৃষ্টিতেই পানিতে সয়লাব হয়ে যেত। বিভিন্নভাবে উদ্যোগ নিয়েও ড্রেনে ময়লা আবর্জনা ফেলা বন্ধ করা সম্ভব হয়নি। এসব সমস্যার কথা উল্লেখ করে হবিগঞ্জ পৌর কর্তৃপক্ষ ড্রেনের উপর লীজ গ্রহীতার নিজ খরচে দোকান ঘর নির্মাণ করার শর্তে একটি দোকান ঘর ভাড়া দেয়ার জন্য ২০১৪ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর পৌর সচিব মোঃ ফয়েজ আহমেদ স্বাক্ষরিত একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন। গণবিজ্ঞপ্তির প্রেক্ষিতে আবেদনকারীদের মধ্য থেকে যাচাই বাছাই শেষে যশেরআব্দা এলাকার মোঃ শাহজাহান মিয়াকে লীজ গ্রহীতা হিসাবে ১০ বছরের জন্য নির্বাচন করে পৌর কর্তৃপক্ষ। শাহজাহান সেখানে নিজ খরচে দোকান ঘর নির্মাণ করেন এবং বিভিন্ন স্টেশনারী ও পত্রিকা বিক্রির জন্য দোকান ঘরটি ব্যবহার করে আসছিলেন।
এদিকে ড্রেনের মুখে ময়লা আবর্জনা ফেলতে না পারায় আশপাশের কয়েকটি প্রতিষ্ঠানসহ কিছু ব্যক্তির মারাত্বক সমস্যার কারণ হয়ে দাড়ায়। মামলায় উল্লেখ করা হয় পার্শ্ববর্তী মাদার কেয়ার ডায়গনষ্টিক সেন্টার থেকে সুযোগ সুবিধা নিয়ে পৌর কর্তৃপক্ষ শাহজাহান মিয়াকে উচ্ছেদের ষড়যন্ত্র করে শুরু করেন। এক পর্যায়ে পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র দিলীপ দাস ও সচিব ফয়েজ আহমেদ দোকান ঘর ছেড়ে দিতে বলেন শাহজাহান মিয়াকে। এবং শীঘ্রই তার দোকান ভোল্ডোজার দিয়ে গুড়িয়ে দেয়া হবে বলে হুমকি দেন। এতে বাধ্য হয়ে ২০১৯ সালের ১৬ জুন শাহজাহান মিয়া হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ১৪৪ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন।
এতে আরও ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন ভারপ্রাপ্ত মেয়র দিলীপ দাস ও সচিব ফয়েজ আহমেদ। এক পর্যায়ে কোনো ধরনের নোটিশ প্রদান ছাড়াই ২০১৯ সালের ৭ জুলাই পৌর সচিব ফয়েজ আহমদের নেতৃত্বে শাহজাহান মিয়ার দোকান ঘরটি ভোল্ডোজার গুড়িয়ে দেয়া হয়।
এদিকে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ১৪৪ ধারায় দায়েরকৃত মামলাটির তদন্তে সত্যতা প্রমাণিত হওয়ায় শাহজাহান মিয়ার পক্ষে আদেশ দিয়েছেন আদালত।
আদেশে উল্লেখ্য করা হয়-বাদীকে তার ক্ষতিপূরণের জন্য শর্ত মোতাবেক উপযুক্ত আদালতের স্মরণাপন্ন হতে। এরই প্রেক্ষিতে সম্প্রতি হবিগঞ্জের সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকার ক্ষতিপূরণ দাবী করে মামলাটি দায়ের করেন মোঃ শাহজাহান মিয়া।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com