বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১, ১১:২২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শায়েস্তাগঞ্জে মুক্তিপণের টাকা না পেয়ে স্কুল ছাত্র খুন ॥ আটক ৩ সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যার আজ ১৬ বছর ॥ সম্পন্ন হয়নি বিচার অনিশ্চয়তায় পরিবার লাখাইয়ে সোয়া ৫ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর করলেন এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জের করগাও মাঠে হাকিম ফাউন্ডেশনের ক্রিকেট টুর্নামেন্টে ওসমানি ক্রীড়া চক্র চ্যাম্পিয়ন ১নং উত্তর পূর্ব ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বানিয়াচঙ্গে এলাকাবাসীর সাথে যুবলীগ নেতা শাহিবুর রহমানের মতবিনিময় সভা হবিগঞ্জ শহরে ঠেকানো যাচ্ছে না দোকান চুরি আন্তঃজেলা মোটর সাইকেল চোরের গডফাদার মুন্না আটক চুনারুঘাটে অবৈধ পন্থায় মাটি-বালু উত্তোলন ॥ ১ জনকে ৬ মাসের কারাদন্ড হবিগঞ্জ শহরের কামড়াপুরে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে ক্ষতবিক্ষত শহরে চুরি প্রতিরোধে সভা
চারিনাও গ্রামের এক পাষন্ড মায়ের কান্ড ॥ পরকীয়া প্রেমের কারণে ৩ শিশু সন্তানকে হত্যার পরিকল্পনা

চারিনাও গ্রামের এক পাষন্ড মায়ের কান্ড ॥ পরকীয়া প্রেমের কারণে ৩ শিশু সন্তানকে হত্যার পরিকল্পনা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পরকীয়ার পথের কাটা ৩ সন্তানকে বিষ পানে হত্যার পরিকল্পনা করেছিল পাষন্ড মা ফাহিমা খাতুন (২৮)। তিনি হবিগঞ্জ সদর উপজেলার চারিনাও গ্রামের টমটম চালক সিরাজুল ইসলামের স্ত্রী। পরিকল্পনানুযায়ী পাষন্ড মায়ের বিষ মেশানো জুস পান করে এক শিশু প্রাণ হারায়। ভাগ্যক্রমে প্রানে বেচে যায় ২শিশু। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ তৌহিদুল ইসলামের আদালতে ১৬৪ ধারায় দেয়া স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দিতে পাষন্ড মা ফাহিমা শিশু হত্যার পরিকল্পনার কথা স্বীকার করে। এ ঘটনায় গতকাল রাতে ব্রিফিং করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম। আদালতের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, ওই গ্রামের টমটম চালক সিরাজুল ইসলামের স্ত্রী ফাহিমা তার স্বামী অভাব অনটনের কারণে প্রাণ কোম্পানীতে চাকরি করতো। ফাহিমার স্বামীর অভাব অনটনের দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে সে পাশের বাড়ির বিত্তশালী আকতারের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে। তাদের এ অবৈধ সম্পর্ককে বাস্তবে রূপ দিতে গিয়ে তারা দেখে যে তাদের পথের কাটা হচ্ছে ৩ সন্তান। তাই আক্তার ও ফাহিমা মিলে ৩ সন্তানকে হত্যা করার পরিকল্পনা করেন। পরিকল্পনানুযায়ী ২০১৯ সালের ১৭ অক্টোবর প্রেমিক আকতার বিষ কিনে এনে ফাহিমাকে দেয়। পরের দিন শুক্রবার দুপুরে সেই বিষ ফাহিমা জুসের সাথে মিশিয়ে তার তিন অবুঝ শিশুকে পান করায়। বিষক্রিয়া তারা ছটফট করতে থাকলে ওই দিন সন্ধ্যায় সদর হাসপাতালে নিয়ে এলে তার ৩য় সন্তান সাথী আক্তার (৬) কে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন। অপর দুই শিশু সন্তান তোফাজ্জল ইসলাম (১০) ও রবিউল ইসলাম (৭) কে সিলেট ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সৌভাগ্যক্রমে ওই দুই শিশু প্রাণে বেঁেচ যায়। এরপর তারা সকলেই স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে থাকে। এদিকে কিছুদিন যাবার পর আক্তার হোসেন ও ফাহিমার প্রেমের সম্পর্কটি এলাকায় প্রকাশ হতে থাকে। বিষয়টি নিয়ে কানাঘুষা শুরু হয়। এতে ফাহিমার স্বামীর সন্দেহ বাড়তে থাকলে সে নিশ্চিত হয় ফাহিমা ও আকতার মিলিতভাবেই তার শিশু সন্তানকে হত্যা করেছে। এ ঘটনায় সিরাজ বাদি হয়ে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা হলে সদর ওসি ফাহিমাকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নিলে সে প্রাথমিকভাবে হত্যার ঘটনা স্বীকার করে। প্রেস ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন সদর থানার ওসি মাসুক আলী ও অন্যান্য কর্মকর্তাগণ।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com