সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১, ১২:২৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বাগুনীপাড়ায় স্কুল ছাত্রীকে সুটকেসে ভরে দিনে দুপুরে টাকা স্বর্ণালংকার লুট চুনারুঘাটের বিভিন্ন গ্রামে সুপ্রীম সীড এর বাঁধা কপির বাম্পার ফলন চুনারুঘাটে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষ পুলিশসহ আহত ২০ ॥ আটক ২ আমার রাজনীতি সাধারণ মানুষের জন্য-আতাউর রহমান সেলিম কামাল হোসেন ও আক্রাম হোসেনের সৌজন্যে নবীগঞ্জের গুজাখাইরে ৩শ শীতার্থ মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে নবীগঞ্জে বিএনপির মাহফিল চুনারুঘাটে পুলিশের ন্যাক্কারজনক হামলা লাঠিচার্জ ও গ্রেফতারের ঘটনায় মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নিন্দা জামিআ আরাবিয়া দিনারপুর মাদ্রাসার ৬৭তম ইসলামী সম্মেলন অনুষ্ঠিত পইল গ্রামের ক্যান্সার আক্রান্ত বিলালকে তাসনুভা শামীম ফাউন্ডেশনের চিকিৎসা সহায়তা প্রদান বাহুবলে সরকারি খাল ভরাট করে মাটি পাচারের দায়ের ব্রিক ফিল্ড মালিককে অর্থদন্ড
শহরে পরিত্যক্ত খোয়াই নদীতে অবৈধ স্থাপনা

শহরে পরিত্যক্ত খোয়াই নদীতে অবৈধ স্থাপনা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরে পরিত্যাক্ত খোয়াই নদী থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের পর আবারও দখল করে বাড়িঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করছে প্রভাবশালী মহল। এ ছাড়া অনেক অবৈধ স্থাপনা এখনও রয়ে গেছে। এতে করে নানান ভোগান্তির শিকারও হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। সাবেক জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবির মুরাদ অভিযান চালিয়ে শহরের বিভিন্ন স্থানে খোয়াই নদীর পাড় থেকে শতাধিক বাড়িঘর, দোকানপাট উচ্ছেদ করে। এরপর তিনি বদলী হয়ে গেলে আবারও অবৈধ স্থাপনা গড়ে তোলা হয়। বর্তমান জেলা প্রশাসক কামরুল হাসানও চলতি বছর দুইবার অভিযান চালিয়ে শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেন। কিন্তু মহামারী করোনার কারণে উচ্ছেদ অভিযান বন্ধ হয়ে গেলে এসব জায়গায় আবারও স্থাপনা গড়ে তোলেছে প্রভাবশালী মহল। স্থানীয়রা জানান, শহরের অনন্তপুর থেকে হরিপুর পর্যন্ত পুরো মরা খোয়াই নদী দখল করে আবারও পাকা বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করা হয়েছে। এর মধ্যে অনেকেরই কোন বৈধ কাগজপত্র নেই। আর যাদের কাগজপত্র রয়েছে সেটাও পাকা ঘর কিংবা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান করার জন্য। অথচ দেখা যায় কোন কোন এলাকায় তিন তলা, চার তলা, ফ্ল্যাট বাড়ি।
সরেজমিনে দেখা যায়, অনন্তপুর, নিউ মুসলিম কোয়ার্টার, সিনেমা হল, জিলপার, উত্তর শ্যামলী, দক্ষিণ শ্যামলী হরিপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় খোয়াই নদীর মধ্যখানে এসব অবৈধ স্থাপনা। এসময় ওই এলাকার কয়েকজন মালিকের সাথে যোগাযোগ করলে তারা জানান, কেউ কেউ দখল কিনেছেন আবার কেউ লিজ নিয়েছেন। আবার কেউ এমনি আছেন। দীর্ঘ বছর ধরে এসব অবৈধ স্থাপনার মধ্যে বিদ্যুত ও গ্যাস সংযোগ রয়েছে। অনেক প্রভাবশালী মালিকরা এসব বিল্ডিংয়ের ভাড়া দিয়ে মাসে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। তাই স্থানীয়দের দাবি চলমান উচ্ছেদ অভিযানে খোয়াই নদীরও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে হবিগঞ্জ শহরকে জলাবদ্ধমুক্ত করা হউক। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান জানান, উচ্ছেদ অভিযান প্রক্রিয়াধীন আছে। করোনার কারণে বন্ধ ছিল। আবারও উচ্ছেদ অভিযান চলবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com