বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৫৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাটে খোয়াই নদী থেকে নির্বিচারে বালু উত্তোলন হুমকির মুখে প্রতিরক্ষা বাঁধ হবিগঞ্জ সদর কালনী গ্রামের দু’পক্ষের দীর্ঘ দিনের বিরোধ নিষ্পত্তি করে দিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম নবীগঞ্জে হত্যা মামলায় ১ ব্যক্তির যাবজ্জীবন জেল বানিয়াচংয়ে আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় ॥ বালুখেকো ও মাদক কারবারিদের প্রতি কঠোর হুশিয়ারি হবিগঞ্জে নতুন করে ৭ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত মুফতি আলা উদ্দীন জিহাদীর মুক্তির দাবিতে আলা হযরত ইমাম আহমদ রেযা (রাহ.) ফাউন্ডেশনের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল একাধিক ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও স্কুল-কলেজের অনুদানের চেক বিতরণ করলেন ডাঃ মুশফিক মুফতি আলা উদ্দীন জিহাদী’র মুক্তির দাবীতে পানিউম্দায় মানববন্ধন অনুষ্টিত হবিগঞ্জে বহিস্কৃত ৩ যুবলীগ কর্মীর আচরণে বিব্রত কেন্দ্রীয় সেক্রেটারী চুনারুঘাটে আদিবাসি স্কুল ছাত্রী ধর্ষণ মামলা দায়ের
আজমিরীগঞ্জ বিরাট কুশিয়ারা গুচ্ছ গ্রামের পুকুরের মাছ চুরির ঘটনা তদন্ত শুরু

আজমিরীগঞ্জ বিরাট কুশিয়ারা গুচ্ছ গ্রামের পুকুরের মাছ চুরির ঘটনা তদন্ত শুরু

শেখ আমির হামজা, আজমিরীগঞ্জ থেকে ॥ আজমিরীগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের বিরাট কুশিয়ারা গুচ্ছ গ্রামের সরকারী পুকুর থেকে প্রায় লক্ষাধিক টাকার মাছ ধরে বিক্রয় করে দিয়েছেন উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী প্রশাসন চোখঁ ফাকি দিয়ে।
মাছ ধরে বিক্রয়ের ব্যাপারে দৈনিক হবিগঞ্জ এক্সপ্রেস পত্রিকা সহ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রচার হলে উপজেলা প্রশাসন গতকাল রবিবার বিকাল ৩ টার সময় অভিযুক্ত উপজেলা প্রকল্প বাস্তায়ন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে তদন্তের জন্য বিরাট কুশিয়ারা গুচ্ছ গ্রামের প্রত্যক্ষদর্শীদের বক্তব্য ও ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেন উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার ভূমি উত্তম কুমার দাস। তদন্তের সময় গুচ্ছ গ্রামের নারী পুরুষ সহ শতাধিক মানুষ পি আই ও মোহাম্মদ আলীর মাছ চুরির বিষয়ে সাক্ষ্য দেন। এ বিষয়ে উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার উত্তম কুমার দাস সাংবাদিকদের জানায় মাছ ধরার ঘটনার সততা পেয়েছি, তদন্ত চলছে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে।
উল্লেখ্য, সদর ইউনিয়নে বিরাট কুশিয়ারা গুচ্ছ গ্রাম নির্মানের সময় প্রায় দেড় একর জায়গায় একটি পুকুর নির্মান করা হয়, বর্তমান মৌসুমে অকাল বন্যায় পুকুর টি ডুবে যায়, উক্ত পুকুরে গুচ্ছ গ্রামের অসহায় বসবাস কারী পরিবার মিলে মাছ আটকানোর জন্য কাটা দিয়ে রাখেন। এতে লোভ পড়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তায়ন কর্মকর্তা পিআইও মোহাম্মদ আলীর। তিনি এলাকার জেলেদের দিয়ে গতকাল শুক্রবার সারা রাত্র পুকুরে জাল দিয়ে মাছ ধরেন। এতে গুচ্ছ গ্রামের বাসিন্দারা বাধা দিলেও তাতে কোন কর্ণপাত করেননি পিআইও মোহাম্মদ আলী। তখন পিআইও মোহাম্মদ আলী বলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে তিনি মাছ ধরছেন। এ বিষয়ে এলাকাবাসী উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার ও সহকারী ভূমি কর্মকর্তা উত্তম কুমার দাসের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানায় মাছ ধরার বিষয়ে আমাকে বলেনি পিআইও। এ ব্যপারে এলাকায় ক্ষোভ দেখা দেয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com