শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:৩৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে মেডিক্যাল কলেজ, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা বাল্লা স্থল বন্দর ও হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ॥ জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ হবিগঞ্জের চিহ্নিত অপরাধী আশিকুর রহমান গ্রেফতার গ্রীসে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত ॥ নবীগঞ্জের মমিনের ঘর বাঁধার স্বপ্ন পূরণ হলনা আজমিরীগঞ্জের কর্মকর্তাবৃন্দের সাথে বিভাগীয় কমিশনারের মতবিনিময় নবীগঞ্জের করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১ জনের মৃত্যু ॥ আক্রান্ত ৩ জন মৃত্যুর পূর্ব মূর্হুত পর্যন্ত মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর কাজ করে যেতে চাই-সৈয়দ মোঃ ফয়সল সুইডেনে কুরআন অবমাননার প্রতিবাদে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মানববন্ধন নবীগঞ্জে করোনায় আক্রান্ত হয়ে হবিগঞ্জ এলজিইডির উপ-সহকারী কর্মকর্তার বাবা মারা গেছেন হাজী মনু মিয়া ও ওমর ফারুক আনসারীর মৃত্যুতে ইউকে কমিউনিটি ব্যক্তিবর্গের শোক মারামারি মামলায় সাংবাদিক শাওন খানের জামিন লাভ
আজ জাতীয় শোক দিবস

আজ জাতীয় শোক দিবস

এক্সপ্রেস রিপোর্ট ॥ আজ অশ্রুভেজা শোকাবহ ১৫ আগস্ট। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৭৫ সালের রক্তঝরা এই দিনে রাষ্ট্র হারায় তার স্থপতিকে। জাতি হারিয়েছে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালিকে আর আমরা হারিয়েছি আমাদের শ্রেষ্ঠ নেতাকে। অমানিশার অন্ধকারে ঢেকে যায় গোটা বাংলাদেশ। ভোরের আলো ফোটার আগেই ধানমন্ডি ৩২ নাম্বারে রচিত হয় ইতিহাসের কলঙ্কিত অধ্যায়।
পঁচাত্তরের এই দিনে শুধু তিনিই নন, স্ত্রী বেগম শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, তিন পুত্র- শেখ কামাল, শেখ জামাল ও ১০ বছরের শিশুপুত্র শেখ রাসেল, দুই পুত্রবধূ সুলতানা কামাল, রোজী জামাল ও সহোদরসহ মোট ২৬ জন আত্মীয়-পরিজন নির্মম হত্যাকান্ডের শিকার হন। একাত্তরের পঁচিশে মার্চ মধ্যরাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নৃশংস গণহত্যা ঘটনার সঙ্গে পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট মধ্যরাতের এই বর্বর হত্যাকান্ডই তুলনীয় হতে পারে। যেখানে নারী-শিশুসহ নির্বিচারে গণহত্যা চালানো হয়। মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনায় আস্থাহীন দেশীয় কিছু রাজনীতিকের পাশাপাশি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে বঙ্গবন্ধু নৃশংসভাবে শহীদ হন সেই কালরাতে। তবে প্রবাসে থাকায় প্রাণে রক্ষা পান বঙ্গবন্ধুর দুই মেয়ে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।
১৫ আগস্টের নির্মম সেই হত্যাযজ্ঞে আরো নিহত হন বঙ্গবন্ধুর ছোট ভাই পঙ্গু মুক্তিযোদ্ধা শেখ আবু নাসের, ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, তার ছেলে আরিফ সেরনিয়াবাত, মেয়ে বেবী সেরনিয়াবাত, শিশু পৌত্র সুকান্ত বাবু, বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে শেখ ফজলুল হক মনি, তার অন্তঃস্বত্ত্বা স্ত্রী আরজু মনি, নিকটাত্মীয় শহীদ সেরনিয়াবাত, আবদুল নঈম খান রিন্টু এবং বঙ্গবন্ধুর জীবন বাঁচাতে ছুটে আসা প্রেসিডেন্টের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা কর্মকর্তা কর্নেল জামিল উদ্দিন আহমেদসহ কয়েকজন নিরাপত্তা কর্মকর্তা ও কর্মচারী। জাতি আজ গভীর শোক ও শ্রদ্ধায় স্মরণ করবে এসব শহীদকে। সেদিন যা ঘটেছিল : বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘আমার সবচেয়ে বড় গুণ, আমি আমার দেশের মানুষকে ভালোবাসি। আর আমার দোষ, তাদের আমি বেশি ভালোবাসি।’ দেশ আর মানুষের প্রতি যার ছিল এই অগাধ ভালোবাসা; যার হাতে জ্বলেছে বাঙালি জাতির দুয়ারে উদ্দীপনার আলো; তাকেই নৃশংসভাবে গুলি করে হত্যা করে নিষ্ঠুর ঘাতকরা। অমানিশার অন্ধকারে ঢেকে দেয় গোটা বাংলাদেশ। ভোরের আলো ফোটার আগেই ধানমন্ডি ৩২ নাম্বারে রচিত হয় ইতিহাসের কলঙ্কিত অধ্যায়। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট অতিপ্রত্যুষে ধানমন্ডির ৩২ নাম্বারের বাসভবনে কাপুরুষোচিত আক্রমণ চালায় ঘাতক দল। সে নারকীয় হামলার পর দেখা গেছে, ভবনটির প্রতিটি তলার দেয়াল, জানালার কাচ, মেঝে ও ছাদে রক্ত, মগজ ও হাড়ের গুঁড়ো ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে। গুলির আঘাতে দেয়ালগুলোও ঝাঁঝরা হয়ে গেছে। চার পাশে রক্তের সাগরের মধ্যে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে ছিল ঘরের জিনিসপত্র। প্রথম তলার সিঁড়ির মাঝখানে নিথর পড়ে আছেন চেক লুঙ্গি ও সাদা পাঞ্জাবি পরিহিত স্বাধীনতার মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের লাশ। তার তলপেট ও বুক ছিল বুলেটে ঝাঁঝরা। পাশেই পড়ে ছিল তার ভাঙা চশমা ও অতিপ্রিয় তামাকের পাইপটি। অভ্যর্থনা কক্ষে শেখ কামাল, মূল বেডরুমের সামনে বেগম মুজিব, বেডরুমে সুলতানা কামাল, শেখ জামাল, রোজী জামাল, নিচতলার সিঁড়ি সংলগ্ন বাথরুমে শেখ নাসের এবং মূল বেডরুমে দুই ভাবীর ঠিক মাঝখানে বুলেটে ক্ষতবিক্ষত রক্তাক্ত অবস্থায় পড়েছিল ছোট্ট শিশু শেখ রাসেলের লাশ। লুঙ্গিতে জড়ানো শিশু রাসেলের রক্তভেজা লাশ দেখে খুনিদের প্রতি চরম ঘৃণা-ধিক্কার জানানোর ভাষা খুঁজে পান না মানবতাবাদী বিশ্বের কোনো মানুষ। এভাবেই নারকীয় পৈশাচিক হত্যাযজ্ঞের মাধ্যমে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়।
ইতিহাস বলছে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করার পরপরই স্বাধীনতা বিরোধী দেশীয় ও আন্তর্জাতিক চক্র বাঙালি জাতির সর্বশ্রেষ্ঠ অর্জন স্বাধীনতাকে ধ্বংস করার চেষ্টা চালায়। অপপ্রয়াস চালানো হয় বাঙালির বীরত্বগাথা ইতিহাস মুছে ফেলারও। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধ্বংস ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশকে সাম্প্রদায়িক বাংলাদেশে পরিণত করতে বারবার কাটাছেঁড়া করা হয় সংবিধানকে। যাতে রাষ্ট্রীয় চার মূলনীতি-ধর্মনিরপেক্ষতা, সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র ও জাতীয়তাবাদ সংবিধানে উপেক্ষিত হয়।
শুধু তাই নয়, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশে জনগণের ভোটে নির্বাচিত সরকার অপসারণ, হত্যা, ক্যু, ষড়যন্ত্রের রাজনীতিও চালু হয়। গণতন্ত্রকে পাঠানো হয় নির্বাসনে। চালু হয় সামরিক একনায়কতন্ত্র। সেই সাথে জাতির জনকের আত্মস্বীকৃত খুনি মোশতাক, ফারুক, রশিদচক্রকে হত্যাকান্ডের দায়ভার থেকে মুক্তি দিয়ে ইনডেমনিটি (দায়মুক্তি) অধ্যাদেশ জারি করা হয়। জিয়াউর রহমানের শাসনামলে সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনীর মাধ্যমে আইন করে খুনিদের আইনের হাত থেকে রক্ষা করা হয়। রুদ্ধ করে দেয়া হয় বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের পথ।
কিন্তু এতসব প্রতিকূলতার মধ্যেও দেশ-বিদেশে বঙ্গববন্ধু হত্যার বিচারের জোর দাবি ওঠে। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর ইনডেমনিটি আইন বাতিল করে বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচারের পথ উন্মুক্ত করে। বিচারে নিম্ন আদালত ঘাতকদের ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড প্রদান করেন। পরবর্তীতে নিম্ন আদালতের এ রায় হাইকোর্টও বহাল রাখেন। কিন্তু ২০০১ সালের পর সুপ্রিম কোর্টে বিচারক নিয়োগ না দেয়াসহ নানা কারণে বিচারের পথে বেশ কিছু প্রতিবন্ধকতা দেখা দেয়। ফলে রায় কার্যকরে বিলম্ব হতে থাকে। কিন্তু ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার গঠনের পর উচ্চ আদালত পর্যায়ের বিচার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার উদ্যোগ নেয়। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ হাইকোর্টের রায় বহাল রাখে। অবশেষে দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর ২০১০ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি ৫ খুনিকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রায় কার্যকর করা হয়। তবে এখনো দন্ডপ্রাপ্ত ৫ খুনি বিদেশে পালিয়ে আছে।
এদিকে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আজ সারাদেশে সাধারণ ছুটি থাকবে। সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ভবন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি ভবনগুলোতে অর্ধনমিত রাখা হবে জাতীয় পতাকা। এছাড়া মন্দির, গির্জা, প্যাগোডাসহ উপাসনালয়ে হবে বিশেষ প্রার্থনা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com