শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:৩০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে মেডিক্যাল কলেজ, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা বাল্লা স্থল বন্দর ও হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ॥ জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ হবিগঞ্জের চিহ্নিত অপরাধী আশিকুর রহমান গ্রেফতার গ্রীসে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত ॥ নবীগঞ্জের মমিনের ঘর বাঁধার স্বপ্ন পূরণ হলনা আজমিরীগঞ্জের কর্মকর্তাবৃন্দের সাথে বিভাগীয় কমিশনারের মতবিনিময় নবীগঞ্জের করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১ জনের মৃত্যু ॥ আক্রান্ত ৩ জন মৃত্যুর পূর্ব মূর্হুত পর্যন্ত মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর কাজ করে যেতে চাই-সৈয়দ মোঃ ফয়সল সুইডেনে কুরআন অবমাননার প্রতিবাদে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মানববন্ধন নবীগঞ্জে করোনায় আক্রান্ত হয়ে হবিগঞ্জ এলজিইডির উপ-সহকারী কর্মকর্তার বাবা মারা গেছেন হাজী মনু মিয়া ও ওমর ফারুক আনসারীর মৃত্যুতে ইউকে কমিউনিটি ব্যক্তিবর্গের শোক মারামারি মামলায় সাংবাদিক শাওন খানের জামিন লাভ
হলদারপুরের কামাল হত্যাকান্ড নেপথ্য নায়ক চেয়ারম্যান হাবিব ॥ গ্র্রেফতার ১৫ ॥ ৬ জনের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি

হলদারপুরের কামাল হত্যাকান্ড নেপথ্য নায়ক চেয়ারম্যান হাবিব ॥ গ্র্রেফতার ১৫ ॥ ৬ জনের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি

কিবরিয়া চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ চাচাতো ভাই খুনের মামলায় স্বাক্ষী হওয়ায় এবং মামলা পরিচালনা করার কারণেই মূলত বানিয়াচং উপজেলার বরইউড়ি ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমানের নির্দেশে আওয়ামী লীগ নেতা কামাল মিয়াকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ মামলায় ১৫জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তন্মধ্যে ৬ জন আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান করেছে। গতকাল বুধবার দুপুরে হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা নিজ কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান। এ সময় বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ শেখ সেলিম উপস্থিত ছিলেন। নিহত কামাল মিয়া বানিয়াচং উপজেলার হলদারপুর গ্রামের মৃত মন্নাফ মিয়ার ছেলে। তিনি বরইউড়ি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন।
পুলিশ সুপার জানান-২০১৭ সালের নিহত কামাল মিয়ার চাচাতো ভাই ইসলাম উদ্দিন খুন হন। এ খুনের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় বলা হয় ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমানের নেতৃত্বে তার অনুসারিরা হত্যাকান্ডটি ঘটিয়েছে। নিহত কামাল মিয়া ওই মামলায় স্বাক্ষি ও মামলা পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন। মূলত এ বিষয় নিয়েই কামাল মিয়ার সাথে ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমানের বিরোধ সৃষ্টি হয়। সম্প্রতি এ বিরোধ তীব্র আকার ধারণ করে। এক পর্যায়ে কামাল মিয়াকে খুনের পরিকল্পনা করেন ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান। এরই পরিপ্রেক্ষিতে বেশ কয়েকবার ইউপি চেয়ারম্যমান হাবিব তার সহযোগিদের নিয়ে শিবগঞ্জ বাজারে নিজের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে বসে কামাল মিয়াকে খুনের নকশা আঁকেন। এমনকি কে হত্যাকান্ডে অংশ নেবে, আর কে পাহারা দেবে সে দিকনির্দেশনাও চেয়ারম্যান নিজেই দেন।
ঘটনার দিন ২২ জুলাই সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিটে শিবগঞ্জ বাজারের পাশে অবস্থিত প্রফেসর ডা. এমএ খালেক স্মৃতি ফাউন্ডেশন হাসপাতালের সামনে চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমানের নির্দেশে রফিক, ফরিদ, জুনেদ, রুমেল, এবাদুর ও সাইফুল বিভিন্ন অস্ত্র নিয়ে কামালের পথরোধ করে এবং তাকে কুপিয়ে জখম করে। এ সময় পাহারাদারের দায়িত্ব পালন করে ফরিদ, মধু মিয়া, পাভেল, আবিদ মিয়াসহ কয়েকজন। কামাল মিয়াকে কুপিয়ে পালিয়ে যায় তারা।
স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে প্রথমে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে যান। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট এমএজি ওসমানি মেডিকেল কলেজে প্রেরণ করেন। সেখানে চিকিৎসাধিন অবস্থায় কামাল মারা যান।
পুলিশ সুপার আরও জানান-কামাল মিয়াকে মারাত্মকভাবে জখম করা হয়েছিল। তার শরীরে ৩০/৩৩টি জখম করা হয়। এ ঘটনায় কামাল মিয়ার স্ত্রী রাজনা আক্তার বাদি হয়ে গত ২৫ জুলাই ২৮ জনের নাম উল্লেখ করে ৮/৯জন অজ্ঞাতনামা লোকের বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে ১৫জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এরা হচ্ছে-হবিবুল, সাইফুল, মুকিত মিয়া, সুজন মিয়া, জুয়েল মিয়া, রুয়েল মিয়া, রাহেল মিয়া, নাঈম মিয়া, ফজলু মিয়া, কালা মিয়া (অযুদ), নুরুল ইসলাম, আলী আহমেদ জুনেদ, ফরিদ মিয়া, রুমেল মিয়া ও এবাদুর মিয়া। তন্মমধ্যে হবিবুল ২৬ জুলাই, সাইফুল ২ আগষ্ট এবং আলী আহমেদ জুনেদ, ফরিদ মিয়া, রুমেল মিয়া ও এবাদুর মিয়া ৪ আগষ্ট ঘটনার সাথে জড়িত থাকার দায় স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমুরক জবানবন্দি প্রদান করে। হবিগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলামের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com