রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০৩:০৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বানিয়াচংয়ে মাছ ধরা নিয়ে দুই গ্রামবাসীর ভয়াবহ সংঘর্ষ নবীগঞ্জে রাতে নিখোঁজ ব্যক্তির সকালে ক্ষতবিক্ষত দেহ উদ্ধার বঙ্গমাতা ছিলেন বাঙালির মুক্তিসংগ্রামের অন্যতম অগ্রদূত ॥ এমপি আবু জাহির শহরে টমটমসহ যানবাহনের ডাবল ভাড়া কমানোর দাবি নবীগঞ্জে দুইটি বিদ্যালয়ের নাম নিয়ে হাস্যরস ॥ গন্ধা গ্রামের স্কুলের নাম ‘গনজা স:প্রা:বি’ খনকারিপাড়া গ্রামে ‘ঋণকারীপাড়া স:প্রা:বি’ বঙ্গমাতার জন্ম দিবসে হবিগঞ্জ জেলা আ.লীগের মিলাদ ও দোয়া মাহফিল বাহুবলে গৃহবধুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন এর ২৪তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণসভা নবীগঞ্জের দিলীপ ভট্টাচার্য্যের মৃত্যুতে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আ.লীগ সাধারণ সম্পাদকের শোক বাইপাস থেকে মোটর সাইকেলসহ এক মাদক বিক্রেতা আটক
৮৫টি স্কুল সংস্কার কাজ হয়নি নবীগঞ্জে বরাদ্দকৃত ১ কোটি ৫৭ লাখ টাকা ফেরৎ

৮৫টি স্কুল সংস্কার কাজ হয়নি নবীগঞ্জে বরাদ্দকৃত ১ কোটি ৫৭ লাখ টাকা ফেরৎ

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার ৮৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংস্কারের ১ কোটি ৫৭ ল টাকা ফেরত গেছে। এ ঘটনায় তোলপাড় চলছে। শিক্ষকদের মধ্যেও চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। জেলাজুড়ে। আলোচিত ঘটনায় নবীগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিসার কাজী সাইফুল ইসলামের উদাসীনতা ও অনৈতিক মানসিকতাকে দায়ী করা হচ্ছে। এতগুলো প্রতিষ্ঠানের টাকা ফেরতের ঘটনাকে নজিরবিহীন হিসেবে আখ্যায়িত করছেন শিক্ষক নেতৃবৃন্দ। এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষকদের কারন দর্শানোর নোটিশ নিয়ে উত্তেজনা বিরাজ করছে। গত ৬ জুলাই উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ওই নোটিশ জারী করেন।
উপজেলা শিক্ষা অফিস ও দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, গত বছরের ডিসেম্বর মাসে ৫৯টি বিদ্যালয়ে ২ লক্ষ এবং ২৬ টি বিদ্যালয়ে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা মেরামত কাজের জন্য অনুমোদিত হয়। বিদ্যালয়গুলোর অনুকূলে বরাদ্দ নিয়ে লুকোচুরি খেলায় মেতে ওঠে উপজেলা শিক্ষা অফিস। ৬ মাস পর উপজেলা শিক্ষা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুল হক চৌধুরী সেলিম অবগত হন। ২১ জুন এনিয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। শিক্ষকদের অগ্রিম ভিত্তিতে কার্যসম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বিধি মোতাবেক উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী কর্তৃক কাজের অগ্রগতি নিয়ে প্রত্যয়ন নিয়ে বিপত্তি দেখা দেয়। কাজের অগ্রগতি ও প্রত্যয়ন ছাড়া টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা নিশিকান্ত দেবনাথ। তৈরি হয় জটিলতা। এনিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত কুমার পাল কয়েকদফা বৈঠক করেও সমাধানে ব্যর্থ হন।
মাত্র ৬টি বিদ্যালয় কার্য সম্পাদন করে অর্থ উত্তোলন করে। ৭৯ টি বিদ্যালয়ের বরাদ্দকৃত অর্থের বরাদ্দ বাতিল হয়। অনেক শিক্ষক আংশিক কাজ করে ক্ষতিগ্রস্ত হন। অনেক স্থানে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সাথে শিক্ষকদের মতবিরোধ দেখা দেয়। এছাড়া গত ডিসেম্বর মাসে আসা বরাদ্দ নিয়ে রহস্যজনক নিরবতা এবং শেষ মুহূর্তে বরাদ্দকৃত অর্থ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার অনুকূলে নেয়ার প্রচেষ্টাকে কমিশন বাণিজ্যের পরিকল্পনা হিসেবে অভিহিত করা হয়েছে। এঘটনায় কোন শিক্ষককে ফাঁসানোর চেষ্টা হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেয়া হয়।
এ প্রসঙ্গে নবীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ও শিক্ষা কমিটির সভাপতি ফজলুল হক চৌধুরী সেলিম বলেন, রহস্যজনক কারণে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শেষ মুহূর্তে বরাদ্দের ঘটনা অবহিত করেন। তাৎক্ষণিক উদ্যোগ নিয়েও আইনি জটিলতায় টাকা ফেরত যায়। দুরভিসন্ধিমূলক ঘটনায় দায়ভার অবশ্যই শিক্ষা কর্মকর্তাকে নিতে হবে।
এ ব্যাপারে শিক্ষা অফিসার কাজী সাইফুল ইসলামের সাথে একাধিকবার মোবাইল ফোনে ফোন দেয়া হয়। তিনি রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com