সোমবার, ০৩ অগাস্ট ২০২০, ০৭:৪৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আগামীকাল পবিত্র ঈদ উল-আযহা হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত ॥ মাধবপুর ছাত্রলীগ কর্মী জাপ্পিকে বহিস্কার যুক্তরাষ্ট্র হবিগঞ্জ সদর সমিতির বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে এমপি আবু জাহির ॥ হবিগঞ্জকে শিক্ষানগরী হিসেবে পরিণত করতে চাই নবীগঞ্জে ঈদের জামাত হবে মসজিদে মসজিদে ভৈরবে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত আজমিরীগঞ্জের কৃষি কর্মকর্তার মৃত্যু হোয়াইট রোজ সমাজ কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে ঈদ খাদ্যসামগ্রী, নগদ অর্থ ও শাড়ি-লুঙ্গী প্রদান হবিগঞ্জ শহরের অনন্তপুরে ভূয়া আইনজীবি ও বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ ৩ ব্যক্তি আটক বাহুবল মডেল থানার সীমানা প্রাচীর উঁচুকরণ ও কাঁটাতার স্থাপনের উদ্বোধন ॥ হবিগঞ্জকে মাদকমুক্ত করতে পুলিশ সুপারের যুদ্ধ ঘোষণা জেলা সচেতন নাগরিক কমিটির উদ্যোগে মাস্ক-সাবান ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ নবীগঞ্জে করোনা জয়ী প্যানেল মেয়র-১ সালাম মানবতার সেবায় দু:স্থদের পাশে
করোনায় স্থান বদল ॥ ঢাকা ফেরত নিপেন্দ্র গ্রামের বাজারে এখন ভ্রাম্যমাণ চা বিক্রেতা

করোনায় স্থান বদল ॥ ঢাকা ফেরত নিপেন্দ্র গ্রামের বাজারে এখন ভ্রাম্যমাণ চা বিক্রেতা

আবুল কাসেম, লাখাই থেকে ॥ বৈশি^ক মহামারি করোনা ভাইরাসের কারনে অনেকেই হয়ে পড়েছে কর্মহীন। বন্ধ হয়ে পড়েছে রোজিরোজগার। কিভাবে চলবে তাঁদের পরিবার সংসার এ নিয়ে চিন্তার ভাজ পরেছে। এমনি একজন চা বিক্রেতা নিপেন্দ্র। ভালই চলছিল তার চার সদস্য বিশিষ্ট পরিবারটি। তিনি থাকতেন ঢাকায়। করতেন চা বিক্রি। যা ইনকাম হত তা দিয়ে নিজে ও পরিবার চলত। হঠাৎ করে করোনা ভাইরাস এসে সব কিছু যেন শেষ করে দিল তার। কর্মহীন হয়ে পরেন তিনি। অনেক চিন্তা ও কষ্টে দিন যায়। ঢাকা শহর ছেড়ে চলে আসেন গ্রামের বাড়ি হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার পূর্ব বুল্লা গ্রামে। এসে শুরু করেন স্থানীয় বুল্লা বাজারে ভ্রাম্যমাণ চা বিক্রি। কথা হয় নিপেন্দ্রর সাথে। তিনি জানান, আমি থাকতাম ঢাকায়। করতাম চা বিক্রি। যা রোজি হত তা দিয়ে নিজে ও পরিবার চলত। এখন করোনা ভাইরাস আসার কারনে ঢাকায় তেমন একটা রোজি রোজগার হয় না। বাসা ভাড়া ও নিজে চলা অসম্ভব হয়ে পরে। তাই চলে আসলাম গ্রামে। এসে কোন রোজি রোজগার পথ না পেয়ে এখন বাজারে ভ্রাম্যমাণ চা বিক্রি করি। প্রতিদিন ৮০ থেকে ৯০ কাপ চা বিক্রি করে একশ থেকে দেড়শ টাকা যা-ই পাই তা দিয়ে কোন রকম সংসার ও পরিবার চলে। ওই বাজারের আরেক ভ্রাম্যমাণ চা বিক্রেতা নান্টু সাথে আলাপ কালে তিনি এ প্রতিনিধিকে বলেন বাজারের একটি মিষ্টির দোকানে তিনি শ্রমিক ছিলেন। করোনাকালে দোকান মালিকের পুষিয়ে উঠার মত বেচা বিক্রি না হওয়ায় তিনি এখান থেকে সরে আসছেন। পরে কোন উপায় না পেয়ে পেট চালানোর তাগিদে ভ্রাম্যমাণ চা বিক্রি করে আসছেন তিনি। নিপেন্দ্র ও নান্টুর মত আরো অনেকেই এ উপজেলায় বিভিন্ন হাট বাজারে করোনাকালে ভ্রাম্যমাণ চা বিক্রি করে খুবই কষ্ট করে দিন যাপন করছেন। খেটে খাওয়া এই মানুষেরা ক্রান্তিকালে কষ্ট করে দিন কাটাচ্ছেন। এখনো ঠিকমতো আয় করতে পারছেন না, কবে পরি¯ি’তি স্বাভাবিক হবে, সে নিয়েও রয়েছে তাদের মাঝে অনিশ্চয়তা। তবু প্রত্যেকেই মনে করেন। এই অসময় কেটে যাবে। তাঁরাও স্বাভাবিক জীবন ফিরে পাবেন। আয়ও বাড়বে। অল্পে তুষ্ট এই মানুষদের কথায় তাই দুঃসময়ের দুঃখগাথার সঙ্গে ফুটে ওঠবে সুদিনের প্রত্যাশা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com