শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:৩৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে ৬ হাজার কেজি নিষিদ্ধ পলিথিন জব্দ ॥ ১ লাখ টাকা জরিমানা বানিয়াচংয়ে ইউএনও’র হস্তক্ষেপে দখলমুক্ত হল সরকারী জায়গা বিদ্যুৎ বিভাগের সহকারী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে অভিযোগ মুফতি আলাউদ্দীন জিহাদীর মুক্তির দাবিতে হবিগঞ্জে আহলে সুন্নাতের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ ভাষা সৈনিক আফরোজ বখত এর মৃত্যুতে ডাঃ মুশফিক চৌধুরীর শোক হবিগঞ্জে নতুন করে ৫ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবিগঞ্জ পৌরসভার মালিকানাধীন ভূমি কৌশলে অবৈধ দখল হয়ে যাচ্ছে জেলা তথ্য অফিসের আয়োজনে মাধবপুর ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা শহরের পানি ট্যাংকি এলাকা থেকে মাদক বিক্রেতা আটক সৈয়দ আফরোজ বখত এর মৃত্যুতে হবিগঞ্জ গণফোরাম সভাপতির শোক
নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজরে রূপচাঁদা মাছ বলে পিরানহা বিক্রি হচ্ছে

নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজরে রূপচাঁদা মাছ বলে পিরানহা বিক্রি হচ্ছে

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ বাংলাদেশের জলজ পরিবেশের সঙ্গে পিরানহা ও আফ্রিকান মাগুর মাছ সংগতিপূর্ণ নয়। এ মাছ গুলো রাক্ষুস স্বভাবের। অন্য মাছ ও জলজ প্রাণীদের খেয়ে ফেলে। দেশীয় প্রজাতির মাছ তথা জীববৈচিত্রের জন্য এগুলো হুমকিস্বরূপ। এ কারণে সরকার ও মৎস্য অধিদপ্তর আফ্রিকান মাগুর ও পিরানহা মাছের পোনা উৎপাদন, চাষ, উৎপাদন, বংশ বৃদ্ধিকরণ, বাজারে ক্রয়-বিক্রয় সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করেছেন। গত ২০০৮ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে ২০১৪ সালের জুন মাসে আফ্রিকান মাগুরের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।
মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে আরো জানা যায়, নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ময়মনসিংহের ত্রিশাল, ভালুকা ও কুমিল্লার বিভিন্ন অঞ্চলের ডোবা বা পুকুরে পিরানহার উৎপাদন ও চাষ করা হচ্ছে। আর আফ্রিকান মাগুরের চাষ হচ্ছে ঢাকার কামরাঙ্গীরচর ও নারায়ণগঞ্জের অব্যবহৃত পরিত্যক্ত ডোবা ও নালায়। বিক্রির উপযুক্ত হলে ট্রাক যোগে এসব মাছ দেশের বিভিন্ন মাছের আড়ৎ ও বাজারে পাঠানো হয়। এ রাক্ষুসী পিরানহা বাজার ভেদে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা কেজি ও আফ্রিকান মাগুর বাজার ভেদে ১২০ তেকে ১৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। বিভিন্ন বাজার থেকে মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত অঞ্চলের বাজার গুলোতে কিছু অসাধু বিক্রেতা এসব মাছ বিক্রি করছেন। আর এই মাছে ক্রেতারা হচ্ছেন সাধারণ ও নিম্নমধ্যবিত্তরা। দেশি বা থাই রুপচাঁদা অথবা ‘সামুদ্রিক চান্দা’ নামে পিরানহা আর দেশি মাগুর বলে ছোট আকারের আফ্রিকান মাগুর বিক্রি করা হচ্ছে।
নবীগঞ্জ উপজেলার কয়েকটি বাজারে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়। পিরানহা মাছের সরবরাহ প্রতিটি বাজারে কম বেশ বিক্রয় হচ্ছে। পিরানহা মাছের প্রতিসাদক সম্পর্কে সাধারন মানুষ কিছুই জানেন না। ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আউশকান্দি-হীরাগঞ্জ বাজার, বাংলা বাজার, সৈয়দপুর বাজার, ইনাতগঞ্জ, শেরপুর, নবীগঞ্জ সহ আরো অনেকে হাট বাজারে মাছ বিক্রেতারা দেদারছে বিক্রয় করে আসছেন। এ ব্যাপারে প্রশাসনের কোন প্রদক্ষেপ নেই। এই মাছের কেজি কত জানতে চাইলে মাছ বিক্রেতারা বলেন, ২০০ টাকা কেজি। এতে কেউ ১৭০, ১৮০ ও ১৫০ টাকায় মাছ কিনে নিয়ে যাচ্ছেন।
এ নিয়ে কয়েকজন মাছ বিক্রেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেল, এই এলাকায় কয়েক মাস ধরে প্রায়ই আফ্রিকান মাগুর ও পিরানহা মাছ আমরা বিক্রিয় করছি। দাম কম বলে নিম্ন আয়ের মানুষ এসব মাছ কিনেছেন। কোন আড়ৎ থেকে এসব মাছ আনছেন বলে জিজ্ঞাস করলে তারা বলে শেরপুর আড়ৎ থেকে তারা এ মাছগুলো আনেন।
পিরানহা মাছে খেলে বা বিক্রয় করলে কি হয় তা তাদের জানা নেই! এ মাছ গুলো রুপচাঁদা মাছের মতো হলেও এই মাছের নাম হলো পিরানহা। সরকার পিরানহা ও আফ্রিকান মাগুরের উৎপাদন ও বিক্রি নিষিদ্ধ করেছেন। দেশের বিভিন্ন বাজারে এই নিষিদ্ধ মাছ প্রশ্যেই বিক্রি হচ্ছে। মঙ্গলবার দুপুরে মাছ বাজারের কয়েকজন বিক্রেতার সাথে আলাপকালে তারা জানান, এই মাছ বিক্রয়ে যে নিষেধ, তা আমরা জানিনা। তবে, আশপাশের মাছ বিক্রেতা সহ আরো অনেকেই বলেন, প্রায় দিনই বিভিন্ন হাট বাজারে এই পিরানহা মাছ বিক্রিয় হচ্ছে। বিক্রেতা বলেন, এটা যে ক্ষতিকর তা আমার জানা নেই। আজ জানলাম আপনার কাছ থেকে। আমরা আর বিক্রয় করবনা।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিৎ কুমার পাল এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমি দেখতেছি। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ আছাদ উল্লাহ’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এই মাছ অনেক ক্ষতিকর। তা অনেকেই জানেনা। যদি কোন খবর পাই পিরানহা মাছ কোন বাজারে বা আড়তে বিক্রয় হচ্ছে তাহলে আমরা তাৎক্ষনিক ভাবে ব্যবস্থা গ্রহন করব।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com