মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ১১:৫৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ফেইসবুকে সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী প্রচারণা ॥ লাখাইর সাবেক কৃষি কর্মকর্তা আহসান হাবিবের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন নবীগঞ্জের চেয়ারম্যান মুকুলের বরখাস্তের আদেশ বহাল সমৃদ্ধ দেশ গড়তে যুব সমাজকে কাজে লাগাতে হবে-এমপি আবু জাহির চাঁদাবাজির মামলায় স্বাক্ষী হওয়ায় বাস শ্রমিককে হুমকির অভিযোগ দুই লন্ডনীর বিরুদ্ধে মামলা বিএনপি নেতা নাজমুল হুদা এখন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা পইলে সৈয়দ আহমদুল হক ফুটবল টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনাল শুরু পাঁচপাড়িয়া গ্রামে মরহুম আরফান আলী ব্যাডমিন্টন টুর্ণামেন্ট ও আলোচনা সভা বানিয়াচঙ্গের হিয়ালায় জুয়া খেলার অপরাধে ৪ জনের প্রত্যেককে ১৫ দিন করে বিনাশ্রম কারাদ- প্রদান নবীগঞ্জের বাউসি গ্রামে দুর্বৃত্তের হামলায় রবি পরিবার গৃহহারা হবিগঞ্জ জেলা ট্রাক ও ট্যাংকলড়ী শ্রমিক ইউনিয়ন নির্বাচনে মনোনয়ন ফরম বিতরণ
একজন করোনা যোদ্ধা অ্যাম্বুলেন্স চালক আব্দুল জলিল

একজন করোনা যোদ্ধা অ্যাম্বুলেন্স চালক আব্দুল জলিল

কিবরিয়া চৌধুরী ॥ নবীগঞ্জ-বাহুবল দুই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা রোগীদের জন্য একটি অ্যাম্বুলেন্স উপহার দেন হবিগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য গাজী মোহাম্মদ শাহনওয়াজ (মিলাদ)। সেদিন থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ২১ জন রোগীকে অ্যাম্বুলেন্সে বহন করে হাসপাতালে এবং বাড়িতে পৌছে দিয়েছেন চালক আব্দুল জলিল। এবং সংগ্রহ করা নমুনা পৌঁছে দিচ্ছেন সিলেটে। সে নবীগঞ্জ উপজেলার নাদামপুর গ্রামে মৃত মোঃ হাসু মিয়া ছেলে।
এরপর আনুসাঙ্গিক কাজ সেরে সেখান থেকে বের হয়েই অ্যাম্বুলেন্সেই ঘুমিয়ে রাত কাটিয়ে দেন। মাঝে মধ্যে একটু বের হয়ে হাঁটাহাঁটি করেন বলে জানান চালক আব্দুল জলিল। সকাল হলে ফ্রেশ হয়ে আবার সাড়ে ৮টা থেকে ৯টার মধ্যে হাসপাতালে পৌঁছেন।
হাসপাতালের পাশেই নিজের বাড়ি। তবুও পরিবারের সঙ্গে না থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অ্যাম্বুলেন্স গ্যারেজের দোতলার একটি রুমে থাকছেন তিনি।
তিনি আরো জানান, এই করোনা দুর্যোগে যেকোনো হাসপাতালে তাকে দায়িত্ব দেয়া হলে তিনি পালন করবেন। বেশির ভাগ মানুষ যখন করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত, কেউ আক্রান্ত হলেই দূরে সরে যাচ্ছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেরই অন্যরা যখন নমুনা সংগ্রহে রাজি হচ্ছেন না তখন তিনি করোনা আক্রান্তদেরও একেবারে কাছে গিয়ে সেবা দিচ্ছেন।
আব্দুল জলিল জানান, রোগীদের একেবারে কাছে গিয়ে সেবা দেয়ায় তার করোনা নমুনা পাঠানো হয়েছে। ‘আল্লাহর রহমতে নেগেটিভ রিপোর্ট এসেছে।’
এবিষয়ে জলিল বলেন, প্রথম যেদিন শুনলেন নমুনা সংগ্রহের কাজ করতে হবে, কী মনে হলো? বললেন, ছোট বেলা থেকেই আমি একটু সাহসী। আল্লাহর ইচ্ছায় আমার কোনো সমস্যা হবেনা। নিজের মনেও আত্মবিশ্বাস আছে আমি যেহেতু কোনো অন্যায় করিনি। মানুষের সেবার উদ্দেশ্যে যাচ্ছি। তখন আমার কিছু হবে না।
প্রথমদিনের পর আর অবকাশ মেলেনি জলিলের। প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত কাজের মধ্যেই থাকেন। বললেন, রাতে ঘুম হতে চায় না। করোনার বিভীষিকা, রোগীদের আতঙ্ক, অস্থিরতা আর সব সময় মৃত্যু ভয়ে কাতর মানুষের মুখগুলো চোখের সামনে ভাসে। ভীষণ কষ্ট লাগে, মনটা বিষন্ন হয়ে ওঠে এসব মানুষের দেখে।
তিনি জানান, বাড়ি ছেড়ে হাসপাতালে থাকছেন, কবে বাড়িতে যেতে পারবেন তারও ঠিক নেই। পরিবারের সদস্যদের জন্যও মনটা কাঁদে। তবে সবচেয়ে খারাপ লাগে দিনশেষে যখন চিকিৎসক ও নার্সদেরই ধন্যবাদ জানানো হয়। আমার মত বা অন্য ছোট পদগুলিতে যারা আছেন, এই যেমন প্রতিদিন সকালে কিটবক্সগুলি একজন সুইপার জীবাণুমুক্ত করে দেন। এই করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে তারও তো ভূমিকা রয়েছে।
শুধুমাত্র চিকিৎসক-নার্সদের কথা না বলে যদি বলা হতো স্বাস্থ্যকর্মী তাহলেও আমরা শান্তি পেতাম।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আব্দুস সামাদ বলেন, আব্দুল জলিল অনেক বুদ্ধি সম্পন্ন ছেলে। সে অন্যদের মত কাজ দেখে ভয় পায়না। তাকে নমুনা নিয়ে বার বার সিলেট পাঠানো হচ্ছে। এই করোনার সময়ে সে নবীগঞ্জ বাহুবল তথা হবিগঞ্জ জেলা স্বাস্থ্য বিভাগে যে সার্ভিস দিচ্ছে তাতে জলিলকে ধন্যবাদ দিলেও ছোট করা হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com