মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০৯:৪০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
জেলার বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান ॥ সাড়ে ৯৭ হাজার টাকা অর্থদন্ড আজমিরীগঞ্জে প্রশাসনের অভিযানে ২টি ড্রেজার মেশিন ও পাইপ ধ্বংস হবিগঞ্জে ২১ কার্যদিবসে ২০৫ মামলা নিষ্পত্তির রেকর্ড লাখাই উপজেলায় বিনামূল্যে সার-বীজ বিতরণ করলেন এমপি আবু জাহির টমটম ॥ মাত্র ৫ টাকার জন্য বৃদ্ধকে ৩০ মিনিট আটকে রাখলো চালক শায়েস্তাগঞ্জে এসডিজি বাস্তবায়নে কর্মশালা বিজয় দিবস উপলক্ষে হবিগঞ্জ জেলা আ.লীগের মাসব্যাপী কর্মসুচি ঘোষণা মাধবপুরে ডায়াগনস্টিককে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা মেয়র প্রার্থী নিলাদ্রী টিটু’র সমর্থনে ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভা শহরের হরিপুরে ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক
কংগ্রেসের করুণ পরাজয়ের যত কারণ

কংগ্রেসের করুণ পরাজয়ের যত কারণ

এক্সপ্রেস ডেস্ক ॥ টানা ১০ বছরের কংগ্রেস শাসনামলের অবসানই ঘটেনি, ভারতের লোকসভা নির্বাচনে ৬০ বছরের রাজনৈতিক ইতিহাসের সবচেয়ে করুণ পরাজয় দেখেছে দলটি ও গান্ধী পরিবার। গান্ধী পরিবারের দুই পুত্রবধূ ও দুই সন্তান দুই শিবির থেকে জিতলেও কংগ্রেসের ভরাডুবির কারণ খুঁজছেন নেতা-কর্মীরা। রাজনৈতিক বিশ্লেষক আর পর্যবেক্ষকদের হিসাবের খাতা খুলে গেছে। যারা পরিবর্তনের হাওয়ায় বিশ্বাসী ছিলেন তারও বুঝতে পারেননি কংগ্রেস সেনাপতি রাহুল গান্ধীর কপালে এমন পরাজয় ঘটবে। নরেন্দ্র মোদি ঝড় বা সুনামিতে পশ্চিমবাংলায় ঘাসফুল ফুটলেও বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশ ধর্মনিরপেক্ষ ভারতের বুকজুড়ে আরএসএসের হিন্দুত্ববাদের গর্ভ থেকে জন্ম নেওয়া বিজেপির পদ্মফুল ফুটে গেছে।
কংগ্রেসের পাঞ্জা অতিশয় দুর্বল হয়ে পড়ায় কার্যত ভোটের ময়দানে লড়াই হয়নি। যেন নরেন্দ্র মোদি এলেন, দেখলেন আর দিল্লি জয় করলেন। গুজরাট দাঙ্গার কারণে পশ্চিমা দুনিয়া নরেন্দ্র মোদিকে বাঁকা চোখেই দেখেছিল। প্রভাবশালী যুক্তরাষ্ট্র তাকে ভিসা পর্যন্ত দেয়নি। কিন্তু কংগ্রেসের ব্যর্থতার পাল্লা এতটাই ভারী হয়ে উঠেছিল যে বিজেপি নয়, নরেন্দ্র মোদিকেই দিল্লির মসনদের চেয়ার তুলে দিতে হলো।
হিন্দুত্ববাদের অহঙ্কার থেকে নরেন্দ্র মোদি সরে দাঁড়াননি। আরএসএস বা রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের আঁতুড় ঘর থেকেও নড়েননি। কিন্তু এক বছর আগে থেকেই তিনি কোমর বেঁধে নেমেছিলেন ভোটের লড়াইয়ে।
গুজরাটের উন্নয়ন মডেল সামনে নিয়ে ভারতবাসীকে বলেছিলেন, আমাকে শক্তিশালী সরকার দিন, আমি আপনাদের শক্তিশালী ভারত দেব। মা-বেটার শাসন বলে কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী ও ভোটযুদ্ধের সেনাপতি রাহুল গান্ধীকে মাঠে-ময়দানে তুলাধোনা করেছেন। জ্ঞানী, প-িত, বিচক্ষণ, সৎ, মেধাবী প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিংকে গান্ধী পরিবারের হাতের পুতুল বানিয়ে ছেড়েছেন মানুষের কাছে। বিজেপির প্রবীণ নেতা এল কে আদভানি, সুষমা স্বরাজ, মুরলি মনোহর জোশিদের কোণঠাসা করে দলের পূর্ণ কর্তৃত্ব নিয়ে নিজেকে প্রধানমন্ত্রীই ঘোষণা করেননি, সর্বত্র জুতসই প্রার্থী দিয়ে একটি পরিকল্পিত, সংগঠিত ভোটযুদ্ধে নেমেছিলেন আটঘাট বেঁধেই। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামার ক্যাম্পেইন ছক যারা করেছিলেন তাদেরই নিজের প্রচারের জন্য এনেছিলেন তিনি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com