মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ০১:৪২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শ্রীমঙ্গলে যুবলীগ নেতা সেলিমের উদ্যোগে সাড়ে ৫শ অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ নবীগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামে ড. রেজা কিবরিয়ার পক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জে শেষ হয়েছে ৫দিন ব্যাপি ইয়ূথ এসোসিয়েশন অব ইউকে এর খাদ্য সহায়তা বিতরণ নবীগঞ্জে গৃহহীন দুই বীর সেনা মুক্তিযোদ্ধাকে সেনাবাহিনীর বাসস্থান উপহার আলমগীর চৌধুরীর সৌজন্যে নবীগঞ্জে ১৬৫ পরিবারকে ঈদ উপহার প্রদান নবীগঞ্জে স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করায় ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা “বঙ্গবন্ধু ছাত্র একতা পরিষদ” নেতা রায়হান এর উদ্যোগে ইফতার বিতরণ এখন প্রমান করার সময় মানুষ মানুষের জন্য-মোতাচ্ছিরুল ইসলাম অনাহারী মুখ খাবার তুলে দিচ্ছেন হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম বাগুনিপাড়া ডিফেন্স হোল্ডার এ্যাসোসিয়েশন ঈদ উপহার বিতরন
নবীগঞ্জ অগ্নিকান্ডে ২ ভিক্ষুকের ঘর পুড়ে ছাই

নবীগঞ্জ অগ্নিকান্ডে ২ ভিক্ষুকের ঘর পুড়ে ছাই

মোঃ আলমগীর মিয়া, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নে ভয়াভহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। সোমবার ৬ এপ্রিল গভীর রাতে এই অগ্নিকান্ড ঘটনাটি ঘটেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দীঘলবাক ইউনিয়নের জামারগাঁও গ্রামে ফয়জুল মিয়ার স্ত্রী ভিক্ষুক সুরজান বেগম ও মৃত লেকাছ মিয়ার স্ত্রী ভিক্ষুক মিনারা বেগমের বসত ঘরে এক ভয়াভহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। পাশের বাড়ির ঝরনা বেগম আগুন দেখতে পেয়ে চিৎকার করেন। তখন সবাই ঘুমের মধ্যে ছিলেন। হঠাৎ চিৎকার শোনে তারা ঘুম থেকে উঠে দৌড়ে ঘর থেকে বাহিরে আসেন। এসময় স্থানীয় লোকজন নিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনেন। আগুনে আসবাবপত্রসহ ঘর পুড়ে চাই হয়ে যায়।
সুরজান বেগম জানান, বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভিক্ষা করে মেয়ের বিয়ের জন্য জমানো নগদ ১০ হাজার টাকাসহ ছাগল মোরগসহ, ঘরের আসবাবপত্র সহ সব কিছু পুড়ে ছাই হয়ে যায়। তিনি আর বলেন, আমার মেয়ে কে নিয়ে আমি কোথায় যাব। মেয়ের বিয়ের জমানো টাকা সব পুড়ে ছাই। পড়নের কাপড় ছাড়া আমাদের কাছে কিছু নেই। সরকারের পক্ষ থেকে যদি আমাদের কে সাহায্য করতেন তাহলে আমরা মাথা গুজারটাই পেতাম।
মিনারা বেগম জানান, নগদ ৩ হাজার টাকার, ১৫টি মোরগ, ঘরের আসবাবপত্র সহ সব কিছু পড়ে যায়। আগুন নিয়ন্ত্রনের জন্য নবীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম কাজ করেন। ফায়ার সাভির্সের কর্মীরা আসার আগেই প্রায় সব কিছু পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এ ব্যাপারে স্থানীয় মেম্বার ফখরুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে ফায়ার সার্ভিস কে কল দেই, তবে ফায়ার সার্ভিস আসার আগেই এলাকার মানুষদের সাথে নিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনার চেষ্টা করি। ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে এলাকার লোকজন দের সাথে নিয়ে প্রায় আধা ঘন্টা চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আসে। তিনি আর বলেন, তাদের কে আমি আমার ব্যাক্তিগত ও সরকারি তহবিল থেকে সাহায্য করব। অগ্নিকান্ডের পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ইনাতগঞ্জ ফাড়ির একদল পুলিশ।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com