শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ০৯:১৯ পূর্বাহ্ন

বাহুবলে ভূয়া পুলিশ পরিচয়ে প্রতারণা ॥ গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ

বাহুবলে ভূয়া পুলিশ পরিচয়ে প্রতারণা ॥ গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ

বাহুবল প্রতিনিধি ॥ বাহুবলে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে প্রতারণা করার সময় জনতা সাজু আহমেদ পায়েল নামে এক যুবককে আটক করে গণধোলাই দিয়েছে। পরে তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে উপজেলার ডুবাঐ বাজারে। আটককৃত প্রতারক পায়েল রংপুর জেলার কাউনিয়া উপজেলার রাজিসেটিবাড়ী গ্রামের আব্দুল আউয়ালের পুত্র।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বুধবার (১লা এপ্রিল) দুপুর দেড়টার দিকে সাজু আহমেদ পায়েল ডিবি পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে উপজেলার ডুবাঐ বাজারের খাঁজা রেস্টুরেন্টে প্রবেশ করে দোকান খোলা থাকার কারণ জানতে চায়। এসময় ব্যবসায়ী কোন ধরণের সদোত্তর দিতে না পারার সুযোগে বিশ হাজার টাকা জরিমানা দাবী করে ওই কথিত ডিবি পুলিশ কর্মকর্তা। কিন্তু এতো টাকা দেবার সাধ্য না থাকায় রেস্টুরেন্ট মালিক ওই কর্মকর্তা অনুকম্পা চেয়ে মিনতি করতে থাকেন। কথিত ওই কর্মকর্তা কিছুটা নমনীয় হলে রেস্টুরেন্ট মালিক সাতশত টাকা বের করে দেন। ওই টাকা নিয়েই কথিত ওই কর্মকর্তা তাড়াহুড়ো করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করতে চাইলে স্থানীয় লোকজনের সন্দেহ হয়। উপস্থিত লোকজন তার পরিচয়পত্র দেখতে চাইলে তিনি দেখাতে ব্যর্থ হন। এ অবস্থায় স্থানীয় লোকজন তাকে আটক করে গণধোলাই দেয়। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট স্নিগ্ধা তালুকদার ও সহকারি কমিশনার (ভূমি) খ্রিষ্টফার হিমেল রিছিল এবং সেনাবাহিনীর একটি টহল টিম ঘটনাস্থলে পৌছে। এ সময় স্থানীয় জনতা আটক প্রতারক সাজু আহমেদ পায়েলকে তাদের কাছে সোপর্দ করে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার বাহুবলের ডিবি ইন্সপেক্টরকে ফোন করলে তিনি এই নামে কেউ ডিএমপিতে বা সিআইডিতে নেই বলে জানান। এরপর অভিযুক্তকে ক্রমাগত জেরা করতে থাকলে এবং তার ব্যাগ তল্লাশী করে চট্টগ্রাম জেলের কাগজ পাওয়া যায়। যে কাগজ থেকে তার নাম জানা যায় সাজু আহমেদ পায়েল অথচ সে এর আগ পর্যন্ত নাম বলছিল শোভন চৌধুরী। এরপর তাকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্নিগ্ধা তালুকদার, এসিল্যান্ড খ্রিষ্টফার হিমেল রিছিল এবং সেনাবাহিনীর ল্যাফটেনান্ট সাদেক জিজ্ঞাসাবাদ করলে তার অপরাধ স্বীকার করে।
পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্নিগ্ধা তালুকদার তাকে বাহুবল মডেল থানা পুলিশে সোপর্দ করেন।
আটক প্রতারক পায়েল জানায়, সে পেশাদার প্রতারক। প্রতারণার মামলা গত মাসের শেষের দিকে জেল থেকে ছাড়া পায়। মঙ্গলবার সে শায়েস্তাগঞ্জ একটি হোটেলে রাত্রী যাপন করে। বুধবার সকালে শায়েস্তাগঞ্জ থেকে বাহুবল উপজেলা সদরের মৌচাক পয়েন্টে নামে। এ সময় মৌচাক পয়েন্টের একটি মুদি দোকান ও একটি স্টেশনারী দোকানে জরিমানার নামে মোট ২ হাজার ৩০০ টাকা আদায় করে। ওই স্থান থেকে প্রতারক পায়েল ডুবাঐ বাজারে যায়। সেখানে পৌঁছে খাজা রেস্টুরেন্টে প্রতারণা করতে গিয়ে জনতার হাতে ধরা পড়ে। সে জানায়, সে কোথাও নিজেকে ডিবি পুলিশ কর্মকর্তা, কোথাও পুলিশের এসআই, কোথাও সিআইডি পুলিশ, কোথাও সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা আবার কোথাও ভোক্তা অধিকার কর্মকর্তা দাবি করে প্রতারণা করে আসছে।
এ ব্যাপারে বাহুবল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ কামরুজ্জামান জানান, আটককৃত সাজু আহমেদ-এর কাছে বিভিন্ন দেশের মুদ্রা, বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির ফোন ও মোবাইল নম্বর পাওয়া গেছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com