মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ১২:৩১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জের তরুণীকে মধ্যরাতে অপহরণ ॥ কমলগঞ্জের চা-বাগান থেকে উদ্ধার হবিগঞ্জ বিআরটিএ অফিসে জেলা প্রশাসকের ঝটিকা অভিযান ॥ দালালীর অভিযোগে আটক ৩ ২ জনকে জেল ও ১ জনকে জরিমানা জেলা সাংবাদিক ফোরামের অভিষেক অনুষ্টিত নবীগঞ্জে পানিউমদা ইউনিয়ন বিএনপির কাউন্সিল সম্পন্ন চৌধুরী বাজারে পেয়াজের মুল্য বেশি রাখার দায়ে দোকানীকে জরিমানা সন্ত্রাস দমনে পুলিশের করণীয় শীর্ষক সভা নবীগঞ্জে এমপি মিলাদ গাজীকে দারুল উলুম মাদ্রাসার বিশাল সংবর্ধনা ফুটবলার নোমানের দৃষ্টি হারানো চোখের চিকিৎসা করাতে এগিয়ে এলেন প্রবাসীরা সিলেট গণফোরামের নেতৃবৃন্দের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করলেন আবুল হোসেন জীবন উন্নয়নের স্বার্থে আয়কর প্রদানে সকলকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে-এমপি আবু জাহির
নবীগঞ্জের জেআইসি স্যুট গার্মেন্টসে ২ বছর ধরে চলছে প্রশিক্ষনকাল ॥ ৬ মাস ধরে উৎপাদন শুরু হলেও কাউকে নিয়োগ দেয়া হয়নি এপ্রিলে প্রত্যেককে মজুরী দেয়া হয়েছে মাত্র ১৫শ টাকা

নবীগঞ্জের জেআইসি স্যুট গার্মেন্টসে ২ বছর ধরে চলছে প্রশিক্ষনকাল ॥ ৬ মাস ধরে উৎপাদন শুরু হলেও কাউকে নিয়োগ দেয়া হয়নি এপ্রিলে প্রত্যেককে মজুরী দেয়া হয়েছে মাত্র ১৫শ টাকা

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জে নব-নির্মিত জেআইসি স্যুট লিঃ গার্মেন্টস ফ্যাক্টরীতে শ্রমিকদের PIC-3কাজ করানো হলেও এখনো কাউকে নিয়োগপত্র দেয়া হচ্ছে না। দেড় বছর কোন মুজুরী বা ভাতা ছাড়াই প্রশিক্ষণকাল বলে চালানো হয়। ৬মাস ধরে পুরোধমে উৎপাদন শুরু হলেও কোন নিয়োগপত্র না দিয়েই এলাকার গরীব অসহায়দের খাটানো হচ্ছে বিনা বেতনে। মালিক পক্ষের ভাষায় এখনো চলছে প্রশিক্ষণকাল। প্রতিবাদ করলে চাকুরীচ্যুত করা হয়। এক বছর ধরে প্রতিদিন ৯ ঘন্টা শ্রম বিক্রি করলেও শ্রমিকরা গত এপ্রিল মাসের মজুরী হিসেবে পেয়েছে মাত্র ১৫শ টাকা। এছাড়া ফ্যাক্টরীর জন্য যে ৫ তলা ভবনটি নির্মান করা হয়েছে এ নিয়েও রয়েছে নানা প্রশ্ন।
এলাকাবাসী জানান, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি বাজার সংলগ্ন গড়ে উঠা জেআইসি স্যুাট লিঃ গার্মেন্টস এ দীর্ঘ ২ বছর যাবত শ্রম আইন ও মানবাধিকার লংঘন হচ্ছে চরমভাবে। এখানে নারী শ্রমিকরা অনাহারে অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছেন বলে শ্রমিকরা অভিযোগ করেছেন। দীর্ঘ দুই বছর ধরে গার্মেন্টস চালুর কথা বলে ১২শ নারী শ্রমিককের নাম তালিকাভূক্ত করে প্রশিক্ষণ দিয়ে কাজে যোগদান করানো হয়। গার্মেন্টস চালুর পর থেকে এ পর্যন্ত শ্রমিকদের কোন বেতন ভাতা দেওয়া হয়নি। ৬ মাস পূর্বে ঢাকঢোল পিটিয়ে উদ্বোধন করা হয়। এ গার্মেন্ট ফ্যাক্টরীর ফলে এলাকার বেকারত্ব কিছুটা হলেও দুর হবে বলে আশা করেছিল এলাকাবাসী। কিন্তু ৬ মাস যেতে না যেতেই শুরু হয় নানা অনিয়ম। এছাড়া নতুন ভবনে দেখা দেয় ফাটল। ফাটলকে মেরামত করে গার্মেন্টস এর কাজ চলছে।
সূত্রে জানা গেছে, নবীগঞ্জ সরকারী প্রকৌশলীর কোন মতামত না নিয়েই নিজস্ব মতামতের ভিত্তিতে প্রাইভেট প্রকৌশলীদের পরামর্শে ৫ তলা ভবনটি নির্মাণ করা হয়। তাই এ ভবন নিয়ে জনমনে চরম আতংক বিরাজ করছে। এ দিকে গার্মেন্ট এ কাজ পুরোধমে চালু হলেও এখন পর্যন্ত শ্রমিকদের কোন বেতন ভাতা দেওয়া হচ্ছে না। নারী শ্রমিকদের প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত একটানা কাজ করানো হচ্ছে। সরকারী শ্রম আইনে প্রতি গার্মেন্টস শ্রমিককে ৫ হাজার ৩শ টাকা দেওয়ার বিধান থাকলেও এখন পর্যন্ত কোন বেতন দেওয়া হচ্ছে না। যেসব নারী শ্রমিক বেতন নিয়ে কথা বলে তাদেরকে ভয় ভীতি দেখিয়ে গার্মেন্টস থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়। বেতন ভাতা ছাড়াই আশ্বাসের মাধ্যমে শত শত নারী শ্রমিককে এক বছর যাবত গার্মেন্টস এ কাজ করানো হচ্ছে। বিগত এপ্রিল মাসে শ্রম আইন লংঘন করে প্রতি শ্রমিককে ১৫শ টাকা সম্মানী ভাতা প্রদান করা হয়।
গতকাল সরেজমিনে ওই গার্মেন্টসে গেলে আলাপ হয় নারী শ্রমিক হেপী বেগমের সাথে। তিনি বলেন, এক বছর যাবত এ গার্মেন্টসে কাজ করছি। এখনও কোন বেতন দেওয়া হয়নি। গত মাসে আমাদের সম্মানী বাবদ ১৫শ টাকা দেওয়া হয়েছে। নারী শ্রমিক রতœা ও নাজমা বলেন, গার্মেন্টস শুরু থেকেই আমাদের প্রশিক্ষণের নামে কাজ করানো হচ্ছে। আমাদের কোন বেতন ভাতা প্রদান করা হয়নি। বলা হয়েছে আগামী তিনমাস পর বেতন ভাতা প্রদান করা হবে। আরেক শ্রমিক রেবি বেগম বলেন, আমাদের প্রতিদিন হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর নেওয়া হয়। সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত একটানা কাজ করলেও বেতন পাওয়া দূরের কথা এখন পর্যন্ত কোন নিয়োগপত্র পাইনি। গার্মেন্টস শ্রমিক সুরমা বেগম বলেন, সঠিক সময়ে কাজে যোগদান না করলে সুপাইভাইজার পলো-ইনচার্জ রাজু আমাদের গালিগালাজ করেন। একদিন না আসলে ২ দিনের হাজিরা কাটা হয়।
এ ব্যাপারে পলো ইনচার্জ রাজু আহমেদ বলেন, গার্মেন্টসে কাজ করতে বসদের অনুসরন করে চলতে হয়। আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ তুলা হয়েছে তা সঠিক নয়। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের গার্মেন্টস এর মালামাল বাহিরে রপ্তানী করা হয়। এখানে শুধু মাল উৎপাদন করে বিভিন্ন দেশে অর্ডার আসলে সাপ্লাই দেওয়া হয়। প্রথম রপ্তানীর মাল বিক্রির টাকা গার্মেন্টস কর্তৃপক্ষ এলাকার গরীবদের মধ্যে বিতরণ করে দিয়েছে। এ জন্য শ্রমিকদের বেতন দিতে পারিনি।
এ ব্যাপারে গার্মেন্টস এর জিএম জামাল উদ্দিন বলেন, আমাদের দুই বছর পূর্বে প্রশিক্ষণ শুরু করলেও ৬ মাস পূর্বে আমরা উৎপাদন শুরু করেছি। এখনও আমরা কোন শ্রমিককে নিয়োগপত্র দেইনি। তাই সরকারী নিয়মে বেতন ভাতা দেওয়া যাচ্ছে না। গত এপ্রিল মাসে ১৫শ টাকা করে সম্মানী দিয়েছি। তিনি বলেন, আমাদের গার্মেন্টস এর বর্তমানে যা উৎপাদন হচ্ছে তা দিয়ে বেতন ভাতা দেওয়া সম্ভব নয়। এজন্য আগামী দুই মাস পর এটা নিয়ে আমরা চিন্তা করব।
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী সৈয়দুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সরকারীভাবে আমাদের অফিস থেকে কোন অনুমতি নেওয়া হয়নি। উক্ত ভবন নির্মাণের আগে আমাদেরকে কখনো অবগত করা হয়নি। এ ভবন নির্মাণে সরকারী প্রকৌশলীদের পরামর্শ নেওয়ার কথা থাকলেও তারা আমাদের সাথে কোন যোগাযোগ না করেই অপরিকল্পিভাবে এ ভবন নির্মাণ করেছেন। এতে দূর্ঘটনা ঘটার আশংকা রয়েছে।
এ ব্যাপারে গার্মেন্টস ফ্যাক্টরির এমডি নজরুল ইসলাম চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, গার্মেন্টস শুরুতে ভুল ত্র“টি হয়ে থাকলে আগামীতে সংশোধন করা হবে। সাংবাদিকদের সাথে যোগযোগ করে গার্মেন্টস এর সার্বিক বিষয় তুলে ধরব। এর বেশি কোন মন্তব্য করেন নি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com