রবিবার, ০৫ এপ্রিল ২০২০, ০৬:২২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
কর্মহীনদের খাদ্য সহায়তা প্রদান ও করোনা সচেতনতায় সকাল-সন্ধ্যা ছুটছেন এমপি আবু জাহির হবিগঞ্জে প্রশাসন ও আইনশৃংখলা বাহিনীর তৎপরতা অব্যাহত হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের উদ্যোগে বানিয়াচঙ্গে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরীর প্রচেষ্টায় ঢাকাস্থ জালালাবাদ এ্যাসোসিয়েশন এর উদ্যোগে চিকিৎসকদের মাঝে ১’শ পিপিই বিতরণ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলামের পক্ষ থেকে বিভিন্ন এলাকায় খাদ্রসামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জের এসএসসি ৯৯ ব্যাচের বন্ধুদের উদ্যোগে শ্রমজীবী মানষের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরণ ওএমএস কার্যক্রমের আওতায় শহরের ৫টি দোকানে ৫ এপ্রিল থেকে ১০ টাকা কেজি চাল বিক্রি শুরু প্রশাসনের তৎপরতায় জনশূণ্য নবীগঞ্জ ত্রাণ বিতরণ হলেও বিপাকে দিনমজুর খেটে খাওয়া শ্রমজীবি মানুষ নবীগঞ্জের পৌর এলাকায় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শ্রীমঙ্গলে এক কিশোরী করোনা আক্রান্ত সন্দেহে এলাকায় লাল ঝান্ডা, ১৩৪ ব্যক্তি হোম কোয়ারেন্টাইনে
প্রশাসনের অনুমতি না পেয়ে গভীর রাতে সাদ পন্থীদের ইজতেমা আয়োজনের চেষ্টা ॥ পুলিশের হস্তক্ষেপে পণ্ড দিনভর উত্তেজনা

প্রশাসনের অনুমতি না পেয়ে গভীর রাতে সাদ পন্থীদের ইজতেমা আয়োজনের চেষ্টা ॥ পুলিশের হস্তক্ষেপে পণ্ড দিনভর উত্তেজনা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরে সাদ পন্থীদের ঘোষিত ৩ দিনব্যাপী ‘জেলা ইজতেমা’র জন্য প্রশাসন অনুমতি না দিলেও তারা গভীর রাতে ইজতেমাস্থলে অবস্থান নিয়ে প্যান্ডেল নির্মাণের চেষ্টা করে। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে তাদের এই চেষ্টা পণ্ড হয়ে যায়। পরে সাদ পন্থীরা চলে যায় হবিগঞ্জ সদর উপজেলার পাইকপাড়ায় আর বিরোধী পক্ষ অবস্থান নেয় হবিগঞ্জ শহরের মার্কাজ মসজিদে। বৃহস্পতিবার এ নিয়ে দিনভর উত্তেজনা থাকলেও পুলিশের হস্তক্ষেপে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হবগঞ্জ সদর উপজেলার সুলতান মাহমুদপুর এলাকায় ২৭ থেকে ২৯ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত তিন দিনের জেলা ইজতেমার কর্মসূচি ঘোষণা করে সাদ পন্থিরা। তারা ইজতেমা আয়োজনে ছিল বদ্ধপরিকর। অপরদিকে কোন মূল্যে ইজতেমা প্রতিহত করার ঘোষণা দেয় অপর পক্ষ। এ নিয়ে আন্দোলন ও পাল্টা আন্দোলন শুরু হয় সমগ্র জেলা জুড়ে। ইজতেমা নিয়ে দুই গ্রুপ মুখোমুখি অবস্থানে দাড়ালে জেলা প্রশাসন সাদ পস্থিদের ইজতেমার আবেদন খারিজ করে দেয়।
কিন্তু বুধবার দিবাগত রাত ১টার দিকে সাদ পন্থীদের শতাধিক মুসল্লী ইজতেমা স্থলে গিয়ে প্যান্ডেল তৈরির চেষ্টা করে। বিষয়টি হবিগঞ্জ সদর থানা পুলিশ জানতে পেরে সেখানে গিয়ে তাদের আয়োজন ভণ্ডল করে দেয়। পরে সেখানে অবস্থানরত সকল মুসল্লিদেরকে বের করে দেয় পুলিশ। সাদ পন্থীরা চলে যায় পাইকপাড়া এলাকায়। সাদ পন্থীদের এই প্রচেষ্টার খবর জানতে পেরে হবিগঞ্জ জেলা বেফাক সভাপতি মাওলানা আব্দুল্লা আকিলপুরীর নেতৃত্বে শত শত সাদ বিরোধী মুসল্লী হবিগঞ্জ মার্কাজ মসজিদে অবস্থান নেয়। এ নিয়ে চলতে থাকে দিনভর উত্তেজনা। তবে শেষ পর্যন্ত পুলিশের তৎপরতার জন্য আর কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।
এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা বেফাক সভাপতি মাওলানা আব্দুল্লা আকিলপুরী প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, ‘স্ব-ঘোষিত আমীর মাওলানা সাদ দীর্ঘদিন ধরে তাবলীগ জামায়াত ও বিশ্ব ইজতেমায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অপতৎপরতা করছেন। এরই মাঝে তার অনুসারীরা হবিগঞ্জে বিতর্কিত ইজতেমা আয়োজনের ঘোষণা দিয়ে অনাকাংখিত পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছিল। জেলা প্রশাসন তাদের ইজতেমা আয়োজনের আবেদন খারিজ করার পরও তারা যে চেষ্টা করে তা নিন্দনীয়। তারা দেশের আইনকেও অমান্য করার দুঃসাহস দেখিয়েছে।
হবিগঞ্জ সদর থানার ওসি মাসুক আলী জানান, বুধবার দিবাগত গভীর রাতে একদল মুসল্লী সুলতান মাহমুদপুর এলাকায় ইজতেমার স্থলে অবস্থান নেয়ার চেষ্টা করলেও পুলিশ তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পুলিশের তৎপরতা থাকায় কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com