রবিবার, ০৫ এপ্রিল ২০২০, ০৬:০৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
কর্মহীনদের খাদ্য সহায়তা প্রদান ও করোনা সচেতনতায় সকাল-সন্ধ্যা ছুটছেন এমপি আবু জাহির হবিগঞ্জে প্রশাসন ও আইনশৃংখলা বাহিনীর তৎপরতা অব্যাহত হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের উদ্যোগে বানিয়াচঙ্গে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরীর প্রচেষ্টায় ঢাকাস্থ জালালাবাদ এ্যাসোসিয়েশন এর উদ্যোগে চিকিৎসকদের মাঝে ১’শ পিপিই বিতরণ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলামের পক্ষ থেকে বিভিন্ন এলাকায় খাদ্রসামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জের এসএসসি ৯৯ ব্যাচের বন্ধুদের উদ্যোগে শ্রমজীবী মানষের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরণ ওএমএস কার্যক্রমের আওতায় শহরের ৫টি দোকানে ৫ এপ্রিল থেকে ১০ টাকা কেজি চাল বিক্রি শুরু প্রশাসনের তৎপরতায় জনশূণ্য নবীগঞ্জ ত্রাণ বিতরণ হলেও বিপাকে দিনমজুর খেটে খাওয়া শ্রমজীবি মানুষ নবীগঞ্জের পৌর এলাকায় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শ্রীমঙ্গলে এক কিশোরী করোনা আক্রান্ত সন্দেহে এলাকায় লাল ঝান্ডা, ১৩৪ ব্যক্তি হোম কোয়ারেন্টাইনে
জয়নাল আবেদীন ছালেকের বিরুদ্ধে পৌনে ৩ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের মামলা দায়ের

জয়নাল আবেদীন ছালেকের বিরুদ্ধে পৌনে ৩ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের মামলা দায়ের

স্টাফ রিপোর্টার ॥ অবশেষে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার গুঙ্গিয়ারজুরি হাওরের হাজারো কৃষকের ক্ষতি সাধন করা প্রতারক জয়নাল আবেদীন ছালেকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। দুই কোটি ৭৫ লক্ষ টাকা ক্ষতিপুরণ চেয়ে কৃষকদের পক্ষে গত ২০ ফেব্রুয়ারি হবিগঞ্জ জেলা যুগ্ম জজ ১ম আদালতে মামলাটি দায়ের করে কৃষক মো. শাহ্ আলম। মামলায় তিনি উল্লেখ করেন- হবিগঞ্জ সদর উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামের জয়নাল আবেদীন ছালেক দীর্ঘ ২৯ বছর ধরে গুঙ্গিয়ারজুরি হাওরের সেচ প্রকল্পটি নিজের দখলে রেখেছেন। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে তিনি সেচ প্রকল্পের বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ না করায় ১৩ লাখ টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া পড়ে। একের পর এক নোটিশ দেয়ার পরও তিনি বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ না করায় সম্প্রতি পিডিবি কর্মকর্তারা বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেন। ফলে বিশাল এই হাওরের প্রায় ৩ হাজার বিঘা জমি আনাবাদি পড়ে রয়েছে। পানির অভাবে নিজেদের জমি চাষ করতে না পারায় রামপুর, গোবিন্দপুর, আওরা, মজলিসপুর ৪ গ্রামের হাজারো কৃষকের মাথায় হাত পড়ে। এই গ্রামের হাজারো কৃষক এক বিঘা জমিও চাষ করতে পারেনি। জমি চাষ করতে না পারায় সারা বছরের খাবার ও ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া চালানো নিয়ে শঙ্কা দেখা দেয়। পাশাপাশি গবাদিপশুর খাবার সংকটও তীব্র আকার ধারণ করবে। সব কিছু মিলিয়ে ওই চার গ্রামের কৃষকদের প্রায় ২ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ক্ষতি হবে। পাশাপাশি সারা বছর সিমাহীন দূর্ভোগে পড়তে হবে তাদের। মামলায় আরও উল্লেখ করা হয়, এ ব্যাপারে ছালেকের বিরুদ্ধে কেউ কথা বললেই বিভিন্ন মিত্যা মামলাসহ হামলা-মারপিট করা হয়। ফলে জীবনের নিরাপত্তার ভয়ে কেউই তার বিরুদ্ধে মূখ খোলতে সাহস পান না। পাশাপাশি তার ভাই স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যার হওয়ায় তিনি তার সকল অপকর্ম করেও সহজেই পার পেয়ে যান। এ ব্যাপারে কৃষকরা বলেন- আমাদের ছেলে সন্তানদের নিয়ে সারা বছর না খেয়ে থাকতে হবে। তাই এখন আর জীবনের মায়ায় নিরব থাকতে পারতেছি না। কারণ এমনিতেই আমরা না খেয়ে মারা যাব। মিত্যা মামলা ও মারপিটের ভয় আর করি না। আমরা অসহায় কৃষণকরা কোথাও সুণ্ট বিচার না পেয়ে আদালতের দদ্বারস্থ হয়েছি। আমরা আশা করি শেখ হাসিনার কৃষিবান্ধব সরকার এর সুষ্ট বিহিত করবেন এবং এইসব লোকদের শাস্তি দিয়ে আগামিতে আমাদের কৃষি ও কৃষকদের বাঁচিয়ে রাখার পখ সুগম করবেন। যাতে আর কোন কৃষক আমাদের মতো অনাহারে মরতে না হয়। আমরাতো নিঃস্ব হয়ে গেলাম, আমাদের এখন একটাই দাবি এইসব ছালেকদের মতো প্রতারকদের যেন দৃষ্টান্তমূলক শান্তি হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com