রবিবার, ০৫ এপ্রিল ২০২০, ০৬:৩১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
কর্মহীনদের খাদ্য সহায়তা প্রদান ও করোনা সচেতনতায় সকাল-সন্ধ্যা ছুটছেন এমপি আবু জাহির হবিগঞ্জে প্রশাসন ও আইনশৃংখলা বাহিনীর তৎপরতা অব্যাহত হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের উদ্যোগে বানিয়াচঙ্গে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরীর প্রচেষ্টায় ঢাকাস্থ জালালাবাদ এ্যাসোসিয়েশন এর উদ্যোগে চিকিৎসকদের মাঝে ১’শ পিপিই বিতরণ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলামের পক্ষ থেকে বিভিন্ন এলাকায় খাদ্রসামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জের এসএসসি ৯৯ ব্যাচের বন্ধুদের উদ্যোগে শ্রমজীবী মানষের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরণ ওএমএস কার্যক্রমের আওতায় শহরের ৫টি দোকানে ৫ এপ্রিল থেকে ১০ টাকা কেজি চাল বিক্রি শুরু প্রশাসনের তৎপরতায় জনশূণ্য নবীগঞ্জ ত্রাণ বিতরণ হলেও বিপাকে দিনমজুর খেটে খাওয়া শ্রমজীবি মানুষ নবীগঞ্জের পৌর এলাকায় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শ্রীমঙ্গলে এক কিশোরী করোনা আক্রান্ত সন্দেহে এলাকায় লাল ঝান্ডা, ১৩৪ ব্যক্তি হোম কোয়ারেন্টাইনে
সেচ প্রকল্পের আয়তন বাড়েনি তবুও এক বছরে আড়াই লাখ টাকার অতিরিক্ত বিল প্রদান

সেচ প্রকল্পের আয়তন বাড়েনি তবুও এক বছরে আড়াই লাখ টাকার অতিরিক্ত বিল প্রদান

অস্বাভাবিক বিদ্যুৎ বিল ও ভূতুরে বিলে কোনঠাসা একটি সেচ প্রকল্পের মালিক পক্ষ অদৃশ্য ইশারায় সেখানে বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকা সত্বেও লাখ লাখ টাকার বিল প্রদান করা হয়েছে। সংযোগ থাকা বিদ্যুৎ মিটারে এক বছরে অতিরিক্ত আড়াই লাখ টাকা বিদ্যুৎ বিল প্রদান করা হয়েছে। যেখানে সরকার কৃষকদের নানাভাবে প্রনোদনা দিয়ে আসছে। সেখানে বিদ্যুৎ বিভাগের দায়িত্বহীনতার কারণে কৃষক ও সেচ প্রকল্পের সাথে সম্পৃক্তদের মারার হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে বিদ্যুৎ বিভাগ। চাঁদবাজী, পানির ড্রেন ভরাট করে দেয়া, যেখানে এক ধরণের প্রতিবন্ধকতা ছিল সেখানেও আগুনে ঘি ঢেলে দিল বিদ্যুৎ বিভাগ। এক বছরে অতিরিক্ত আড়াই লাখ টাকা বিদ্যুৎ বিল দিয়ে জানিয়ে দিল সেচ প্রকল্প বন্ধ করে বাড়ী ফিরে যাওয়া ছাড়া কোন উপায় নেই। অথচ এই এক বছরে সেচ প্রকল্প সংযোগে বিদ্যুৎ এর মূল্য বাড়েনি। সেচ প্রকল্পের আওতায় জমির পরিমাণও বাড়েনি।
জানা যায়, হবিগঞ্জ শহরতলীর গোবিন্দপুর সেচ প্রকল্প পরিচালনা করে আসছেন, বৃটেন প্রবাসী জয়নাল আবেদীন ছালেক। বিদ্যুৎ সংযোগ মিটার নং-বি/২০, যার কনজুওমার আইডি নং-৪৫১৫১৫৩৯ সেচ প্রকল্পে ব্যবহার হয়ে আসছে। উক্ত মিটারের বিপরীতে বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে বিল দেয়া হয়। সেচ প্রকল্পের পরিচালক গত ১৯/১২/২০১৬ইং তারিখে সমুদয় ১ লাখ ৫০ হাজার টাকার বিল পরিশোধ করেন। ০১/১০/২০১৭ইং তারিখে উক্ত মিটারের বিপরীতে বিদ্যুৎ বিল দেয়া ১ লাখ ৯৪ হাজার ৭৮৬ টাকা। ০৬/১২/২০১৭ইং তারিখে উক্ত বিলের টাকা পরিশোধ করা হয়। ০১/০৮/২০১৮ইং তারিখে বিদ্যুৎ বিল দেয়া হয় ২ লাখ ৭৫ হাজার ৬৭৮ টাকা। সেটিও ৩১/১০/২০১৮ইং তারিখে পরিশোধ করা হয়।
জয়নাল আবেদীন ছালেক জানান, এরই মধ্যে সেচ প্রকল্পে নজর পড়ে আমার ভাই আমেরিকা প্রবাসী শাহিন মিয়ার। বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করতে থাকেন। কোন ষড়যন্ত্রই যখন কাজে ছিল না। তখন তিনি বিদ্যুৎ বিভাগকে হাতিয়ার হিসাবে গ্রহণ করেন। ০১/১১/২০১৯ইং তারিখে সেচ প্রকল্পের বি/২০ নং মিটারের বিপরীতে বিদ্যুৎ বিভাগ বিল প্রদান করে ৫ লাখ ২১ হাজার ৪৫১ টাকা। যা আগের বছরের তুলনায় প্রায় আড়াই লাখ টাকা বেশি। কোন কোন বছরের তুলানায় প্রায় ৩ লাখ টাকা বেশি। অস্বাভাবিক বিল প্রদানের ব্যাপারে নিজের আপন ভাই শাহিন মিয়ার হাত রয়েছে বলে জয়নাল আবেদীন ছালেক মনে করেন।
তিনি বলেন, সেচ প্রকল্পের আওতাভূক্ত জমির পরিমান বাড়েনি। বিদ্যুৎ এর মূল্য বাড়েনি। তাহলে এই আয়তনের জমিতে সেচ সুবিধা দিলে বিদ্যুৎ এর বিল বাড়ে কিভাবে। বিদ্যুৎ খাওয়ার কোন বিষয় না। ব্যবহারের বিষয়। সেখানে ব্যবহার করা হয়েছে সীমিত একটি এলাকায়, সেখানে বিল অস্বাভাবিক বৃদ্ধি করার অর্থ হচ্ছে এর পিছনে খারাপ মানুষ জড়িত, খারাপ উদ্দেশ্য জড়িত। কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্থ হলে তাদের কিছু যায় আসে না। ইতিমধ্যে বিদ্যুৎ এর অস্বাভাবিক বিল এর বিষয়ে একাধিক দরখাস্ত দিয়েছেন বলে দাবী করে জয়নাল আবেদীন ছালেক জানান, চাঁদা দাবী, পানির ড্রেন ভরাট করেও যখন একটি পক্ষ আমাকে থামাতে পারছিল না। তারাই অবশেষে বিদ্যুৎ এর বিল বাড়িয়ে দিয়ে আমাকে সেচ প্রকল্পে বন্ধ করে দিতে কাজ করছে। তাতে কার কি লাভ আমি জানি না। তবে এলাকায় কৃষক ও সেচ প্রকল্পের মালিক হিসাবে আমি ও আমার শ্রমিকরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি বেশি। জয়নাল আবেদীন ছালেক জানান, হবিগঞ্জ বিদ্যুৎ উন্নয়নের বোর্ডের আওতাভূক্ত কোন সেচ প্রকল্প ১২০ দিনের বেশি বিদ্যুৎ সংযোগ থাকে। বৃষ্টি বাদল হলে তা ৭০/৮০ দিনের বিশে মেশিন চলে না। বছরের সর্বোচ্চ ১২০ দিন ২৪ ঘন্টা করেও যদি ৬০ হর্স পাওয়ার সম্পন্ন মেশিন বিদ্যুতে চলে তারপরও বি/২০ নং মিটারে ১২০ দিনে ৫ লাখ ২১ হাজার ৪৫১ টাকা বিদ্যুৎ বিল আসতে পারে না। বিদ্যুৎ বিভাগে সংশ্লিষ্ট একাধিক ব্যক্তি জানান, ৬০ হর্স পাওয়ার সম্পন্ন মেশিন বিদ্যুতে ১২০ দিন ২৪ ঘন্টা চললে সর্বোচ্চ ২ লাখ ৮০ হাজার টাকার বেশি বিল আসার কথা নয়। ১২০ দিনে ৫ লাখ ২১ হাজার ১৫১ টাকার বিলকে বিদ্যুৎ বিভাগের কোন প্রকৌশলী তা স্বাভাবিক বিল হিসাবে বলবেন না। তিনি জানান, বিদ্যুতের সংযোগ নাই সেই বি/৬২ নং মিটারের বিপরীতে যখন ৩/০৯/২০১৮ইং তারিখে যখন আমাকে নোটিশ দিয়ে বলে হয়, আপনার কাছে বিদ্যুৎ বিল ৪ লাখ ১ হাজার ৭৭৪ টাকা। আবার ০১/১২/২০১৯ইং তারিখে এসে একই বিদ্যুৎ অফিস আমাকে নোটিশ দিয়ে জানিয়ে দেয়, আপনার কাছে বিদ্যুৎ বিল ৭ লাখ ৮৯ হাজার ১১৫ টাকা, সেখানে তাদের কাছ থেকে ভাল কিছু আশা করা বোকামি ছাড়া আর কিছু নয়।
তিনি জানান, কৃষি পণ্য মৃল্য বৃদ্ধি একমাত্র কারণ নয়, এক ধরণের দায়িত্ব জ্ঞানহীন বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কারণে অঙ্কুরেই কৃষকরা চাষাবাদ ছেড়ে দিতে বাধ্য হবে। জয়নাল আবেদীন ছালেক জানান, সংযোগ বন্ধ বি/৬২ নং-মিটারে চলতি বছর বিল দেয়া হয়েছে অতিরিক্ত ৩ লাখ ৯৬ হাজার টাকা। চালু থাকা বি/২০ নং মিটারে বিল হয়েছে চলতি বছর ৫ লাখ ২১ হাজার টাকার, এক বছরে ৯ লাখ টাকার বেশি বিল প্রদান করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত হওয়ার প্রয়োজন।
এদিকে সেচ প্রকল্পের পরিচালক বৃটেন প্রবাসী জয়নাল আবেদীন ছালেক জানান, বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে তাকে মৌখিকভাবে জানানো হয় বি/২০ মিটারে কোন বিল নেই। অথচ তারা ৫ লাখ ২৩ হাজার টাকা লিখিত বিল প্রদান করে। বিদ্যুৎ বিভাগ কি বলে এই বিল প্রদান করেছে তা আমার জানা নেই। আমি বিষয়টি তদন্ত পূর্বক দোষীদের বিরদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের নিকট দাবী জানাচ্ছি। ৬০ হর্স পাওয়ারের মেশিনে এক সৃজনে এই অস্বাভাবিক বিল প্রদানকারীদের আইনের আওতায় আনা জরুরী। নয়তো বা কৃষক ও কৃষিকে রক্ষা করা সম্ভাব হবে না।
মোঃ জয়নাল আবেদীন এর পক্ষে
আছির মিয়া

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com