শুক্রবার, ১০ Jul ২০২০, ০৫:৫৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
তেঘরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনু মিয়ার বাড়ীতে প্রতিপক্ষের হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ ১ জন গ্রেফতার বানিয়াচঙ্গে মেয়াদোত্তীর্র্ণ ঔষধ বিতরণ নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় টনক নড়েছে কর্তৃপক্ষের ঘটনা তদন্তে কমিটি গঠন হবিগঞ্জে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে ২৯ লাখ টাকার চেক বিতরণ করেছেন এমপি এডাভোকেট আবু জাহির করোনা আমাদের কাছে সত্যিই হার মেনেছে শায়েস্তাগঞ্জের ইউএনও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ॥ জেলায় নতুন আক্রান্ত আরও ২৭ জন বানিয়াচংয়ে প্রশাসনের অভিযানে জব্দ ‘কারেন্ট জাল’ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতন নাগরিক কমিটির আজমিরীগঞ্জ উপজেলা শাখার কমিটি গঠন করোনা পরিস্থিতির মাঝে মাধবপুরে ডেঙ্গু নিয়ে ভাবনা সিএনজি চালকের বিরুদ্ধে দোকানে হামলার অভিযোগ করোনায় স্থান বদল ॥ ঢাকা ফেরত নিপেন্দ্র গ্রামের বাজারে এখন ভ্রাম্যমাণ চা বিক্রেতা
শহরে চাঞ্চল্যকর মহিবুর হত্যাকান্ড প্রধান আসামী সফিকুল ঢাকা থেকে গ্রেফতার

শহরে চাঞ্চল্যকর মহিবুর হত্যাকান্ড প্রধান আসামী সফিকুল ঢাকা থেকে গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরে মহিবুর রহমান হত্যাকান্ডের প্রধান আসামী শফিফুল আলম চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে ঢাকার তিতুমীর কলেজ এলাকা থেকে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়- হবিগঞ্জ শহরে বসবাসকারী বানিয়াচং উপজেলার মকা গ্রামের বাসিন্দা, দৈনিক ভোরের কাগজের জেলা প্রতিনিধি শফিকুল আলম চৌধুরীর সঙ্গে তারই চাচাতো ভাই বানিয়াচং উপজেলার সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল আমীন চৌধুরীর বিরোধ চলে আসছিল। এ বিরোধকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষ একে অপরের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে মামলা দায়ের করে। এ বিরোধের জের ধরে গত ১৭ জুন রাত ৮ টার দিকে নুরুল আমীন চৌধুরীর পক্ষের চাচাতো ভাই মহিবুর রহমান চৌধুরীকে তার ব্যবসা প্রতিষ্টান থেকে সেবুল নামে এক ব্যক্তি ডেকে হবিগঞ্জ শহরের পুরান মুন্সেফীর বড় পুকুর পাড় এলাকায় নিয়ে যায়। এ সময় সেখানে অবস্থানরত দুর্বৃত্তরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে একটি হাত দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। এছাড়া এলোপাতারী ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মহিবুরের দেহ ক্ষবিক্ষত করে ফেলে দুর্বৃত্তরা। পরে স্থানীয় লোকজন মহিবুরকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালের জরুরী বিভাগে চিকিৎসা চলাকালীন অবস্থায় মহিবুর মৃত্যুর কোলে ঢলে। এ ঘটনায় নিহতের ভাই মুজিবুর রহমান চৌধুরী বাদী হয়ে শফিকুল আলম চৌধুরী, তার স্ত্রী বানিয়াচঙ্গ উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জাহেনারা আক্তার বিউটি, মা ভারতী বেগম, বোন নাজমা আক্তার চৌধুরী, ভাই আজিজুর রহমান চৌধুরী, তার স্ত্রী সুমী আক্তারসহ ১৬ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
পুলিশ সুত্রে জানা যায়, হত্যাকান্ডের পর শফিকুল আলম চৌধুরী আত্মগোপন করেন। গতকাল সকালে ঢাকার তিতুমীর কলেজে এলএলবি সনদ পরীক্ষা দিতে যান। এদিকে শফিকুল আলম চৌধুরীর পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের বিষয়টি পূর্ব থেকেই অবহিত হয়ে হবিগঞ্জ সদর মডেল উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য্যরে নেতৃত্বে হবিগঞ্জ ও ঢাকার সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ সকাল থেকেই তিতুমীর কলেজ এলাকায় সাদা পোশাকে অবস্থান নেয়। এদিকে সকাল ৯টার দিকে শফিকুল পরীক্ষায় অংশ নিতে ওই কলেজে গেলে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। গতকাল বিকেলে তাকে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানায় নিয়ে আসা হয়। আজ তাকে মহিবুর হত্যা মামলায় কোর্টে প্রেরণ করা হবে।
উল্লেখ্য, ঘটনার দিনই ওই মামলার আসামী আকবর হোসেনকে পুলিশ গ্রেফতার করে। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে বুলবুল নামে অপর আসামীকে গ্রেফতার করে। মামলার অপর আসামী শফিকুল আলম চৌধুরীর স্ত্রী বানিয়াচঙ্গ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জাহেনারা আক্তার বিউটি, তার মা ভারতী বেগম, বোন নাজমা আক্তার চৌধুরী, ভাই আকিকুর রহমান চৌধুরীর স্ত্রী সুমী আক্তার হাইকোর্ট থেকে বিভিন্ন মেয়াদে অস্থায়ী জামিন লাভ করেন। মামলার অপর আসামীরা আত্মগোপনে রয়েছে।
হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মোজাম্মেল হক জানান, পলাতক আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশী তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com