শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০, ০১:০২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ডাঃ ফাতেমা খানম দশ টাকা কেজির চাল হাতে দিয়ে লোকজনকে ঘরে থাকার আহবান জানালেন এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জের বেসরকারি চিকিৎসকদের পিপিই প্রদান করলেন ডাঃ মুশফিক চৌধুরী মাধবপুরে করোনা সতর্কতা ॥ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সরানো হল বাজার মাধবপুরে পিস্তলের গুলি বের হয়ে এএসআই আহত বানিয়াচঙ্গে গ্রামবাসীর উদ্যোগে ৩০টি গ্রাম লকডাউন “আপনার সুরক্ষা আপনার হাতে” এ স্লোগান এখন চা শ্রমিকের ঘরে ঘরে শ্রীমঙ্গলে করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে লোকসমাগম কমাতে কাঁচা বাজার স্থানান্তর হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম বানিয়াচংয়ে আইন অমান্য করে ব্যাবসা প্রতিষ্টান খোলা রাখায় অর্থদন্ড
ঘটনার তথ্য সংগ্রহকালে সাংবাদিক ইমদাদকে হুমকি দেয়া হয় বানিয়াচংয়ে ভুলবশত অর্পিত সম্পত্তির তালিকাভূক্ত না হওয়া ভূমি ভূয়া উত্তরাধিকারী দিয়ে রেজিষ্ট্রি

ঘটনার তথ্য সংগ্রহকালে সাংবাদিক ইমদাদকে হুমকি দেয়া হয় বানিয়াচংয়ে ভুলবশত অর্পিত সম্পত্তির তালিকাভূক্ত না হওয়া ভূমি ভূয়া উত্তরাধিকারী দিয়ে রেজিষ্ট্রি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচংয়ে ভুলবশত অর্পিত সম্পত্তির তালিকাভূক্ত না হওয়া ভূমি ভূয়া উত্তরাধিকারী দিয়ে দলিল রেজিষ্ট্রি ও নামজারী করে দখলে নিয়েছে প্রভাবশালী ভূমিদস্যুরা। এ ঘটনার তথ্য সংগ্রহকালে বানিয়াচং প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সিনিয়র সাংবাদিক ইমদাদুল হোসেন খানকে কাফনের কাপড় ও চরমপত্র পাঠিয়ে মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত থাকার হুমকি দেয়া হয়।
জানা যায়, বানিয়াচং উপজেলার পুকড়া মৌজার ২৩৯ জে.এল স্থিত আর.এস ৬৯৯ খতিয়ানের ৬৪১ দাগের ৪৫ শতক ভূমির মালিক হরিচরণ রায় ওই ভূমি ফেলে রেখে ১৯৪৭ সালে দেশভাগের পর ভারত চলে যান। তার কোন উত্তরাধিকারী ভারতে ও বাংলাদেশে নেই। ভুলবশত ওই ভূমি অর্পিত সম্পত্তির তালিকাভূক্ত হয়নি। এলাকাবাসী ওই ভূমিটি সম্মিলিতভাবে ভোগদখল করে আসলেও ২০১৮ সালের ১৩ মার্চ এলাকার প্রভাবশালী ভূমিদস্যুরা আজমিরীগঞ্জ উপজেলার কাকাইলছেও ইউনিয়নের বদরপুর নয়াহাটি গ্রামের মৃত ক্ষিতিশ চন্দ্র সূত্রধরের পুত্র ক্ষিরোদ চন্দ্র সূত্রধরকে হরিচরণ রায়ের উত্তরাধিকারী সাজিয়ে তার নামে জাল জাতীয় পরিচয়পত্র ও জাল ওয়ারিশান সনদ বানিয়ে ৪টি দলিল রেজিষ্ট্রি করে ভূমি দখলে নেয়। জাল জাতীয় পরিচয়পত্রে ক্ষিরোদ সূত্রধরের নাম ছবি ও পরিচয়পত্র নম্বর (৩৬১০২৬৭৫৬০৪৭৭) ঠিক রেখে নাম ক্ষিরোদ চন্দ্র রায়, পিতার নাম ক্ষিতিশ চন্দ্র রায়, মাতার নাম জোৎস্না রাণী রায়, জন্ম তারিখ ১৮ এপ্রিল ১৯৯০ এর স্থলে ১৮ এপ্রিল ১৯৭৭ এবং ঠিকানা হিসেবে সাং-পুকড়া, হাল-সাং কাটাখালী, মিটামইন, কিশোরগঞ্জ লেখা হয়। এছাড়া পুকড়া ইউপি’র চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের সীল ও স্বাক্ষর জালিয়াতি করে অনুরূপভাবে একটি জাল ওয়ারিশান সনদ তৈরী করা হয়। এসবের ফটোকপি বানিয়াচং সাবরেজিষ্ট্র্রি অফিসে জমা দিয়ে সাবরেজিষ্ট্রার শংকর কুমার ধরের স্বাক্ষরে ৪টি জাল দলিল রেজিষ্ট্রি করা হয়। দলিলগুলোর নাম্বার ৮৬০/১৮, ৮৬১/১৮, ৮৬২/১৮ ও ৮৬৩/১৮ইং। পরবর্তীতে এসিল্যান্ড অফিসে জাল দলিলমুলে ২০১৮ সালের ৩০ এপ্রিল ৩টি নামজারী ও ২৮ আগস্ট একটি নামজারী করা হয়। নামজারী নং-১৭৯৪/১৭-১৮, ১৭৯৫/১৭-১৮, ১৭৯৬/১৭-১৮ ও ২০৭০/১৭-১৮ইং। মোট ৪৫ শতক ভূমির মধ্যে পুকড়া ইউনিয়নের কাটখাল গ্রামের মোঃ লুৎফুর রহমনের পুত্র হাফেজ মোঃ নাজমুল হাসান ৩০ শতক, একই গ্রামের মৃত হাজী জলাই মিয়ার পুত্র মোঃ মোফাজ্জল হক ওরফে ফরিদ মিয়া ও মোঃ রাসেল মিয়া ৫ শতক, আহমদপুর গ্রামের মোঃ ছদর হোসেনের পুত্র মোঃ কাজল মিয়া ৫ শতক ও পূর্ব পুকড়া গ্রামের মৃত চান মিয়া চৌধুরীর পুত্র মোঃ মিজানুর রহমান চৌধুরী ওরফে জুয়েল ৫ শতক ভূমির দখল নেন। তাদের দলিলগুলো সম্পাদন করেন একই ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের মৃত ফুল মিয়ার পুত্র দলিল লেখক মোঃ কুতুব উদ্দিন। এলাকাবাসী দলিল লেখকসহ দলিলের দাতা, গ্রহীতা, স্বাক্ষী, সনাক্তকারী সবাইকে ভূমিদস্যুচক্রের সদস্য আখ্যায়িত করে বলেন, এরা সবাই মিলে সাবরেজিষ্ট্রারকে মোটা অংকের উৎকোচ নিয়ে দলিলগুলো রেজিষ্ট্রি করিয়েছে। তারা পুরো ৪৫ শতক জায়গা সরকারের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে জনস্বার্থে ব্যবহারের জন্য প্রশাসনের কাছে দাবী জানান। এছাড়া জালিয়াতির দলিলগুলোসহ নামজারীগুলো বাতিল এবং ভূমিদস্যুচক্রকে আইনের আওতায় নিয়ে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীও করন। এলাকাবাসী বলেন, এই ভূমির পাশে নাগুড়া ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট রয়েছে। যদি দখলীয় ভূমি সরকারের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এই প্রতিষ্ঠানের কাছে হস্তান্তর করা হয় তাহলে উক্ত ভূমি সমগ্র বাংলাদেশের মানুষের উপকারের জন্য ব্যবহৃত হবে। অথবা হবিগঞ্জে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কৃষি বিশ^বিদ্যালয় নির্মাণের যে উদ্যোগ নিয়েছেন সেই বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের গবেষণাকাজের জন্যও ভূমিটি সরকারের নিয়ন্ত্রণে নেয়া যেতে পারে বলেও অনেকে অভিমত ব্যক্ত করছেন।
এ ব্যাপারে পুকড়া ইউপি’র চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, যে ওয়ারিশান সনদ দেখিয়ে দলিল করা হয়েছে তা জাল সনদ। আমি এ ধরণের কোন সনদ কখনো কাউকে দেইনি।
এ ব্যাপারে একটি দলিলের দাতার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দলিলের ব্যাপারে কিছুই জানেনা দাবী করে কেউ হয়তো তার ছবি সংগ্রহ করে জাল আইডি কার্ড ও ওয়ারিশান সনদ বানিয়ে এসব দিয়ে দলিল রেজিষ্ট্রি করে থাকতে পারে বলে জানান।
একটি দলিলের গ্রহীতা হাফেজ নাজমুল হাসান জানান, তিনি ঢাকায় থাকেন। জায়গার ব্যাপারে কিছুই জানতেন না। দলিল রেজিষ্ট্রির সময়ও ছিলেন না। তার আত্মীয় কাটখালের ফরিদ ও পুকড়ার মিজান বলেছেন ভালো জায়গা আছে, মালিক ভারতে থাকে। জায়গা বিক্রি করার জন্য দেশে এসেছে। অল্পদিনের সময় নিয়ে এসেছে, জায়গা বিক্রি করেই চলে যাবে। ফরিদ ও মিজান এভাবে বলায় তাদের কথা বিশ^াস করে জায়গা কিনতে রাজী হয়ে তিনি শুধু টাকা দিয়েছেন। বাকী সব তারা করেছে। দলিল হওয়ার পর এলাকা থেকে অনেকে তাকে ফোনে জানাচ্ছেন জায়গার মালিক নাকি সঠিক না।
এ ব্যাপারে দলিলের গ্রহীতা মিজানুর রহমান জুয়েল জানান, জায়গাটি হিন্দু মালিকের কাছ থেকে পশ্চিম পুকড়ার মৃত সৈয়দ আলীর ছেলে আকরম আলী মৌখিকভাবে কিনেছিলেন। তিনিই হিন্দু মালিককে এনে দলিল করে দিয়েছেন।
এ ব্যাপারে সাবরেজিষ্ট্রার শংকর কুমার ধর বলেন, তারা প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে এতবড় জালিয়াতি করেছে। দলিল লেখকের কাছে ব্যাখ্যা চাইবেন বলেও জানান।
উল্লেখ্য, এই সংবাদের তথ্য সংগ্রহকালে গত ৯ ডিসেম্বর সাংবাদিক ইমদাদুল হোসেন খানকে কাফনের কাপড় ও চরমপত্র পাঠিয়ে মৃত্যুর হুমকি দেয়া হয়।
এ ঘটনায় বানিয়াচং থানায় জিডি করা হয়। জিডি নং-৪২৭/১০-১২-২০১৯ইং। জিডি করার পর জড়িত থাকার প্রমাণ পেয়ে পুলিশ গত ১০ জানুয়ারী দলিলগুলোর স্বাক্ষীদের একজন পুকড়া গ্রামের হাফেজ মস্তোফা মিয়ার পুত্র নজিম উদ্দিন (৩০) কে গ্রেফতার করে। সে বর্তমানে জামিনে মুক্ত রয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com