সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:৪৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সিলেট এমসি কলেজে স্বামীকে বেধে স্ত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় ॥ হবিগঞ্জ থেকে ধর্ষক অর্জুন রনি ও রবিউল গ্রেফতার মাধবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় চালক ও হেলপার নিহত নবীগঞ্জের প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুলের অনিয়মের তদন্ত শুরু নবীগঞ্জে ৭ মামলার পলাতক আসামী ইয়াহিয়া অধরা বানিয়াচঙ্গের নয়াপাথারিয়া গ্রামের ডাবল মার্ডার মামলার আসামী যুবদল নেতা কুহিনুর আলম কারাগারে ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরীকে সংবর্ধনা সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ট উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলামকে গণসংবর্ধনা প্রদান হবিগঞ্জ জীবন বীমা কর্পোরেশন সেলস অফিসের ব্যবসা উন্নয়ন সভা অনুষ্ঠিত শহরে নাম্বার প্লেইটের দাবিতে শ্রমিকের বিক্ষোভ ও সমাবেশ দাবী আদায়ে অনশনের হুমকি লাখাইয়ে মেম্বারের বিরুদ্ধে চাল আত্নসাতের অভিযোগ
শ্রীমঙ্গলে হনুমান রক্ষায় এগিয়ে এলো র‌্যাব-৯

শ্রীমঙ্গলে হনুমান রক্ষায় এগিয়ে এলো র‌্যাব-৯

কাউছার আহমেদ রিয়ন, শ্রীমঙ্গল থেকে ॥ শ্রীমঙ্গলের পশ্চিম লইয়ার কুল এলাকায় গ্রাম বাসীর হাতে হনুমানের জীবন বিপন্ন হবার কথা শুনে হনুমান রক্ষায় এগিয়ে এলো র‌্যাব ৯। এর আগে গ্রামের মানুষের গাছের ফলমুল শাকসবজি খেয়ে ফেলা সহ মানুষের ঘড় বাড়িতে ঢুকার কারনে সাধারণ মানুষ ক্ষুব্দ হয়ে হনুমান মারতে লাঠিসোটা ও গুলতি নিয়ে তাড়া করে বেড়াচ্ছিলো গ্রামবাসী। পরে খবর পেয়ে র‌্যাবের একটি টিম গ্রামে গিয়ে মসজিদের মাইকে এলাউন্স করে ও সাধারণ জনগনকে হনুমানের উপর আক্রমণ না করার নির্দেশ দিয়ে আসে। র‌্যাব-৯ এর অপারেশন অফিসার এএসপি মোঃ আনোয়ার হোসেন শামীম বলেন, বন্যপ্রাণীগুলোর জীবন বিপন্ন জানতে পেরে আমরা তাদেরকে রক্ষার উদ্যোগ গ্রহণ করি। হনুমানগুলোকে রক্ষার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। র‌্যাব এলাকার ইউপি সদস্য নিয়াজ ইকবাল মাসুদের সাথে কথা বলে তাকে এ বিষয়ে দায়িত্ব প্রদান করেন। পরবর্তীতে র‌্যাব-৯ এর ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর শওকাতুল মোনায়েমের নির্দেশে র‌্যাবের একটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে হনুমানগুলোকে না মারার বিষয়ে এলাকাবাসীকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়ে আসে। অন্যান্য অপরাধ নির্মূলের পাশাপাশি বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য রক্ষায় আমাদের এমন তৎপরতা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে।
গ্রামের রিমন ইসলাম বলেন, সপ্তাহ খানেক ধরে ১০-১২ টি হনুমান এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। মানুষের খেতের সবজি, গাছের ফলমুল খেয়ে ফেলছে। মানুষের ঘরে পর্যন্ত ঢুকে যাচ্ছে। গ্রামবাসী খুবই আতঙ্কগ্রস্ত এসব হনুমানের কারনে। বিশেষ করে শিশুরা ঘর থেকে বের হতে পারছে না।
সরেজমিনে মঙ্গলবার পশ্চিম লইয়ার কুল এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে গাছগাছালি ঘেরা এই গ্রামে ১০ থ ১২ টি হনুমান একগাছ থেকে অন্যগাছে লাফিয়ে বেড়াচ্ছে। গ্রামের একটি তেতুল গাছে বসে তেতুল খাচ্ছে। শীমগাছের শীম খাচ্ছে। গ্রামবাসী লাঠি গুলতি ইত্যাদি নিয়ে বার বার তাদের তাড়া করছে। হনুমানরাও মানুষের দিকে ছুটে আসছে। গাছ গাছলির পাশাপাশি বিদ্যুতের হাই ভোল্টেজ তার রয়েছে। যেখানে যেকোন সময় তারা আঘাত প্রাপ্ত হতে পারে।
গ্রামের এক মুরব্বী (নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক) বলেন, সারাদিন রাত এসব হনুমানের যন্ত্রনায় থাকা দায়। আমার গাছের সব তেতুল খেয়ে নিয়েছে। যদি পাখি মারার বন্দুক পাই সব মেরে ফেলতাম। বাংলাদেশ বণ্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব বলেন, আমরা এই এলাকায় গিয়ে দেখে এসেছি। এলাকাটিতে প্রচুর গাছ ও বাশ ঝাড় রয়েছে। হনুমান গুলো গাছের মগডালে থাকায় তাদের ধরা যায় নি। এমনিতে হনুমান মানুষকে আক্রমণ করে না। তবে এই এলাকায় বৈদ্যুতিক লাইনে প্রানীগুলো বিদ্যুৎপৃষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাছাড়া গ্রামবাসী ক্ষুব্দ অবস্থায় থাকায় যেকোন সময় প্রানীগুলোর উপর হামলা হতে পারে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com