সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:৪৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সিলেট এমসি কলেজে স্বামীকে বেধে স্ত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় ॥ হবিগঞ্জ থেকে ধর্ষক অর্জুন রনি ও রবিউল গ্রেফতার মাধবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় চালক ও হেলপার নিহত নবীগঞ্জের প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুলের অনিয়মের তদন্ত শুরু নবীগঞ্জে ৭ মামলার পলাতক আসামী ইয়াহিয়া অধরা বানিয়াচঙ্গের নয়াপাথারিয়া গ্রামের ডাবল মার্ডার মামলার আসামী যুবদল নেতা কুহিনুর আলম কারাগারে ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরীকে সংবর্ধনা সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ট উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলামকে গণসংবর্ধনা প্রদান হবিগঞ্জ জীবন বীমা কর্পোরেশন সেলস অফিসের ব্যবসা উন্নয়ন সভা অনুষ্ঠিত শহরে নাম্বার প্লেইটের দাবিতে শ্রমিকের বিক্ষোভ ও সমাবেশ দাবী আদায়ে অনশনের হুমকি লাখাইয়ে মেম্বারের বিরুদ্ধে চাল আত্নসাতের অভিযোগ
হবিগঞ্জ পৌরসভায় দরপত্রের সিডিউল বিক্রয়ে অনিয়ম ॥ মেয়র বললেন অভিযোগ মিথ্যা

হবিগঞ্জ পৌরসভায় দরপত্রের সিডিউল বিক্রয়ে অনিয়ম ॥ মেয়র বললেন অভিযোগ মিথ্যা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ পৌরসভার দরপত্র বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে কয়েকজন ঠিকাদার জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
অভিযোগে জানা যায়, গত ১৫ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী দরপত্র আহ্বান করে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন। বিজ্ঞপ্তি নং-০৩ ২০১৯-২০২০ অর্থ বৎসর স্মারক নং-হঃপৌঃ/প্রকৌঃ/১৯/৭৫০ স্মারকে এডিপি ও রাজস্ব তহবিলের আওতায় ২১টি প্যাকেজের কাজ বাস্তবায়নের জন্য ঠিকাদারদের নিকট থেকে এই দরপত্র আহ্বান করা হয়। বিজ্ঞপ্তি অনুসারে গত ১৯ জানুয়ারি ও ২০ জানুয়ারি অভিযোগকারী ঠিকাদাররা জেলা প্রশাসক ও এলজিইডি কার্যালয়ে সিডিউল গ্রহণের জন্য গেলে জানানো হয় ২১টি প্যাকেজের মধ্যে ৯টি প্যাকেজ এর কাজ ক্রয় করা যাবে, বাকীগুলো ক্রয় করা যাবে না। কারন জানতে চাইলে তারা বিভিন্ন ধরণের তালবাহানা শুরু করেন। এ বিষয়ে ঠিকাদাররা পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলীকে জিজ্ঞেস করলে তিনি কোন সদোত্তর দিতে পারেন নি। পরে ঠিকাদাররা খবর নিয়ে জানতে পারেন বাকী ১২টি প্যাকেজের কাজ সিডিউল সিন্ডিকেটের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। যে কারণে সেগুলো বিক্রি করা হচ্ছে না। ঠিকাদাররা বিভিন্ন জায়গায় বিষয়টি জানানোর পরও কোন প্রতিকার হয়নি। নিরূপায় হয়ে আব্দুর রহমান, তুহিন খান ও রুহুল আমিন সিজিল জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন।
এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ পৌর সভার মেয়র মিজানুর রহমান মিজান বলেন, অভিযোগটি সম্পূর্ণ ভূয়া। তিনি বলেন, কোন সিডিউল বিক্রি নিয়ন্ত্রণ করা হয়নি। সকল সিডিউল উন্মুক্ত ছিল। তিনি বলেন, আমি সারা দিন পৌরসভা কার্যালয়ে ছিলাম। সিডিউল বিক্রি করা হয়নি এমন ধরণের কোন অভিযোগ আমার কাছে কেহ করেননি। একটি চক্র আমার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করে যাচ্ছে। এ ষড়যন্ত্রের অংশই এ অভিযোগ। যার কোন ভিত্তি নেই।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com