মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:০১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ব বিদ্যালয় সম্পর্কে নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করলেন আব্দুল মজিদ খান এমপি শহরে স্বস্তির বৃষ্টি হবিগঞ্জে নতুন করে ৬ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত নবীগঞ্জ চৌধুরী বাজারে ফিস সেড নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরী সুরতহাল ও ময়নাতদন্তে গড়মিল থাকায় মাধবপুরে ৩ মাস পর লাশ উত্তোলন শায়েস্তাগঞ্জে ভোক্তা অধিকারের অভিযান ॥ ৪ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা সাংবাদিক রাসেল চৌধুরী’র রোগমুক্তি কামনায় শাকিল চৌধুরীর মিলাদ ও দোয়া মাহফিল বাহুবলে ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে এডভোকেসী সভা মাধবপুরে ৭ জুয়াড়িকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের ২০ দিনের কারাদণ্ড ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরীর চুনারুঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন
কচুর লতি কুড়িয়ে জীবন যাচ্ছে আসুলতার ॥ ৮০ পেরিয়ে গেলেও জুটেনি বয়স্ক বা বিধবা ভাতা

কচুর লতি কুড়িয়ে জীবন যাচ্ছে আসুলতার ॥ ৮০ পেরিয়ে গেলেও জুটেনি বয়স্ক বা বিধবা ভাতা

আবুল কাসেম, লাখাই থেকে ॥ স্বামী সন্তান নেই। মাথা গোজার জন্য নিজের ভিটেটি ও নেই। নেই বলতে কিছুই নেই। পরের বসত ঘরে কোন রকম রাত পার করে সাত সকালেই দুই মুঠো ভাত জুগার করার তাগিদে প্রতিদিনেই বেরিয়ে যান বৃদ্ধা। কচুর লতি বিক্রি করে আর মানুষের ধারে ধারে ভিক্ষা করে বয়সের বাড়ে নোয়ে পড়া বৃদ্ধা এভাবেই জীবন পার করে নিচ্ছেন। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস এমনি অসহায় এক বৃদ্ধার দেখা মিলে লাখাই উপজেলার বুল্লা বাজারে। নাম তার আসুলতা সরকার। বয়স তার আনুমানিক (৮০)। বাজারের দোকানের পাশে বসে কি যেন ভাবছে আর দীর্ঘশ্বাস ফেলছে। তখনই জিজ্ঞাসা করা হয় তাকে। আপনার বাড়ি কোথায়। আপনার নাম কি। এ সময় কোন উত্তর মিলছে না। শ্রবণ শক্তি কম তাকায় দুই-এক বার জিজ্ঞাসা করার এক পর্যায়ে ওই বৃদ্ধা হাউ মাউ করে কেঁদে ফেলেন। অকপটে এ সময় তিনি এ প্রতিনিধি কে বলেন প্রায় ৩০ বছর আগে স্বামীকে হারান তিনি। স্বামী রায় চাঁন সরকারের জীবিত কালীন সময়ে তার ঔরসজাত এক মেয়ে পানিতে ডুবে আরেক মেয়ে বিয়ের দেওয়ার পর অসুক বিসুকে মারা যায়। এর পর থেকে পেটের ভাত যোগাতে এলাকায় আনাছে কানাছে কচুর লতি কুড়িয়ে বিক্রি করে আর ভিক্ষাবৃত্তি করে জীবন পার করে আসছেন আসুলতা। এখন আমার নেই বলতে কিছুই নেই। যা ছিল সবই হারিয়ে পেলেছি। বাবা এখন শুধু সবই স্মৃতি।
এর পর থেকেই এ প্রতিনিধি ওই বৃদ্ধার খোঁজ নিতে গত শনিবার (১০ জানুয়ারি) উপজেলার ভাটি এলাকার গোপালপুর গ্রামে গিয়ে সুনন্দ সরকারের বাড়িতে দেখা মিলে আসুলতার। ঘরের একটি করে মাটিতে এক টুকরো কম্বল যেন তেন একটা ছোট ছাদর গায়ে দিয়ে ঘুমিয়ে রয়েছে। বাড়ির মালিক সুনন্দ সরকারের স্ত্রী মালতী সরকারের কাছে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে আসুলতার কথা জিজ্ঞাসা করলে ঘুম থেকে ডেকে নিয়ে আসেন এই বৃদ্ধাকে। মালতী সরকার জানান, আমাদের দূরসম্পর্কের আত্মীয় আসুলতার কেউ না তাকার সুবাধে দীর্ঘদিন ধরে আমাদের বাড়িতে থাকছেন। একেইত স্বামীর সংসারে আমরা অভাব অনটনে ভুগছি। যে কারনে আসুলতার খাবার যোগান দেওয়া আমদের কষ্ট হয়ে যায়। এই বৃদ্ধ বয়সে আসুলতা এক গ্রাম থেকে অন্য গ্রামে গিয়ে কচুর লতি কুড়িয়ে বিক্রি করে যা-ই পায় তা দিয়ে কোন রকম বেছে খেয়ে দিন কাটায়। যে দিন লতা কুড়িয়ে পায় নি সে দিন ভিক্ষা করে ডাল চাল নিয়ে আসে। কান্না জরিত কন্ঠে আসুলতা সরকার বলেন, আমি বয়ষ্ক বা বিধবা ভাতা কিছুই পাইনি। এলাকার কোন চেয়ারম্যান মেম্বার আমার খোজ খবরও নেয় না। গ্রামের রতীশ নামের এক জন বলেন বিধির কি বিধান ঝর বৃষ্টি উপেক্ষা করে খাবার সংগ্রহের জন্য বিভিন্ন স্থানে যায় এই বয়সে। আসলেই তাকে দেখলে অনেক কষ্ট হয়। ওই গ্রামের পল্লী চিকিৎসক নিশি কান্ত সরকার এ প্রতিনিধি কে জানান, আসুলতা বর্ষার সময় কষ্ট করে কছুুর লতি সংগ্রহ করে সাতরিয়ে এবাড়ি থেকে ওবাড়ি গিয়ে বিক্রি করেন। তিনি নিজেও মাঝে মধ্যে তার নিকট থেকে লতি কিনে তাকেন। তবে আসুলতাকে সবাই বেলি নামে বেশি চিনেন বলে জানান তিনি। গোপালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কানু চন্দ্র দাস বলেন, আমি তাকে ভাল ভাবেই চিনি। তিনি প্রায়ই আমাদের স্কুলে আসেন। যতটুকু পারি সাধ্য অনুযায়ী তাকে যথসামান্ন সাহায্যে সহযোগিতা করে তাকি। সমাজের বৃত্তবানদের ওই অসহায় বৃদ্ধার প্রতি নজর দেওয়া প্রয়োজন বলে জানান তিনি। এ দিকে সাধারণ মানুষেরা মনে করেন সমাজের ধনী বা বিভিন্ন শ্রেণীর মানুষ ও সরকার যদি একটু নজর দেয় তা হলে অবহেলিত অসহায় আসুলতা দুই মুঠো ভাত খেয়ে বেচেঁ থাকতে পারবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com