শুক্রবার, ০৭ অগাস্ট ২০২০, ০৪:০৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজমিরীগঞ্জে বয়স্ক বিধবা ও প্রতিবন্ধি ভাতা না পাওয়ায় বঞ্চিতদের অবস্থান কর্মসূচি হবিগঞ্জ পৌর আওয়ামীলীগের আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল হিন্দু সেজে প্রতারণা করে যুবতীর সাথে প্রেম অতপর বিয়ের প্রস্তুতিকালে গাড়ি চালক টিটু মন্দির থেকে আটক যথাযোগ্য মর্যাদায় মরহুম শরীফ উদ্দিন এমপির মৃত্যুবার্ষিকী পালিত শায়েস্তাগঞ্জে ইয়াবা ও চোলাই মদসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক মাধবপুরের কালাপুর থেকে ১১০ পিস ইয়াবাসহ ১ ব্যক্তি আটক হবিগঞ্জ জেলায় শিওর ক্যাশের মাধ্যমে গ্রাকদের কাছে পৌছে যাচ্ছে উপবৃত্তি ও সরকারি অর্থ সহায়তার টাকা বানিয়াচঙ্গের মক্রমপুর ইউনিয়ন ছাত্র কল্যাণ পরিষদের নৌ-বিলাশ ধরমন্ডলে সিএনজি পার্কিং নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১ ॥ আহত ১০ মাধবপুরে প্রবাসীর স্ত্রীর বিষপানে আত্মহত্যা
কি নিয়ে বেঁচে থাকবে সম্মুখ সমরে নিহত শহীদ খালেকের বীর বিক্রমের পরিবার ?

কি নিয়ে বেঁচে থাকবে সম্মুখ সমরে নিহত শহীদ খালেকের বীর বিক্রমের পরিবার ?

নুরুল আমিন, চুনারুঘাট থেকে ॥ ২৫ বছরের টকবগে যুবক আঃ খালেক। দরিদ্র পরিবারের সন্তান। বাবা আঃ গফুর দিন মজুরী করে সংসার চালান। মা জমিলা খাতুন সংসারে এটা ওটা করেন। আঃ খালেক স্থানীয় বাজারে ঘুরাঘুরি করেন। আড্ডা দেন। এরই মাঝে ডাক আসে স্বাধীনতার। সীদ্ধান্ত নেন মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিবেন। বাবাকে বললেন তিনি যুদ্ধে যেতে চান। মা বাধা দিলেন। তিনি মাকে বললেন, মা গো, দেশ মাতাকে বাঁচাতে হলে যুদ্ধে যেতেই হবে যে। তুমি মানা করো না। মা এতে সায় দেননি। কোন একদিন আঃ খালেক খোয়াই নদী ডিঙ্গিয়ে চলে গেলেন ত্রিপুরায়। ট্রেনিং শেষ করে ৩নং সেক্টেরে মেজর শফি উল্লাহ’র অধীনে অপারেশন শুরু করেন। তিনি ভৈরব বাজার, শেরপুর ও রামগঙ্গা যুদ্ধে সাহসিকতার পরিচয় দেন তাই মেজর শফি উল্লা আঃ খালেককে নালুয়া চা বাগান অপারেশনে পাঠান। মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান আজাদ ও মুক্তিযোদ্ধা নমির খাঁন এ প্রতিবেদককে বলেন, আঃ খালেক বরাবরই সাহসিকতার স্বাক্ষর রাখতে চেষ্টা করতেন। যুদ্ধে নেশায় পাগল থাকতেন তিনি। দিনটি ছিলো ১৯৭১ সালের ১৪ মে। চুনারুঘাট উপজেলার নালুয়া চা বাগানে একদল মুক্তিযোদ্ধা অপারেশন করতে আসেন। সাথে ছিলেন আঃ খালেক। চুনারুঘাটে অবস্থানরত পাক বাহিনীর কমান্ডার ইউসুফ খানের নেতৃত্বে পাক বাহিনীর একদল সেনা নালুয়ার নালুয়াতে টহলে আসে। এর আগে তারা নালুয়ার ১৮ জন চা শ্রমিককে হত্যা করে একটি কুঁয়োতে পুঁতে দেয়। এ বিষয়টি মেনে নিতে পারছিলেন না আঃ খালেক। তিনি সীদ্ধান্ত নেন সেই পাক বাহিনীর সদস্যদের খতম না করে তিনি দেশে ফিরবেন না। ১৪ মে মুক্তিবাহিনীর সাথে পাক বাহিনীর যুদ্ধ শুরু হলো। সেই অপারেশনে সক্রীয় অংশ নেন আঃ খালেক। তিনি আত্ম রক্ষার কথা না ভেবে উঠে দাঁড়ালেন। গুলিবর্ষন করছেন আর এগিয়ে যাচ্ছেন সামনের দিকে। এতে নিহত হলো পাক সেনার ১০২ জন সদস্য। পাক হায়নার ব্রাশ ফায়ারে আঃ খালেকের বুক ঝাঁঝড়া হয়ে গেলো। সংঙ্গীয় নমির খানসহ অন্যান্যরা শহীদ খালেককে বাধ্য হয়ে নালুয়া চা বাগানের একটি টিলায় কবর দিয়ে চলে গেলেন ত্রিপরায়। দেশ স্বাধীনের পর সম্মুখ সমরে নিহত আঃ খালেককে বীর বিক্রম উপাধীতে ভুষিত করা হয়। স্বাধীনতার বেশ কয়েক বছর পর তৎক্ষালিন বিডিআর আঃ খালেকের কবরকে টাইলস দিয়ে মুড়িয়ে দিলো। তিনি হীম শীতল পরিবেশে শায়িত রয়েছেন অনন্তকালের জন্য। শহীদ আঃ খালেকের বাড়ি। আহম্মদাবাদ ইউপি’র থৈগাও গ্রামে। এখান থেকে তার ছোট ভাই মা বাবাকে নিয়ে পাশের গ্রাম গাদিশালে চলে আসেন। আঃ খালেকের মা বাবা এখন আর জীবিত নেই। বেঁচে আছেন তার ভাই আলী হুসেন। আলী হুসেন দিন মজুর। তার সেলিনা আক্তারকে ডিগ্রী পাশ করিয়েছেন ধার দেনা করে। ছেলে নুরুজ্জামান চুনারুঘাট কলেজে অধ্যায়নরত। বীর বিক্রম আঃ খালেকের ভাই আলী হুসেন বলেন, নাই বলতে তার কিছুই নাই। একমাত্র ভাইটিকে তারা স্বাধীনতার তরে বলি দিয়েছেন। পাননি এখনো কিছুই। তিনি আফসোস করে বলেন, মেয়েটির একটি চাকরি হলেও বেঁচে যেতো তার পরিবার। ভাঙ্গা ঘরেই তাদের বসবাস করতে হচ্ছে। এরপরও তাদের নেই কোন অভিযোগ। শহীদ এই পরিবারটির আশা সরকার তাদের জন্য কিছু একটা করবে যেটা নিয়ে তারা বেঁচে থাকবেন মাথা উঁচু করে। এটাই হবে তাদের শান্তনা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com