শুক্রবার, ০৭ অগাস্ট ২০২০, ০৪:৪২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজমিরীগঞ্জে বয়স্ক বিধবা ও প্রতিবন্ধি ভাতা না পাওয়ায় বঞ্চিতদের অবস্থান কর্মসূচি হবিগঞ্জ পৌর আওয়ামীলীগের আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল হিন্দু সেজে প্রতারণা করে যুবতীর সাথে প্রেম অতপর বিয়ের প্রস্তুতিকালে গাড়ি চালক টিটু মন্দির থেকে আটক যথাযোগ্য মর্যাদায় মরহুম শরীফ উদ্দিন এমপির মৃত্যুবার্ষিকী পালিত শায়েস্তাগঞ্জে ইয়াবা ও চোলাই মদসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক মাধবপুরের কালাপুর থেকে ১১০ পিস ইয়াবাসহ ১ ব্যক্তি আটক হবিগঞ্জ জেলায় শিওর ক্যাশের মাধ্যমে গ্রাকদের কাছে পৌছে যাচ্ছে উপবৃত্তি ও সরকারি অর্থ সহায়তার টাকা বানিয়াচঙ্গের মক্রমপুর ইউনিয়ন ছাত্র কল্যাণ পরিষদের নৌ-বিলাশ ধরমন্ডলে সিএনজি পার্কিং নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১ ॥ আহত ১০ মাধবপুরে প্রবাসীর স্ত্রীর বিষপানে আত্মহত্যা
উমেদনগর গ্রামে পৈত্রিক সম্পত্তি রক্ষায় প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন হালিমা নামে শিক্ষিকা

উমেদনগর গ্রামে পৈত্রিক সম্পত্তি রক্ষায় প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন হালিমা নামে শিক্ষিকা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ পৌর এলাকার উমেদনগর গ্রামে মা-বাবার সম্পত্তি রক্ষার করার জন্য প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন হালিমা খাতুন নামে এক স্কুল শিক্ষিকা। গতকাল সকালে হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ সহযোগিতা চান। সংবাদ সম্মেলন হবিগঞ্জ শহরের চৌধুরী বাজার পুরাতন খোয়াইমুখ এলাকার বাসিন্দা ও শায়েস্তাগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র সহকারি শিক্ষিকা হালিমা খাতুন বলেন-তিনি উমেদনগর গ্রামের চেয়ারম্যান বাড়ির মরহুম আকবর আলী ও মরহুমা মযূর চান বিরি কন্যা। তার বাবা, মা মারা যাবার পর তাদের সম্পত্তি ভোগ দখল করে আসছেন তিনি। কিন্তু উক্ত সম্পত্তি জোর পূর্বক ভোগ দখল করার জন্য বিভিন্ন সময় বিভিন্নজন পায়তারা করেন। তিনি বলেন-হবিগঞ্জ সদর উপজেলার আথুকুড়া মৌজা, জেএল নং-২১৭, খতিয়ান নং-৫৪, ৭০০, দাগ নং-৩৯০৪, মোয়াজি-১.৫৩ শতক। উক্ত জায়গার প্রকৃত মালিক হালিমা খাতুনের নানা মিয়াধন উল্লা ওরফে মিয়াধন মিয়া। মিয়াধন উল্লা মিারা যাবার সময় ২স্ত্রী ও সন্তান রেখে যান। বিগত এসএ জরিপের সময় হালিমা খাতুনের নানা মিয়াধন উল্লার কোনো কোন দাগের ভূমি তার মামা মমিনুল ইসলামের নামে ভূলবশত রেকর্ড হলেও তারা ভোগ দখল করে থাকেন। এ অবস্থায় হালিমা খাতুনের নানার বোনের ছেলে আবুল হোসেন বাটোয়ারার দাবিতে ১৪৯/১৯৭৭ ইং স্বত্ব মোকদ্দমা দায়ের করেন। ওই মামলায় হালিমা খাতুনের মামাতো ভাই মমিনুল ইসলামের ছেলে নুরুল ইসলাম গং জবাব দাখিল করেছিলেন। এতে নি¤œ তফসিল বর্ণিত ভূমি হালিমা খাতুনের নানা মিয়াধন উল্লার একক সম্পত্তি বলে দাবি করেছিলেন। কিš’ হালিমা খাতুনের মামা ম”ত্যুর পর উমেদনগর গ্রামের মরহুম জহুর উদ্দিনের পুত্র মর্তুজ আলী তাদের অসহায়ত্বের সুযোগে সম্পত্তি আত্মসাত করার জন্য জাল দলিল স”ষ্টি করে। ১৯৯৮ সালের সেটেলমেন্ট জরিপে সময় হালিমার মা ও খালা, তার নামে উক্ত ভূমির হিস্যা মোতাবেক মাঠপর্চা দেন। যার খতিয়ান নং-১১৩২৯। পরবর্তীতে মর্তুজ আলীর নামে তফসিল বর্ণিত ভূমি রেকর্ড হয়। এ অবস্থায় হালিমা খাতুন গংরা ১৯৯৮ সালে হবিগঞ্জ সিনিয়র সহকারি জজ আদালতে স্বত্ব মোকদ্দমা মামলা দায়ের করেন। মামলার নং-১৬৮। ওই মোকাদ্দমায় ১৯৯৮ সালের ২২ অক্টোবর ১৬৫ নং মোকাদমায় মর্তুজ আলী গংদের বিরুদ্ধে আদালত অস্থায়ী ও অন্তবর্তীকালীন আদেশ প্রদান করেন। ইদানিং মিজানুর রহমানের লোকজন ওই ভূমি মাটি ফেলে দখলের চেষ্ঠা করছেন। সংবাদ সম্মেলনে হালিমা খাতুন বলেন-মাটি ফেলতে বাধা প্রদান করলে পাল্টা তাকে হুমকি প্রদান করে। এ অবস্থায় তিনি প্রধানমন্ত্রী, ভূমিমন্ত্রী, স্বরাষ্টমন্ত্রী কাছে জায়গা উদ্ধারের জন্য আহ্বান জানান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com