বৃহস্পতিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:০৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে টিসিবির পেয়াজ কিনতে গিয়ে ট্রাক থেকে পড়ে আহত ১ বানিয়াচঙ্গে প্রতিবন্ধীর ভাতা ছিনিয়ে নিলেন এক সমাজকর্মী ও ইউপি সদস্য আওয়ামীলীগ জগণের উন্নয়ন ও অগ্রগতির লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে-এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জ হাসপাতালে রোগীদের খাবারের মান নিয়ে নানা প্রশ্ন ? একটি টেকসই বিশ্ব গড়তে বাংলাদেশ আইএমও এর সদস্য দেশসমূহের সাথে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করবে-ড. মোহাম্মদ শাহ্ নেওয়াজ নবীগঞ্জে উপজেলা যুবলীগের শহীদ শেখ ফজলুল হক মণির জন্মদিন পালিত যুবলীগের উদ্যোগে শেখ ফজলুল হক মনি’র ৮০তম জন্মদিন উদযাপন মাধবপুর উপজেলার শ্রেষ্ট বিদ্যুৎসাহী সাংবাদিক অলিদ ঢাকার ব্যবসায়ীর আবেদনের প্রেক্ষিতে পাওনা টাকা উদ্ধার করে দিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম আজমিরীগঞ্জে বিষপানে গৃহবধুর আত্মহত্যা
লবন নিয়ে গুজব ॥ মুদির দোকানে ক্রেতাদের ভীড়

লবন নিয়ে গুজব ॥ মুদির দোকানে ক্রেতাদের ভীড়

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পেয়াজের উর্ধমুখি বাজারকে সামনে রেখে লবনের দামও বৃদ্ধি পাবে বলে কিছু অসাধু লোক গুজব ছড়াচ্ছে। গতকাল পুরো জেলায় এ গুজব ছড়িয়ে পড়লে লোকজন লবন কেনার জন্য ছুটে বেড়ায় মুদি দোকানে। শহর-গ্রাম সর্বত্র গতকাল বিকেল থেকে লবনের গুজব নিয়েই আলোচনা হচ্ছে। কারা এ গুজন ছড়াচ্ছে তাদের দ্রুত চিহ্নিত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসার দাবী জানিয়েছেন সচেতন মহল।
নবীগঞ্জ থেকে ছনি চৌধুরী জানান, নবীগঞ্জে পেয়াজের পাশাপাশি যুক্ত হয়েছে লবন। লবনের প্রতি কেজি হবে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা এমন গুজবে ভাসছে পুরো উপজেলা। এর ফলে গতকাল সোমবার সন্ধ্যার পর থেকে নবীগঞ্জ শহরসহ ইনাতগঞ্জ, গজনাইপুর, আউশকান্দিসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের প্রায় প্রত্যেকটি বাজারে হঠাৎ লবনের দাম বৃদ্ধি করে দেন ব্যবসায়ীরা। চারিদিকে চাওড় হয় লবনের দাম। প্রতি কেজি ১০০ থেকে ১২০ টাকা দাম হাঁকাচ্ছে ব্যবসায়ীরা। শুরু হয় লবন কেনার হিড়িক। লবনের স্বাভাবিক দাম ৩০ টাকা হলেও দাম বাড়ার সংবাদটি জানার পর প্রতিটি বাজারের প্রত্যেক দোকানে ৫০/৬০ টাকা কেজিতে মানুষ লাইন ধরে লবন কিনতে দেখা যায়। একেকটা দোকানে ব্যবসায়ীরা ৫ থেকে ১০ মন করে লবন বিক্রি করেছেন। ছোটখাটো মুদি দোকানিরাও যে যার মত করে লবন বিক্রি করছেন। এক ঘন্টার মধ্যে প্রায় দোকানেই লবন শুন্য হয়ে পড়ে। মঙ্গলবার থেকে লবনের প্রতি কেজি হবে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা এমন গুজবে ভাসছে পুরো উপজেলা। এদিকে এসব প্রপাগন্ডা ছড়িয়ে অসাধু ব্যবসায়ীরা ব্যক্তিগতভাবে লবনের দাম বাড়িয়ে বিক্রি দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের সামিল বলে মন্তব্য করেছেন বিশিষ্টজনরা। এদিকে গুজবের খবর পেয়ে রাত ১১টায় নবীগঞ্জ থানার একদল পুলিশ শহরে টহল দেয়। গুজবে কান না দিতে আহবান জানিয়েছেন উপজেলা প্রশাসন।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদ বিন হাসান বলেন, যেসব ব্যবসায়ী অধিক লাভের আশায় ব্যক্তিগত দাম বাড়াবে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
এদিকে আজমিরীগঞ্জে শুরু হয়েছে লবন নিয়ে গুজব। মুহুর্তের মাঝে বাজারের অধিকাংশ মুদির দোকান লবন শূন্য। আজমিরীগঞ্জ উপজেলা সদরে গতকাল সোমবার সন্ধ্যার পর লবন নিয়ে গুজব শুরু হয়। তবে এ গুজব কে বা কারা ছড়াচ্ছে, কেউ তা বলতে পারেনি। সন্ধ্যার পর সরজমিনে বাজারে গিয়ে দেখা যায়, বাজারের মুদি দোকান সমূহে লবনের ক্রেতাদের ভীড়। অনেক দোকানে লাইন ধরে লবন কিনতে দেখা যায় ক্রেতাদের। গুজব ছড়াচ্ছে যে, দেশে লবনের সংকট তৈরি হবে। প্রতি কেজি লবন ১শ টাকা করে কিনতে হবে। তাই তারা পূর্ব থেকেই লবন কিনে মজুদ করছেন। অনেক ক্রেতা জানান, তারা সিলেটে মোবাইল ফোনে জানতে পেরেছেন যে, সিলেটে প্রতিকেজি লবন ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা করে বিক্রী করা হচ্ছে। তবে আজমিরীগঞ্জ বাজারে প্যাকেটের গায়ে প্রতিকেজি লবনের মূল্য ৩৫ টাকা লিখা থাকায়, বিক্রেতারা প্রথমে ৩৫ টাকা পর ক্রেতা সাধারণের ভীড় দেখে তারা প্রতিকেজি প্যাকেটে ৫ থেকে ১০ টাকা বেশী অর্থ্যাৎ ৪০ থেকে ৫০ টাকা করে বিক্রী করছেন। আবার বস্তা ভর্তি অর্থাৎ খোলা লবন প্রতি কেজি ২০ টাকা দরে বিক্রী করতে দেখা গেছে। টান বাজারের মুদির দোকানদার অর্জুন রায়, সমর রায়, হরিপদ রায়, শামছু মিয়া ও বিকাশ মোদক সহ বিভিন্ন মুদির দোকানের মালিক সন্ধ্যার পর থেকে রাত সাড়ে ১০টার মধ্যে কয়েক টন লবন বিক্রি করেছে তারা। পৌর এলাকার বিভিন্ন গ্রামের বাসিন্দাদের অনেকেই ৫ থেকে ১০ কেজি করে, আবার গ্রাম্য দোকানদারগণ বস্তা হিসেবে লবন কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। রাত অনুমানিক সাড়ে ১১টায় বাজারের অধিকাংশ মুদির দোকানে লবন সংকট দেখা দেয়। লবন কিনতে না পেরে অনেককেই শূন্য হাতে বাড়ি ফিরে যেতে দেখা গেছে।
এ ব্যাপারে স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরা রাত অনুমানিক সাড়ে ৯টায় লবন নিয়ে গুজব তথা লঙ্খাকান্ডের বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ নাঈমা খন্দকারকে অবহিত করে। তবে খবর পেয়ে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মাঠে নামলেও তাদের কথা কর্ণপাত করেনি কেউ।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com