বৃহস্পতিবার, ০৯ Jul ২০২০, ০৮:৩২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বানিয়াচং ৫/৬ নং বাজার উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র মানুষের জীবন নিয়ে খামখেয়ালীপনা রোগীদের মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ প্রদান দায়িত্বশীলদের দায়সারা বক্তব্য-বিষয়টি জানা ছিল না ! চুনারুঘাটে ভাইয়ের হাতে প্রতিবন্ধী ভাই খুন ঘাতক ভাই-ভাতিজা গ্রেফতার শহরতলীর পূর্ব ভাদৈয়ে জোরপূর্বক ভিটা থেকে উচ্ছেদ করতে ভোররাতে ঘুমন্ত পরিবারের উপর হামলা ভাংচুর নবীগঞ্জে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত সেই কিশোরের মৃত্যু জেলায় নতুন করে ২৮ জন করোনায় আক্রান্ত এতিম শিশুদের স্বজনদের পাশে এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জে দু’বায়রা ভাইয়ের বিরোধ ॥ হামলায় আহত ১ আজমিরীগঞ্জে নবাগত নির্বাহী অফিসার মতিউর খান সিলেট বিভাগে কোভিডে আক্রান্ত হবিগঞ্জ ৩য় স্থানে হবিগঞ্জে কলেজ শিক্ষকদের মানববন্ধন
লাখাইয়ে শিশুকে হাত পা বেঁধে পানিতে ফেলে হত্যার দায়ে যুবকের যাবজ্জীবন

লাখাইয়ে শিশুকে হাত পা বেঁধে পানিতে ফেলে হত্যার দায়ে যুবকের যাবজ্জীবন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ লাখাইয়ে শিশু রুবেল মিয়াকে (৯) হাত-পা বেঁধে পানিতে ফেলে হত্যার দায়ে এক যুবকের যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। একই সাথে তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৫ বছর কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। দন্ডিত যুবক ওই উপজেলা ধর্মপুর গ্রামের আব্দুল হাইয়ের পালিত পুত্র রায়হান মিয়া ওরফে জাবেদ রায়হান (৩১)। বুধবার উল্লেখিত রায় দেন হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ এস এম নাসিম রেজার আদালত। আদালতের পরিদর্শক মোঃ আল-আমিন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, রায়হান মিয়া রমনা থানার শিকদার বাড়ি এলাকার শাহজাহান মোল্লার ছেলে। রায় ঘোষণার সময় তিনি আদালতে উপস্থিত ছিলেন।
মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা যায়, রায়হান লাখাই উপজেলার ধর্মপুর গ্রামের আব্দুল হাইকে বাবা ডেকে সেখানেই বসবাস করে আসছিলেন। ২০০৩ সালের ৮ আগস্ট একই গ্রামের শরীফ মিয়ার ছেলে রুবেলকে মাছ ধরার কথা বলে নৌকায় করে পার্শ্ববর্তী হাওরে নিয়ে বলৎকারের চেষ্টা চালায় সে। এ সময় শিশু রুবেল চিৎকার শুরু করলে রায়হান ক্ষিপ্ত হয়ে তার হাত-পা বেঁধে পানিতে ফেলে দেয়। ঘটনার ৩ দিন পর হাওরে ভাসমান অবস্থায় তার মৃতদেহটি দেখতে পান স্থানীয়রা। ১১ আগস্ট মরদেহ উদ্ধারের পর রুবেলের বাবা বাদি হয়ে রায়হানকে একমাত্র আসামি করে লাখাই থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ২০০৫ সালের ৫ অক্টোবর লাখাই থানার তৎকালীন উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাহজাহান মিয়া তদন্ত শেষে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। হত্যাকান্ডের দীর্ঘ ১৬ বছর পর ১১ জন সাক্ষির সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত উল্লেখিত রায় ঘোষণা করেন।
হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট আব্দুল আহাদ ফারুক জানান, রায় ঘোষণার পর রুবেলের পরিবার সন্তোষ প্রকাশ করেছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com