রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:২৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাট সীমান্তের মাদক সম্রাট দুলন গ্রেফতার ॥ এলাকায় উল্লাস, মিষ্টি বিতরণ শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার হবিগঞ্জে কনফারেন্সে ড. বোরহান উদ্দিন ॥ ভারত উপমহাদেশে আ’লা হযরত ছিলেন আশির্বাদ স্বরূপ বাহুবলে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত খেলাধূলার উন্নয়নে আন্তরিকতা অব্যাহত থাকবে-এমপি আবু জাহির বাহুবলে ৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি হবিগঞ্জ জেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষে বিশেষ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত বানিয়াচঙ্গের এক গৃহবধূ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাইপাস সড়কে অবৈধভাবে আবারো জায়গা দখল চলছে
নবীগঞ্জে সন্ত্রাসী মুছা ১০ দিনেও অধরা

নবীগঞ্জে সন্ত্রাসী মুছা ১০ দিনেও অধরা

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জে দুই পুলিশ কর্মকর্তার উপর হামলাকারী তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী সোহান আহমেদ মুছাকে ১০দিনেও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে এবং আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করেও মুছার কোনো হদিস পাচ্ছেনা পুলিশ। নবীগঞ্জ পৌর এলাকার সালামতপুর গ্রামের খোরশেদ মিয়ার পুত্র উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সোহান আহমদ মুছা।
গত ১২ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী সোহান আহমেদ মুছাকে ধরতে নবীগঞ্জ শহরতলীর সালামতপুর এলাকায় অভিযান চালায় নবীগঞ্জ থানার একদল পুলিশ। অভিযানকালে নবীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) উত্তম কুমার দাশ এবং এসআই ফখরুজ্জামানকে কুপিয়ে পালিয়ে যায় মুছা ও তার সহযোগীরা। এ ঘটনায় নবীগঞ্জ থানার এসআই ফিরোজ আহমেদ বাদী হয়ে ১৫ জন আসামীর নাম উল্লেখ করে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই দিন রাতেই মুছার মা সামছুন্নাহার (৫০), বোন মৌসুমি আক্তার (২৬), শাম্মী আক্তার (২২), তন্নী আক্তারকে (১৯) গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়। এরপর মুছার সহযোগী আহমদ হোসেন (২০), মুছার ভগ্নিপতি মামলার অন্যতম আসামি কামাল হোসেনকে (২৯) গ্রেফতার করে পুলিশ। সর্বশেষ শুক্রবার রাতে পুলিশের উপর হামলার ঘটনার এজাহার ভুক্ত আসামী সন্ত্রাসী মুছার একান্ত সহযোগী আলোচিত হেভেন হত্যা মামলার আসামী হাবিবুর রহমান কাশেমকে (২৭) বানিয়াচং উপজেলার ঈদগাহ বাজার এলাকা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
উল্লেখিত আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ।
নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন বলেন, পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় সরাসরি জড়িত থাকার অভিযোগে এখন পর্যন্ত মুছার মা বোনসহ ৭জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আশা করি দ্রুত মুছাকেও গ্রেফতার করতে সক্ষম হবো।
একের পর এক সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের পর সর্বশেষ পুলিশ কর্মকর্তাকে কুপিয়ে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সোহান আহমেদ মুছা আবারো আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। তার বিরুদ্ধে হত্যা, ডাকাতি, মাদক অপহরণসহ ৯টি মামলা চলমান থাকার পরও সে ছিল বেপরোয়া।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com