রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:২৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাট সীমান্তের মাদক সম্রাট দুলন গ্রেফতার ॥ এলাকায় উল্লাস, মিষ্টি বিতরণ শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার হবিগঞ্জে কনফারেন্সে ড. বোরহান উদ্দিন ॥ ভারত উপমহাদেশে আ’লা হযরত ছিলেন আশির্বাদ স্বরূপ বাহুবলে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত খেলাধূলার উন্নয়নে আন্তরিকতা অব্যাহত থাকবে-এমপি আবু জাহির বাহুবলে ৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি হবিগঞ্জ জেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষে বিশেষ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত বানিয়াচঙ্গের এক গৃহবধূ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাইপাস সড়কে অবৈধভাবে আবারো জায়গা দখল চলছে
লাখাইয়ে প্রবাসী পরিবারকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী ॥ পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা

লাখাইয়ে প্রবাসী পরিবারকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী ॥ পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ লাখাই উপজেলার ২নং মোড়াকরি ইউনিয়নের মানপুর গ্রামের একটি প্রবাসী পরিবারকে একের পর এক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। একটি নারী নির্যাতন থেকে অব্যাহতি পাওয়ায় আরেকটি নারী নির্যাতনের মামলা দায়ের করার ঘটনাও ঘটেছে। তাছাড়া প্রবাসী পরিবারের দেশে অবস্থানকারী লোকদের বিরুদ্ধে চুরি ছিনতাইসহ বিভিন্ন মামলা দায়েরেরও অভিযোগ রয়েছে। এ ব্যাপারে পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভূক্তভোগি পরিবার।
জানা যায়, লাখাই উপজেলার মানপুর গ্রামের তোফায়েল আহমেদের পরিবারের সাথে সাবেক মেম্বার ইউসুফ আলীর পরিবারের লোকজনের গ্রাম্য বিরোধ রয়েছে। গ্রাম্য বিরোধকে কেন্দ্র করে ১৯৮৪ সাল থেকে অন্তত এক ডজন মামলা দায়ের করা হয়েছে তোফায়েল আহমদের পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে। ১৯৮৪ সালে সিআর ১১৮/৮৪নং মামলাটি মিথ্যা হওয়ায় তা খারিজ করে দেন আদালত। এরপর আদালত থেকে একেকটি মামলায় খালাস পেলে বা আদালত মামলা খারিজ করে দিলে নতুন আরও একটি মামলা বসায় মৃত ইউসুফ আলী মেম্বারের পুত্র ও তার স্বজনরা। মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে ইউসুফ আলী মেম্বারের পরিবারের সদস্যরাই শুধু বাদী হয়নি তার কাছের ও দুরের আত্মীয় স্বজনকেও হাতিয়ার হিসাবে মামলার বাদী বানানো হয়েছে।
২০১৮ সালে গোলবাহার নামের এক মহিলাকে দিয়ে তোফায়েল আহমেদ এর চাচা ফারুক আহমেদকে আসামী করে নারী নির্যাতনের (নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(৪)(খ) ধারা) মামলা দায়ের করা হয়। একই বছরের ২৩ অক্টোবর তারিখে মিথ্যা মামলা থেকে অব্যাহতি পান ফার”ক আহমদ।
২০১৯ সালে এসে ইউসুফ আলী মেম্বারের ভাতিজা শাহিন মিয়া বাদী হয়ে তোফায়েল আহমেদের বাবা মোশাররফ আহমেদের বিরুদ্ধে আরেকটি নারী নির্যাতনের (নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(৪) (খ) ধারা) মামলা দায়ের করে। এবার ভিকটিম সাজানো হয়েছে সাড়ে তিন বছরের এক শিশুকে।
তোফায়েল আহমেদ বলেন- ইউসুফ আলী মেম্বারের পরিবারের সাথে আমাদের বিরোধ রয়েছে। সেই পরিবারের লোকজনের সাথে আমাদের কোনো উঠাবসা নেই। সেখানে কোনো একজন মহিলাকে ইভটিজিং করা কিংবা আমার বাবার মতো একজন বৃদ্ধ মানুষের দ্বারা তিন বছরের কোনো শিশুকে ইভটিজিং বা যৌন হয়রানী করা কতটা বিশ্বাসযোগ্য। আমাদের পরিবারের অনেক সদস্য জাপানেসহ বিভিন্ন দেশে আছেন, আমরাও ঢাকায় বসবাস করে থাকি, আমি নিজেও ঢাকায় পড়ালেখা করি তারপরও আমি বিভিন্ন মামলার আসামী। আমাদের পরিবারকে ধ্বংস করার জন্য, সমাজে হেয় করার জন্য ইউসুফ আলীর পুত্র আব্দুল হান্নান ও তার ভাইয়েরা এবং ঢাকায় অব¯’ানকারী তাদের ঘনিষ্টজনরা কলাকাঠি নাড়ছে।
তোফায়েল আহমেদ জানান- আমরা পুলিশ সুপার বরাবরে একটি আবেদন করেছি। একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা কিংবা পুলিশ সুপার স্বয়ং নিজে তদন্ত করলেও প্রকৃত ঘটনা বেরিয়ে আসবে। আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। মিথ্যা মামলায় আমরা বারবার হয়রানীর স্বীকার হলে আইনের শাসনের পরিপন্থী হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com