রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:২৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাট সীমান্তের মাদক সম্রাট দুলন গ্রেফতার ॥ এলাকায় উল্লাস, মিষ্টি বিতরণ শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার হবিগঞ্জে কনফারেন্সে ড. বোরহান উদ্দিন ॥ ভারত উপমহাদেশে আ’লা হযরত ছিলেন আশির্বাদ স্বরূপ বাহুবলে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত খেলাধূলার উন্নয়নে আন্তরিকতা অব্যাহত থাকবে-এমপি আবু জাহির বাহুবলে ৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি হবিগঞ্জ জেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষে বিশেষ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত বানিয়াচঙ্গের এক গৃহবধূ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাইপাস সড়কে অবৈধভাবে আবারো জায়গা দখল চলছে
আজ কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস

আজ কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আজ কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস। ১৯৭১ সনের এই দিনে পাক হানাদার বাহিনী ১২৭ জনকে হত্যা করেছিল। লাখাই উপজেলার লাখাই ইউনিয়নে কৃষ্ণপুর গ্রামটি অবস্থিত। হিন্দু ধর্মাবলম্বী অবস্থিত গ্রামটিতে প্রায় ২ হাজার লোকের বসবাস। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় কৃষ্ণপুর গ্রামের অমরেন্দ্র লাল রায়ের নেতৃত্বে অনেক যুবক মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করার জন্য ভারতে চলে যায় এবং সরাসরি পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেন।
যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন প্রত্যন্ত অঞ্চল হিসাবে নিরাপদ মনে করে গ্রামের মানুষের আত্মীয়-স্বজন সহ বহু মানুষ পালিয়ে এসে এ গ্রামে আশ্রয় গ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ১৯৭১ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর ভোর ৫টার সময় পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী এবং এলাকার স্থানীয় রাজাকার আলবদর বাহিনীসহ পুরো গ্রাম ঘিরে ফেলে। তখন ছিল বর্ষাকাল। গ্রামের চতুর্দিকে ছিল ভরাবর্ষার পানি। গ্রামের মানুষ টের পেয়ে ছুটোছুটি করতে থাকে। অনেকে ভয়ে পুকুরের কচুরিপানার নীচে লুকিয়ে থাকে। অন্যদিকে হানাদার বাহিনীর চলতে থাকে নিষ্টুরতম অভিযান। যাকে যেভাবে পেয়েছে গুলি করে কিংবা বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে মারতে থাকে। অনেককে ধরে এনে যদু নন্দন রায়ের ওয়াল ঘেরা বাড়ীতে এনে লাইনে দাড় করিয়ে গুলি করে হত্যা করে। যুবতী মেয়েদের ধরে এনে সম্ভ্রমহানি ঘটায়। বিকেল ৫ টা পর্যন্ত চলে পাক হানাদার বাহিনী ও রাজাকার আলবদরদের পৈশাচিক কান্ড। পরে এরা চলে যায়। এইদিন তারা গ্রামের ও গ্রামের বাহিরের ১২৭ জনকে নিষ্টুর ভাবে হত্যা করে এবং অনেক লোক মারাত্মক ভাবে আহত হয়ে প্রাণে বেচে যায়। ধর্মীয় মতে এই লাশ গুলির কোন সৎকার সেদিন করা সম্ভব হয় নাই। সব লাশগুলিকে বর্ষার পানিতে ভাসিয়ে দেওয়া হয়েছিল। যাহারা বেঁচে গিয়েছিল পরবর্তী আবারো আক্রমনের ভয়ে ওই রাত্রে সব মানুষ যে যেভাবে পারে পালিয়ে গিয়েছিল। ওই দিন এমন কোন একটি বাড়ীও তাদের হাত থেকে রেয়াই পায়নি। স্বাধীনতার সাতচল্লিশ বছর অতিক্রান্ত হলেও শহীদদের স্মরণে সরকারি ভাবে কোন বধ্যভূমি নির্মাণ করা হয় নি।
২০০৯ ইং সনে হবিগঞ্জ-লাখাই আসনে আলহাজ্ব এডঃ মোঃ আবু জাহির সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর ২ কিস্তিতে ৩ লাখ টাকা সরকারিভাবে বরাদ্দ দিয়ে বধ্যভূমি নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। কৃষ্ণপুর গ্রামের বাসিন্দা শিক্ষা বিভাগের সহকারী প্রকৌশলী (অবঃ) প্রদীপ কান্তি রায় বধ্যভূমি নির্মাণের নকশা প্রনয়ণ করেন। বরাদ্দকৃত টাকা দিয়ে মাটি ভরাটসহ অনুসাঙ্গিক কিছু কাজ করা হয়।
স্বাধীনতা সংগ্রামে বাংলাদেশের যে ৩০ লাখ শহীদ আত্মদান করেছেন তাদের সংগে আছে কৃষ্ণপুর গ্রামের ১২৭ জন শহীদের আত্মদান। একদিন হয়ত ভবিষৎ প্রজন্ম শহীদদের সুমহান আত্মদানের কথা ভুলে যাবে। কৃষ্ণপুর গ্রামের অনাগত ভবিষৎ প্রজন্ম যাতে কৃষ্ণপুর গ্রামের ১২৭ জন শহীদের বীরত্বগাথা সিদ্ধান্ত মোতাবেক গ্রামবাসীর সকলের আর্থিক আনুকুল্যে ও সার্বিক সহযোগিতায় পরিপূর্ণ বধ্যভূমি নির্মাণের প্রয়াস গ্রহণ করেন। এখানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ভাষনরত অবস্থার প্রতিকৃতি, ৩ জন মুক্তিযোদ্ধার প্রতিকৃতি ও শহীদ স্মৃতি স্তম্ভ সহ জাতীয় দিবস গুলো উদযাপন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্টান করার জন্য স্থায়ী মঞ্চ নির্মাণ করার কাজ চলছে। এতে মূল পরিকল্পনায় রয়েছে একটি গেষ্ট রুম, আলোকশয্যা, ফুলের বাগান সহ আনুসাঙ্গিক কিছু সৌন্দর্য বর্ধক কাজ অন্তর্ভুক্ত থাকলেও বরাদ্দের অভাবে এখনই বাস্তবায়ণ করা সম্ভব হচ্ছে না। সরকারি/বেসরকারি বরাদ্দ পাওয়া গেলে বাকী কাজ গুলো সম্পন্ন করা হবে।
প্রতি বৎসর ১৮ সেপ্টেম্বর কৃষ্ণপুর গ্রামের গণহত্যা দিবস যথাযথ মর্যাদা সহকারে পালন করা হয়।
মূল উদ্দেশ্য বাঙ্গাঁলী জাতীসত্বার বিকাশ ঘটিয়ে কৃষ্ণপুর গ্রামের শিক্ষার্থী যুব সমাজ সহ সকলের মাঝে দেশাত্ববোধ তথা দেশ প্রেমে উদ্বুদ্ধ করা। শুধু শহীদদের উদ্দেশ্যে ফুল দেওয়া বা শহীদদের স্মরণ করার জন্যই এ বধ্যভূমি নির্মিত হয়নি। প্রকৃত দেশাত্ববোধ ও সত্যিকারের আলোকিত মানুষ সৃষ্টি করা দেশের জন্য আত্মত্যাগ সুন্দর মননশীলতার চর্চা এই বধ্যভূমিতে হবে এই প্রত্যাশায়ই বধ্যভুমি নির্মাণের প্রয়াস নেওয়া হয়েছে। কৃষ্ণপুর গ্রামের বিশিষ্ট বীর মুক্তিযোদ্ধা অমরেন্দ্র লাল রায় এর উদ্যোগে ও পৃষ্টপোষকতায় এবং গ্রামবাসী সকলের সহযোগিতায় এই বধ্যভূমি নির্মিত হচ্ছে। প্রতি বছর ১৮ সেপ্টেম্বর বধ্যভূমির বেদীমূলে শহীদদের স্মরণে আনুষ্ঠানিক ভাবে পুষ্প স্তবক অর্পন, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আলোচনা সভার মাধ্যমে মর্যাদা সহকারে দিবসটি পালন করা হয়। কৃষ্ণপুর গ্রামের বধ্যভূমিই হবে গ্রামের সকল সাংস্কৃতিক চর্চার কেন্দ্রস্থল ও মিলন মেলা।
স্বাধীনতা সংগ্রামে কৃষ্ণপুরে গ্রামের যাহাঁরা শহীদ হয়েছেন তাদের পরিবারের সদস্য এবং কৃষ্ণপুর বধ্যভূমি নির্মাণে যাহারা সহযোগিতা করেছেন এমন পরিবারের কোন সদস্য মৃত্যুবরণ করলে তাদের লাশ এই এই বধ্যভূমিতে এনে সম্মান প্রদর্শন এবং তাদের কর্মময় জীবনের উপর সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হবে। তাদের নাম, পরিচয় সহ মৃত্যুর তারিখ কৃষ্ণপুর বধ্যভূমি পরিদর্শন খাতায় লিপিবদ্ধ থাকবে বলে বধ্যভূমি নির্মাণে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।
এদিকে সূত্র মতে তালিকায় মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হলেও অদ্যাধী কৃষ্ণপুর গ্রামের শহীদদের নাম মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় উঠানো হয়নি। এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডার অ্যাডঃ মোহাম্মদ পাঠান জানান, ১৯৭১ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর পাক হানাদার বাহিনী নির্মমভাবে কৃষ্ণপুর গ্রামবাসীর উপর হামলা চালায়। রাজাকারদের সহযোগিতায় কৃষ্ণপুর গ্রামের ১২৭জন লোককে ব্রাশফায়ার করে হত্যা করা হয়েছিল। যারা শহীদ হয়েছেন তাদের নাম শহীদের তালিকায় যেন উঠানো হয় এবং আহতদের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়। এছাড়াও এ ঘটনার সাথে জড়িত রাজাকারদের শাস্তির রায় হলেও তারা পালিয়ে থাকার কারণে বিচার কার্যকর হচ্ছে না। তাদের গ্রেফতারের মাধ্যমে বিচার কার্যকর করা দাবি জানান তিনি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com